প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

আবারো তৃতীয় বিভাগের আম্পায়ারিং নিয়ে বিতর্ক, আঙুল উঠছে ক্ষমতাবানদের উপর

শিউলী আক্তার : বাংলাদেশের দ্বিতীয় ও তৃতীয় বিভাগের ক্রিকেট ম্যাচ পাতানো ও আম্পায়ারদের পক্ষপাতিত্বের ঘটনা আবারো বেরিয়ে আসছে। সম্প্রতি এমন ঘটনা নিয়ে একটি ভিডিও ভাইরাল হয়েছে। এখন আবার নতুন করে হয়েছে এমন নির্লজ্জ ঘটনা। তবে দলের ক্ষমতাবান কর্মকর্তাদের আঙুলের ইশারায় এমন ন্যাক্কারজনক কাজ করছে আম্পায়াররা বলে এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে।

বাংলাদেশের জনপ্রিয় স্যাটেলাইট চ্যানেলের ক্যামেরায় উঠে এসেছে তৃতীয় বিভাগ ক্রিকেটের এক ম্যাচে আম্পায়ারদের পক্ষপাতিত্বের চিত্র। কাঁঠাল বাগান ক্রিসেন্ট ক্লাব ও গুলশান ক্লাবের মধ্যকার ম্যাচে প্রভাবশালী গুলশানের পক্ষে কাঁঠাল বাগানের খেলোয়াড়দের জোরপূর্বক আউট দেয়ার অভিযোগ আম্পায়ারদের বিপক্ষে।

তৃতীয় বিভাগের এই টুর্নামেন্ট শেষে পয়েন্ট টেবিলের শীর্ষ দুই দল উঠে যাবে দ্বিতীয় বিভাগে। যেখানে গুলশানের অবস্থান তিনে এবং কাঁঠাল বাগান চারে। অর্থাৎ দ্বিতীয় বিভাগে উঠতে হলে ম্যাচ জেতার বিকল্প ছিলো না গুলশানের। দলটির ম্যাচ অফিসিয়ালরা প্রভাবশালী হওয়ায়। তাদের পক্ষে ম্যাচের ফলাফল আনতে আম্পায়ারদের ওপর চাপ করেছেন বলে অভিযোগ উঠেছে। নিরপেক্ষতার দায়িত্ব ভুলে নির্লজ্জের মতো ক্ষমতাবানদের পক্ষ নিয়েছেন আম্পায়াররাও।

এই দুই দলের মধ্যকার ম্যাচে আগে ব্যাটিং করে গুলশান সংগ্রহ করে ১৭৫ রান। গুলশানের ইনিংসের তেমন সন্দেহজনক কিছু চোখে পড়ে না। কিন্তু কাঁঠাল বাগান ব্যাটে নামার পর থেকেই আম্পায়ারদের পক্ষপাতিত্ব দেখা যায়। বল ব্যাটে না লাগলেও, গুলশানের উইকেটরক্ষক আবেদন করতেই দেয়া হয় ক্যাচ আউট। এমনকি গুলশানের ফিল্ডাররা আবেদন না করলেও আম্পায়ার এক আঙুল উঁচিয়ে ধরেছেন।

কাঁঠাল বাগানের এক ব্যাটসম্যান অভিযোগ করেন, ‘দুই-তিনটা বল পরে একটা বল খেলতে পারিনি। বলটা অনেক দূর থেকে যায়, ওয়াইড ছিলো। ওদের উইকেটরক্ষক বলটা নিয়ে আবেদন করতেই আম্পায়ার আউট দিয়ে দেয়। আমি তখনো উইকেটে দাঁড়ায়েই ছিলাম। তখন লেগ আম্পায়ার বলে, ‘দাঁড়ায়ে আছিস কেনো? যা।’ তখন আমি মাথা নিচু বের হয়ে গেছি।’

গ্যালারিতে বসে থাকা দর্শকরাও এই পক্ষপাতিত্বের কথা বলেছেন। তাদের ভাষায়, কিছু আউট একেবারেই অসঙ্গতিপূর্ণ ছিলো। তারা বলেছেন, ক্রিকেট মাঠে এমন কাণ্ডে তারা হতাশ। আর কখনো তারা খেলা দেখতে আসবেন কিনা সেই বিষয়েও সংশয় প্রকাশ করেছেন।

এখানকার আম্পায়ার, ম্যাচ রেফারি, মাঠকর্মীদের যোগ্যতা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন কাঁঠাল বাগানের সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ সরোয়ার। তাদের ক্রিকেটজ্ঞান নিয়েও সরোয়ার অভিযোগ করেছেন। তাদের অধিকাংশেরই আগে থেকে ক্রিকেটে সংশ্লিষ্ট ছিল না বলে অভিযোগ, কাঁঠাল বাগানের সাধারণ সম্পাদকের।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত