প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদের রকেট-বিকাশ বাণিজ্য?

হাসান বিন বাংলা : অনলাইন পোর্টালের একটা নিউজের উপর সরকার সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ের দৃষ্টি আকর্ষণ করছি।  কিছু বিকাশ নম্বর, রকেট নম্বর, ব্যাংক অ্যাকাউন্ট নম্বর, পে-পাল নম্বর এবং নিশ্চিতকরণ নম্বর দেয়া হলো যা কথিত ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদের আহত নেতৃবৃন্দের সুচিকিৎসার (!) জন্য সাহায্য, সহায়তা চেয়ে শুভাকাক্সক্ষীদের আহ্বান জানানো হয়েছে।
বিকাশ নম্বরসমূহ : বিকাশ জঞখ ০১- ০১৭৪৩২৫৭৫২৭, বিকাশ ঝকখ ০২- ০১৭৫৮৮২১০২৫, বিকাশ ঝঐজই ০৩- ০১৭৪৭৭৪৭৭৫৫, বিকাশ গঐঋত ০৪- ০১৯৯৭৫৪৯৫৪৪, বিকাশ ঐঘঋ ০৫- ০১৭৭২৪০০৫৬৭। রকেট নম্বরসমূহ : রকেট ঞজক ০১- ০১৭২৫৫৪৫৯৫০৫, রকেট ঝঐজই ০২- ০১৭৪৭৭৪৭৭৫৫৮, রকেট ঝকখ ০৩- ০১৭৫৮৮২১০২৫৮, রকেট গগঘ ০৪- ০১৮১৯৬০৩৬১৪৩। ব্যাংক অ্যাকাউন্ট নম্বর : অপপড়ঁহঃ ঘড় : ১৭৩১৫১০১৬১১৯৭,

ঘধসব : ঘধযরফঁষ ওংষধস, ইৎধহপয ঘধসব : ইযধরৎধন ইধুধৎ, ইধহশ হধসব : উঁঃপয ইধহমষধ ইধহশ ষঃফ. পে-পাল নম্বর : , নিশ্চিতকরণ নম্বর : (আল আমিন কেন্দ্রীয় কমিটি) ০১৬২৮৫৯২৭০৬। খবরের সূত্র অনুযায়ী যা জানা যায় তাহলো ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদের যুগ্ম আহ্বায়ক মুহাম্মদ রাশেদ জানিয়েছেন, আহতদের চিকিৎসার ব্যয় মেটাতে হিমশিম খাচ্ছে আহতদের পরিবার ও সংগঠনটি। নূরাদের জখম, আহত হওয়ার খবরে সরকার সংশ্লিষ্ট সব মহলই উদ্বিগ্ন যেমন আমার ছোট ভাই হাব্লু-মফিজও চিন্তিত, উদ্বিগ্ন। প্রশ্ন হলো সেদিন ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদের কতোজন জখম হয়েছেন এবং তারা কারা? তাদের সবাই কি ঢাবি ছাত্র? ঢাবি ছাত্র না হলে তাদের পরিচয় কি? তারা কেমন করে ঢাবিতে গিয়ে কথিত আন্দোলনে জড়িত হলো? ভিপি নূর সারাদেশের ছাত্র সমাজের প্রতিনিধিত্ব করে না এবং কথাটা যদি সত্যি হয় তবে অবশ্যই বহিরাগত সবাই দুষ্কৃতকারী। আমরা দেখতে চাই, সেই বহিরাগতদের বিষয়ে সরকার সংশ্লিষ্ট মহল কি উদ্যোগ নেয়। আর একটি বিষয় হলো ফান্ড কালেকশন। এই ফান্ড কালেকশন কতোটা আইনগতভাবে বৈধ, তাও খতিয়ে দেখার সুপারিশ রইলো। এই ফান্ড কালেকশনের মাধ্যমে কি সুপরিকল্পিতভাবে সরকারের ইমেজের বারোটা বাজানোর তরিকা নিয়েছে কথিত ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদ? ভেবে দেখুন প্রয়োজনে বারবার ভাবুন কেননা হাব্লু-মফিজের প্রেডিকশনে সচরাচর ভুল হয় না। ফেসবুক থেকে

সর্বাধিক পঠিত