প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

মৌলভীবাজার জেলার শ্রেষ্ঠ বিদ্যাপীঠ কুমড়াকাপন সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়

স্বপন দেব, মৌলভীবাজার : কমলগঞ্জ উপজেলার কুমড়াকাপন সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় মৌলভীবাজার জেলার শ্রেষ্ঠ প্রাথমিক বিদ্যালয় নির্বাচিত হয়েছে। জাতীয় প্রাথমিক শিক্ষা পদক-২০১৯ এ জেলা পর্যায়ে বাছাই পর্বে প্রাথমিক শিক্ষার গুণগত মান উন্নয়ন, বিভিন্ন উদ্ভাবন, ভাল শিখনসহ সার্বিক বিবেচনায় বিদ্যালয়টিকে জেলার শ্রেষ্ঠ বিদ্যালয় হিসাবে ঘোষনা করা হয়। কমলগঞ্জ উপজেলা শিক্ষা অফিসার মো. সাইফুল ইসলাম তালুকদার এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। এর আগে একাধিকবার এই বিদ্যালয়ের এসএমসি জেলা ও বিভাগীয় পর্যায়ে শ্রেষ্ঠ এসএমসি নির্বাচিত হয়েছিল।

এদিকে গতকাল মঙ্গলবার জেলার শ্রেষ্ঠ বিদ্যালয় নির্বাচিত হওয়ার পর কুমড়াকাপন সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়টি আকস্মিক পরিদর্শনে আসেন মৌলভীবাজার জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার মালেকা পারভীন। পরিদর্শনকালে তিনি বার্ষিক পরীক্ষা ও বিদ্যালয়ের সার্বিক কার্যক্রম পরিদর্শন করেন। পরে ছাত্র-শিক্ষক-অভিভাবকদের সাথে মতবিনিময় করে দেয়ালিকা ‘বিজয়-৪৮’ এর শুভ উদ্বোধন করেন। এ সময় উপস্থিত ছিলেন কমলগঞ্জ উপজেলা শিক্ষা অফিসার মো. সাইফুল ইসলাম তালুকদার, কমলগঞ্জ পৌরসভার মেয়র মো. জুয়েল আহমদ, এসএমসি সভাপতি মো. আনোয়ার হোসেন, সাবেক সভাপতি এড, মো. সানোয়ার হোসেন, লেখক-গবেষক আহমদ সিরাজ, পিটিএ সভাপতি হাজী কামাল উদ্দিনসহ শিক্ষকমন্ডলী ও অভিভাবকবৃন্দ। এ সময় বিদ্যালয়ের পক্ষ থেকে জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসারকে অভিনন্দন পত্র প্রদান করা হয়।

জানা যায়, কুমড়াকাপন সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় দীর্ঘ দিন ধরে প্রতিটি ক্ষেত্রে সুনাম অক্ষুন্ন রেখেছে। বিদ্যালয়ে শিক্ষার মান উন্নয়ন, ঝড়ে পড়া রোধে উদ্যোগ গ্রহণ, মিড ডে মিল, বন্ধু শিক্ষক কার্যক্রম, কাব কার্যক্রম, হলদে পাখির দলসহ নানামুখী শিক্ষনীয় কার্যক্রম চলমান থাকায় ২০১৯ সালে প্রথমে উপজেলা পর্যায়ে ও পরে জেলা পর্যায়ে শ্রেষ্ঠ প্রাথমিক বিদ্যালয় নির্বাচিত হয়। কুমড়াকাপন সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়টি মৌলভীবাজার জেলায় অন্যরকম একটি বিদ্যালয়ে পরিনত হয়েছে। এ বিদ্যালয়ে শিক্ষার্থীদের ঝড়ে পড়া শূণ্যের কোঠায় এবং উপস্থিতি শতভাগ। বিদ্যালয়ে বন্ধু কর্ণার, লাইব্রেরী, সততা স্টল, লস্ট এন্ড ফাউন্ড, মতামত বক্স, মহানুভবতার দেয়াল, নোটিশ বোর্ডসহ অসংখ্য কার্যক্রম চলমান।

বিদ্যালয়ের সহকারি শিক্ষক মনজুর আহমেদ আজাদ মান্না বলেন, আমরা আমাদের শিক্ষার্থীদের দক্ষ ও সুনাগরিক হিসেবে গড়ে তুলতে লেখাপড়ার পাশাপাশি বিভিন্ন কার্যক্রম করে আসছি। যার ফলে শিক্ষার্থীদের ঝড়ে পড়া শূণ্যের কোঠায় এবার উপস্থিতি শতভাগ। তিনি আরও বলেন বিদ্যালয়ে বন্ধু কর্ণার, লাইব্রেরী, সততা স্টল, লস্ট এন্ড ফাউন্ড,মতামত বক্স, মহানুভবতার দেয়াল, নোটিশ বোর্ডসহ অসংখ্য কার্যক্রম চলমান। সকলের দোয়া ও ভালবাসা নিয়ে আমরা বিদ্যালয়টিকে আরও এগিয়ে নিয়ে যেতে চাই।

কুমড়াকাপন সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সভাপতি কমলগঞ্জ পৌরসভার কাউন্সিলর মো. আনোয়ার হোসেন বলেন, এই বিদ্যালয়ের শিক্ষকরা খুবই আন্তরিক। বিদ্যালয়ের সুদক্ষ প্রধান শিক্ষক সালেহা মাহমুদের নেতৃত্বে শিক্ষার মান উন্নয়নে নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছেন। শিক্ষক, অভিভাবক, পরিচালনা কমিটি,অভিভাবক শিক্ষক কমিটি (পিটিএ)সহ সকলের সহযোগিতায় বিদ্যালয়টি উপজেলা পর্যায়ে শ্রেষ্ঠ হওয়ায় তারা সকলের কাছে কৃতজ্ঞ।

কুমড়াকাপন সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষিকা সালেহা মাহমুদ বলেন, লেখাপড়ার মান উন্নয়নের পাশাপাশি সার্বিক উন্নয়নে শিক্ষকদের পাশাপাশি পরিচালনা কমিটির সকল সদস্য ও পিটিএর সদস্যরা খুবই আন্তরিক ছিলেন বলেই ২০১৯ সালে কমলগঞ্জ উপজেলা পর্যায় হয়ে জেলা পর্যায়ে শ্রেষ্ঠ বিদ্যালয় হিসেবে নির্বাচিত হয়েছে। এখন বিভাগ পর্যায়ে প্রতিযোগিতায় যাচ্ছে বিদ্যালয়টি।

জানা যায়, ১৯৫২ সালে কুমড়াকাপন সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়টি প্রতিষ্ঠা লাভ করেছিল। ২০১১ সালে মৌলভীবাজার জেলায় প্রথম সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় হিসেবে এখানে মিড-ডে মিল চালু হয়। ২০১১-২০১২ সালে বিদ্যালয়ের এসএমসি সিলেট বিভাগে শ্রেষ্ঠ এসএমসি হিসেবে নির্বাচিত হয়েছে। বিদ্যালয়ে প্রতি বছর দেয়ালিকা প্রকাশ করা হয়। ২০১৭ সালে দেয়ালিকা প্রতিযোগিতায় উপজেলার ১৫২টি বিদ্যালযের মধ্যে প্রথম স্থান অর্জন করে। সম্পাদনা : মৌরী সিদ্দিকা

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত