প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

আমনা নওয়াজ প্রথম দক্ষিণ এশীয় মডারেটর

ইত্তেফাক : পাকিস্তানি-আমেরিকান সাংবাদিক আমনা নওয়াজ যুক্তরাষ্ট্রে আসন্ন প্রেসিডেন্ট নির্বাচন উপলক্ষ্যে প্রার্থীদের মধ্যকার টিভি বিতর্ক অনুষ্ঠানে মডারেটরের দায়িত্ব পালন করবেন। দক্ষিণ এশীয় বংশোদ্ভূত কারো এ সম্মান অর্জনের ঘটনা এটাই প্রথম। যুক্তরাষ্ট্রের জনপ্রিয় পাবলিক ব্রডকাস্টিং সার্ভিসের নিউজ প্রোগ্রাম ‘নিউজ আওয়ার’ এর সিনিয়র সাংবাদিক হিসেবে কাজ করছেন ৪০ বছর বয়সি আমনা। তার সঙ্গে সহ-মডারেটর হিসেবে থাকবেন পিবিএস ব্যবস্থাপনা সম্পাদক জুডি উডরাফ ও তার সহকর্মী পিবিএস নিউজ আওয়ারের হোয়াইট হাউজ প্রতিনিধি ইয়ামিচ এলসিন্ডর এবং পলিটিকোর প্রধান রাজনৈতিক প্রতিবেদক টিম আলবার্টা। তারা আগামী ১৯ ডিসেম্বর লসএঞ্জেলেসের লয়োলা মেরিমাউন্ট ইউনিভার্সিটিতে অনুষ্ঠিতব্য ষষ্ঠ ডেমোক্র্যাটিক প্রাইমারি বিতর্ক সঞ্চালনার দায়িত্বে থাকবেন।

পাকিস্তানের পিটিভি চ্যানেলের প্রখ্যাত সাংবাদিক সুজা নওয়াজের কন্যা আমনা পিবিএস নিউজ আওয়ারে যোগ দনে ২০১৮ সালের এপ্রিলে। এর আগে তিনি এবিসি নিউজের উপস্থাপক হিসেবেও দায়িত্ব পালন করেছেন। ২০১৬ সালের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের সময়ে তিনি ‘ব্রেকিং নিউজ’ নিয়ে ঘন ঘন দর্শকদের সামনে হাজির হয়েছেন। তার উপস্থাপনার ব্যতিক্রমী ধরন তাকে অল্প সময়ের মধ্যে দর্শকদের কাছে বিপুল জনপ্রিয় করে তোলে। এর আগে তিনি এনবিসি নিউজের পক্ষে বিদেশি প্রতিনিধি হিসেবে পাকিস্তান, আফগানিস্তান, সিরিয়া, তুরস্ক ইত্যাদি দেশ থেকে রিপোর্ট পাঠিয়েছেন।

জনপ্রিয় নিউজ প্রোগ্রাম ‘নিউজআওয়ার’ এ আমনা নওয়াজ রাজনীতি, পররাষ্ট্রনীতি, শিক্ষা, জলবায়ু পরিবর্তন, সংস্কৃতি ও খেলাধুলা ইত্যাদি নিয়ে সংবাদ পরিবেশন করেন। তিনি ট্রাম্প প্রশাসনের অভিবাসন নীতি নিয়ে বেশ কয়েকটি প্রতিবেদন তৈরি করেন যা ব্যাপক সাড়া ফেলে। ট্রাম্পের নীতির কারণে পরিবার ছাড়া হওয়া এক মেক্সিকান শিশুকে নিয়ে তার প্রতিবেদন ভাইরাল হবার পর মার্কিন সরকার শিশুটির পরিবারকে খুঁজে তাদের কাছে পৌঁছে দিতে বাধ্য হয়। এর বাইরে আমনা যুক্তরাষ্ট্রে ঘটে যাওয়া মানবাধিকার লঙ্ঘনের বিষয়েও সংবাদ পরিবেশন করেন।

জনপ্রিয় এই নারী সাংবাদিক দীর্ঘ সময় এনবিসি চ্যানেলের ইসলামাবাদ ব্যুরোপ্রধানের দায়িত্বও পালন করেছিলেন। পাকিস্তানে যখন ব্যাপক মাত্রায় জঙ্গি হামলার আতঙ্ক ছিল তখন আমনা তালেবান নিয়ন্ত্রিত ওয়াজিরিস্তানে গিয়ে মালালা ইউসুফজায়ির ওপর তালেবান হামলার রিপোর্ট করে দুঃসাহসিকতার প্রমাণ দিয়েছিলেন। এছাড়া তিনি লাদেনের কম্পাউন্ডে মার্কিন অভিযানের এক্সক্লুসিভ রিপোর্ট করে ব্যাপক জনপ্রিয় হয়ে ওঠেন। সব মিলিয়ে সাংবাদিক হিসেবে যুক্তরাষ্ট্রে নিজের শক্ত একটি অবস্থান তৈরি করতে সক্ষম হয়েছেন পাকিস্তানি বংশোদ্ভূত এ নারী।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত