প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

বাঙালি-বিহারী, বাঙালি-অহমীয়া হিন্দু-মুসলমান বিভাজন আর নয়

 

ম. ইনামুল হক : কেন্দ্রের জয়েন্ট এন্ট্রান্স পরীক্ষা আগামীতে বাংলাসহ অন্য সব আঞ্চলিক ভাষায় নেয়া হবে এই সংবাদে বেশ কিছু আন্দোলনকারী সাফল্যের আতিশয্যে নাচতে আরম্ভ করেছেন। কী অদ্ভুত! এখনো তো কাজই শুরু হয়নি। ইশারাতেই কেল্লা ফতে? বিগত একশ বছর ধরে বাংলার নেতারা বাঙালিকে গর্তে নামিয়ে এসেছে।

যে মমতা বলতে বাধ্য হলেন ‘গুজরাটিতে হলে, বাংলায় নয় কেন?’ সেই মমতাই তো ক্ষমতায় থেকে এতোকাল হিন্দি তোষণ করে এসেছেন। বাংলা ভাগ হওয়ার বিরুদ্ধে মানুষ জাগছে। ১৯০৫-এর বাংলা ১৯১১তে দু’হাত কাটা হলো, ১৯৪৭-এ ধড় দু’ভাগ হলো, তখন বাধা আসেনি কেন? বাঙালিকে গর্তে থেকে তোলার জন্য কেবল মই নেমেছে। সামনে অনেক চড়াই পথে এগোতে হবে। সারা পূর্বদেশ তথা বৃহত্তর বাংলাব্যাপী বাঙালি নেতৃত্ব নিক। মৈথিলী, ভোজপুরী, কুরমালী সবার। বাঙালি-বিহারী, বাঙালি-অহমীয়া, ঘটি-বাঙাল, হিন্দু-মুসলমান বিভাজন আর নয়। সমন্বয় প্রয়োজন। লেখক : আহবায়ক, সর্বজন বিপ্লবী দল। ফেসবুক থেকে

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত