প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

আনিসুল হকের মৃত্যুবার্ষিকী; মেয়রপ্রার্থী রুবানা?

ডেস্ক রিপোর্ট  : গতকাল শনিবার ছিল প্রয়াত মেয়র আনিসুল হকের দ্বিতীয় মৃত্যুবার্ষিকী। কিন্তু এবার আনিসুল হকের পরিবার দ্বিতীয় মৃত্যুবার্ষিকী একটু ভিন্ন আঙ্গিকে পালন করেছে। বিশেষ করে সিটি কর্পোরেশনের মেয়র থাকা অবস্থায় স্বল্পতম সময়ের মধ্যে তিনি যে সাফল্যগুলো অর্জন করেছিলেন সে সাফল্যগুলো তুলে ধরা হয়েছে এবং তার বিভিন্ন বক্তব্য উদ্ধৃতি করে পত্রপত্রিকায় বিজ্ঞাপনও প্রচার করা হয়েছে।

দ্বিতীয় বর্ষে এসে সিটি কর্পোরেশন কেন্দ্রীক মৃত্যুবার্ষিকী উদযাপন নিয়ে সাধারণ মানুষের মধ্যে অনেক প্রশ্ন উঠেছে। বিশেষ করে যে সময় সিটি কর্পোরেশন নির্বাচন দরজায় কড়া নাড়ছে তখন আনিসুল হকের পরিবারের এ উদ্যোগের ব্যাপারে দুই ধরনের প্রতিক্রিয়া পাওয়া গেছে।

অনেকে মনে করছেন যে, আনিসুল হকের স্ত্রী রুবানা হক যিনি এখন গার্মেন্টস মালিক প্রতিষ্ঠান বিজিএমইর সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন তিনি আসন্ন সিটি কর্পোরেশনের মেয়র পথে প্রার্থী হওয়ার দাবিদার হতে পারেন। বিশেষ করে যখন আতিকুল ইসলাম মেয়র পদে সম্পূর্ণ ব্যর্থ হয়েছেন তখন আনিসুল হকের বিষয়টি আবার জনগনের সামনে এসে দাড়িয়েছে। জনগন মনে করছে, আনিসুল হকের মত কাউকে দায়িত্ব না দিলে ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের উন্নয়ন অগ্রযাত্রাগুলো থমকেই থাকবে। নতুন কোন দিক নির্দেশনা না থাকলে এভাবে আস্তে আস্তে ঢাকা উত্তর বসবাসের অযোগ্য হয়ে পড়বে।

অন্য প্রতিক্রিয়ায় বলা হচ্ছে, দ্বিতীয় মৃত্যুবার্ষিকীর এই আয়োজনে পত্র পত্রিকায় বিবৃতির মধ্য দিয়ে রুবানা হক হয়তো সকলকে আরেকবার আনিসুল হকের কথা স্বরণ করিয়ে দিতে চাইছেন , তার কোন নির্বাচনী আকাঙ্খা নেই।

কিন্তু রাজনীতিবিদরা মনে করছে, গতবারও রুবানা হক নির্বাচনের ব্যাপারে আগ্রহী ছিলেন, তবে শেষ পর্যন্ত তিনি নির্বাচনে দাঁড়াননি এবং আতিকুল ইসলামকে মনোনয়ন দেয়া হয়েছিল। গত ১ বছরের বেশি সময় ধরে আনিসুল হক যেভাবে ঢাকা সিটি করপোরেশন পরিচালনা করেছিলেন, তাতে আনিসুল হকের অনেক স্বপ্নই অপুর্ণ রয়ে গেছে বলে মনে করেন রুবানা এবং তাঁর পরিবার। সেই বাস্তবতায় রুবানা হক হয়তো সিটি করপোরেশনের মনোনয়ন চাইতে পারেন আওয়ামীলীগের কাছে। তবে শেষ পর্যন্ত তাকে মনোনয়ন দেয়া হবে কিনা সেটা দলের নীতিনির্ধারকদের সিদ্ধান্তের বিষয়।

সূত্র-বাংলাইনসাইডার

সর্বাধিক পঠিত