প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

আন্দোলনের মাধ্যমে সিটি নির্বাচনের তারিখ পেছানোর হুঁশিয়ারী সদ্দামের

ওবায়দুর রহমান সোহান, ঢাবি প্রতিনিধি : ৩০ জানুয়ারি ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ নির্বাচনের দিন স্বরস্বতী পূজা হওয়ায় তারিখ পেছানোর দাবিতে আয়োজিত এক মানববন্ধনে আন্দোলনের মাধ্যমে হুঁশিয়ারী দিয়েছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদ (ডাকসু) সহ-সাধারণ সম্পাদক (এজিএস) সাদ্দাম হোসেন।

তিনি বলেন, আজ রাজু ভাস্কর্যে মানববন্ধন করছি এরপরও নির্বাচনের তারিখ পরিবর্তন না করা হলে, এখান থেকে নির্বাচন কমিশনের কার্যালয় পর্যন্ত মানববন্ধন করব। দাবি আদায় না হলে প্রয়োজনে তুমুল আন্দোলন গড়ে তুলব।

রোববার (১২ জানুয়ারি) বিকাল ৩টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের সন্ত্রাসবিরোধী রাজু ভাস্কর্যের সামনে আগামী ৩০ জানুয়ারি স্বরস্বতী পূজার দিন নির্বাচন কমিশন কর্তৃক ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনের তারিখ পুনর্বিবেচনার আহ্বান জানিয়ে বাংলাদেশ ছাত্র ঐক্য পরিষদ কর্তৃক আয়োজিত মানববন্ধন ও প্রতিবাদ কর্মসূচি।

সাদ্দাম আরো বলেন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় অসাম্প্রদায়িক চেতনার সূতিকাগার। তাই ৩০ জানুয়ারি স্বরস্বতী পূজার দিন সিটি নির্বাচনের তারিখ নির্ধারণ করায় অসাম্প্রদায়িক চেতনা হৃদয়ে দাগ কেটেছে। সুতরাং শুধু নির্বাচনের তারিখ পরিবর্তন নয় নির্বাচন কমিশনকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী ও দেশবাসীর কাছে জবাবদিহি করতে হবে।

তিনি বলেন, আমাদের সংবিধানে অসাম্প্রদায়িকতার কথা উল্লেখ্য আছে। আর আপনি দায়িত্ব গ্রহণের সময় সংবিধান অনুযায়ী কাজ করার শপথ করেছিলেন। তাহলে নির্বাচনের তারিখ ঘোষণার সময় কি শপথের কথা ভুলে গেছিলেন।

এ সিদ্ধান্তের নিন্দা জানিয়ে ডাকসু’র সাংস্কৃতিক সম্পাদক আসিফ তালুকদার বলেন, বঙ্গবন্ধু অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশের স্বপ্ন দেখেছিলেন। তাঁর কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনা সেই স্বপ্নকে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছে। এই চেতনার জন্যই ৩০ লক্ষ বাঙ্গালি জীবন দিয়েছে। আজ স্বরস্বতী পূজার দিন নির্বাচনের তারিখ ঘোষণার মাধ্যমে সেই চেতনার গাঁয়ে আঘাত লেগেছে। আমরা এই তারিখ পরিবর্তনের দাবি জানাচ্ছি।

মানববন্ধনে বিভিন্ন হল সংসদের প্রতিনিধিরা দাবির সাথে সহমত পোষণ করে অংশগ্রহণ করেন। তাঁদের মধ্যে কবি জসিম উদ্দিন হল সংসদের সহ-সভাপতি (ভিপি) ফরহাদ আলী বলেন, আমরা অসাম্প্রদায়িক চেতনা নিয়ে বেড়ে উঠতে চাই। সেই লক্ষ্যে আমরা ৩০ জানুয়ারির সিটি কর্পোরেশন নির্বাচন পেছানোর দাবি জানাচ্ছি। আশা করি মাননীয় প্রধান মন্ত্রী আমাদের দাবিটি বিবেচনা করবেন।

এসময় আরো উপস্থিতি ছিলেন ও বক্তব্য রাখেন- সদস্য তিলোত্তমা সিকদার, কুয়েত মৈত্রী হল সংসদের জিএস (সাধারণ সংসদ) সুসমিতা, জিয়া হল সংসদের জিএস শান্ত, সূর্য সেন হল সংসদের সোহান, বিজয় ৭১ হলের জিএস আবু ইউনুস, মহসিন হল সংসদের জিএস মিজান, বঙ্গবন্ধু হল সংসদের জিএস পিয়াস, জগন্নাথ হল ছাত্র সংসদের জিএস কাজল দাশসহ বিভিন্ন হলের ছাত্র সংসদের প্রতিনিধিরা।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত