প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

স্বাধীনতা স্তম্ভ পর্ব-৩
গণপূর্তের কাজে খামখেয়ালী ও ডিএসসিসির সমন্বয়হীনতার কারণে নির্দিষ্ট সময়ে কাজ শেষ হচ্ছে না

সুজিৎ নন্দী: মুজিববর্ষ শুরু আগে স্বাধীনতা স্তম্ভ পর্ব-৩ কাজ শেষ হবার কথা থাকলেও তা বাস্তবায়ণ হয়নি। গণপূর্ত অধিদফতরের কাজে খামখেয়ালী ও ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের (ডিএসসিসি) কাজে সমন্বয়হীনতার কারণে নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে কাজ শেষ হচ্ছে না। ২৬৪ কোটি ৪৪ লাখ টাকা ব্যয়ে এ বছর মার্চ মাসের আগে শেষ হবার কথা। পরবর্তিতে চলতি বছরের জুনে নির্ধারণ করা হলে আবারো আগামী বছরের শুরুতে শেষ করা সময় নির্ধারণ করা হয়েছে। বর্তমানে মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রীকে প্রধান করে বাস্তবায়ন কমিটি এটি বাস্তবায়ণ করছে। প্রকল্প পরিচালক সূত্রে এতথ্য জানা যায়।

সরেজমিনে দেখা যায়, শুধুমাত্র বেইজমেন্ট পার্কিং এর ঢালাইয়ের কাজ শেষ হয়েছে। গণপূর্ত অধিদফতরের কাজের ধীরগতির কারণে এ অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে। চলতি অর্থবছরে এ প্রকল্পের অর্থ ছাড় হবার কথা থাকলেও নির্দিষ্ট সময়ে না আসার কারণে এ অবস্থা তৈরি হয়েছে একাধিক সূত্র জানায়। নগর গণপ‚র্তের নির্বাহী প্রকৌশলী শওকত উল্লাহ বলেন, কাজটি ক্রমেই পিছিয়ে যাচ্ছে। শুধু গণপূর্তের কারণে নয়, সিটি করপোরেশন শিশুপার্কটি নির্দিষ্ট সময়ে না সরানোর কারণে এ অবস্থার তৈরি হয়েছে। দায়িত্বে থাকা তত্ত¡াবধায়ক প্রকৌশলী এ কে এম সোহরাওয়ার্দী বলেন, আরো অগ্রগতি হবার কথা ছিলো। কিন্তু সে পরিমান অগ্রগতি হয়নি। তবে কেন অগ্রগতি হয়নি এ ব্যাপারে তিনি কোন মন্তব্য করেন নি।

সূত্র জানায়, সোহরাওয়ার্দী পার্ক স্বাধীনতা স্তম্ভ প্রকল্পে ৫টি ধাপে কাজ হচ্ছে। ৫শ’ গাড়ি রাখার জন্য বেইজমেন্টে গাড়ি পাকিং এবং একটি আবাসিক ভবন তৈরি হচ্ছে। যার কাজ ইতোমধ্যে শুরু হয়েছে। এরই পাশে ওয়াটার বডি ও ফেয়ারা তৈরি করা হবে। অন্যপাশে ভ’গর্ভস্থ আন্ডারপাস নির্মাণ করা হবে। ন্যাশনাল ডেভেলপমেন্ট ইঞ্জিনিয়ারিং (এনডিই) কাজটি করছে।

প্রকল্প পরিচালক (মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয়) সানোয়ার হোসেন বলেন, যে পরিমান অগ্রগতি হবার কথা ছিলো তা হয়নি। তবে ধীরগতিতে কাজ চলছে। গণপূর্ত অধিদফতরের কাজে খামখেয়ালী ছিলো।

চলতি অর্থবছরে এ প্রকল্পের অর্থ ছাড় হবার কথা থাকলেও নির্দিষ্ট সময়ে না আসার কারণে এ অবস্থা তৈরি হয়েছে। ৫ ধাপের কাজটির শেষ হবে, কিন্তু প্রথম ধাপ বাস্তবায়ন হয়েছে। মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয়, স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয় ও গৃহায়ণ ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয় প্রকল্পের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট আছে।

প্রকল্প বাস্তবায়নে গণপ‚র্ত অধিদপ্তরের সাবেক প্রধান প্রকৌশলী শাহাদত হোসেনের ভ’মিকার কারণে এ অবস্থার তৈরি হয়েছে। তবে শাহাদত হোসেন বলেন, এ কাজের সঙ্গে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্ম শতবার্ষিকী অনুষ্ঠানের কোন সম্পর্ক নেই। আমার সময় প্রকল্পের কাজ পুরোদমে চলেছে। পুরো কাজটি কয়েক ভাগে ভাগ করা ছিলো।

সূত্র জানায়, প্রকল্প বাস্তবায়ণ করতে ফুলের মার্কেট ভেঙ্গে ফেলতে বলা হয়েছে। শাহবাগ থানা দ্রæত সরিয়ে ফেলার জন্য মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয় থেকে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়কে চিঠি দেয়া হয়েছে। খুব শিঘ্রই থানা সরিয়ে ফেলা হবে। কিন্তু বাস্তবে এর অগ্রগতি নেই। তবে গণপ‚র্ত অধিদপ্তরের কাজের যে গতি আগামী বছর জুনের মধ্যে শেষ হওয়া নিয়ে সংশয় রয়েছে।

সর্বাধিক পঠিত