প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

দীপু, আমাদের সোনার ছেলে

অজয় দাশগুপ্ত : দুনিয়ার যতো নেগেটিভ বিষয়ে আগ্রহ আমাদের। কার ফাঁসি হলো কে কাকে অপমান করলো, কোথায় কে টাকা চুরি করলো এসব নিয়ে সামাজিক মিডিয়া সয়লাব। কথায় বলে, মাছি ভনভন করে নোংরায় আর মৌমাছি ঘুরে বেড়ায় ফুলে ফুলে। আমরা কেন মাছিতে পরিণত হতে চাইবো? দেখুন এই যুবকটিকে, কি আত্মবিশ্বাস আর গর্বের সঙ্গে আমাদের প্রাণপ্রিয় পতাকা তুলে ধরেছে। শুধু কী তাই? নানা বিষয়ে খেলার মাঠে আমরা যখন পর্যুদস্ত তখন এই যুবক এনে দিয়েছে সাফল্যের সুবাতাস। এসএ গেমস যার আসল নাম সাউথ এশিয়ান গেমসে পদক জেতা কি সহজ কথা? সাতটি দেশের হাজার হাজার প্রতিযোগীর ভেতর থেকে দেশের জন্য প্রথম সোনা নিয়ে এসেছে দিপু।

দিপু চাকমা পাহাড়ের মানুষ। চট্টগ্রামের লাগোয়া শৈলমালার শহর রাঙ্গামাটির যুবক। যে শহরে আমাদের সেনানায়করা সেটেলার পাঠানোর নামে অশান্তি তৈরি করে রেখেছিলো। যে জনপদের মানুষদের আমরা এখনো সমতলের মতো আপন বা সমান সমান মনে করতে শিখিনি। বাংলাদেশের পর্যটন থেকে বিনোদনের দিকে তাকালে দেখবেন পাহাড়ি জনপদ আমাদের শুধু দিয়েই গেছে। তাদের ঐতিহ্যবাহী নাচ গান আর সংস্কৃতি বিকাশে আমাদের ভূমিকা থাক বা না থাক আমরা তাদের যত করে শো কেসে রেখেছি। বিদেশের অতিথিরা আসলেই মনে পড়ে, ওহ তাই তো। আধুনিক বা পাশ্চাত্যমুখী কিছুতে তো হবে না। চাই আদি ও অরিজিনাল। ব্যস ধরে বেঁধে নিয়ে আসি তাদের। তারা মাথায় কলসী কাঁখে কলসী পায়ে খাড়ু আর বাঁশ কাঠির উপর দিয়ে নেচে গেয়ে দেশের মুখ ও মর্যাদা বাঁচায় । ওই টুকুই।

কোনোকালে তাদের নিয়ে একটা সিনেমা হয় না। নাটক হলেও তা সাড়া ফেলে না। গান হয় না। তাদের মূলস্রোতে নিয়ে আসার পরিবর্তে পাহাড়ি করে রাখাই আমাদের কাজ। তখনই তারা নিউজ যখন সেখানে কোনো অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটে। এবার চট্টগ্রামে একটি কবিতা পাঠের আসরে এমনই এক আদিবাসী তরুণী বিশুদ্ধ বাংলায় আমার একটি কবিতা আবৃত্তি করে চমকে দিয়েছিলো। যার আবৃত্তি ছিলো সমতলের যেকোনো বাঙালির চাইতে শুদ্ধ । অথচ কেউ তার নাম শুদ্ধ করে বলতে পারেনি আমাকে। যার কথা লিখছি সে দিপু চাকমা কোনোদিনও আমাদের নজরে পড়তো না। অথচ সে আজ বাংলাদেশকে সাউথ এশিয়ান গেমসে প্রথম স্বর্ণ পদক এনে দিয়েছে। দীপু, আমাদের সোনার পাহাড়ি ছেলে। তাকে ভালোবাসা জানাই। ফেসবুক থেকে

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত