প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

বুয়েটের ৯ শিক্ষার্থী আজীবন, ১৭ জন বিভিন্ন মেয়াদে বহিষ্কার

আমাদের সময় : সাম্প্রতিককালে সোহরাওয়ার্দী হল ও আহসানউল্লাহ হলের র‌্যাগিংয়ের ঘটনায় ৯ শিক্ষার্থীকে আজীবন বহিষ্কার করেছে বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয় (বুয়েট)। এ ছাড়া বিভিন্ন মেয়াদে আরও ১৭ শিক্ষার্থীকে একাডেমিক কার্যক্রম ও আবাসিক হল থেকে বহিষ্কার করেছে প্রশাসন।

এ ছাড়া আরও ৪ শিক্ষার্থীকে ভবিষ্যতের জন্য সতর্কীকরণ বার্তা দিয়েছে বুয়েট কর্তৃপক্ষ। আজ বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় বুয়েটের উপাচার্য ভবনের সামনে ছাত্র কল্যাণ দপ্তরের পরিচালক অধ্যাপক মিজানুর রহমান সংবাদ সম্মেলন করে এই তথ্য জানান।

মিজানুর রহমান বলেন, বুয়েট বোর্ড অফ রেসিডেন্স অ্যান্ড ডিসিপ্লিন কমিটি সাম্প্রতিককালে সোহরাওয়ার্দী ও আহসানউল্লাহ হলের র‌্যাগিংয়ের ঘটনা তদন্ত করে এই সিদ্ধান্ত নিয়েছেন।

আজীবনের বহিষ্কৃত শিক্ষার্থীরা হলেন- মো. মোবাশ্বের হোসেন শান্ত, এ এস এম মাহাদী হাসান, আকিব হাসান রাকিব, সৌব্যসাচী দাস দিব্য, সৌমিত্র লাহিড়ী, প্লাবন চৌধুরী, নাহিদ আহমেদ, অর্ণব চৌধুরী ও মো. ফরহাদ হোসেন।

বিভিন্ন মেয়াদে বহিষ্কৃত ১৭জন হলেন- কাজী গোলাম কিবরিয়া রিফাত, মো. সাকিব হাসান, মো. সাজ্জাদুর রহমান, সাকিব শাহরিয়া, শেখ আসিফুর রহমান আকাশ, মো. রাইয়ান তাহসিন, মেহেদী হাসান, তৈয়ব হোসেন, এ এফ এম মাহফুজুল কবির, মো. বখতিয়ার মাহবুব মুরাদ, সৈয়দ শাহরিয়ার আলম প্রত্যয়, মো. তৌফিক হাসান, মো. কুতুবুজ্জামান কাজল, মোহাম্মদ তাহমিদুল ইসলাম, ফেরদৌস হাসান ফাহিম, মো. আল-আমিন ও তাহাজিবুল ইসলাম। এরা সবাই বুয়েটের সোহরাওয়ার্দী হলের শিক্ষার্থী।

ভবিষ্যতে র‌্যাগিংয়ে না জড়াতে বোর্ড অফ রেসিডেন্স অ্যান্ড ডিসিপ্লিন কমিটি আহসানউল্লাহ হলের ৪ জন শিক্ষার্থীকে সতর্ক করেছেন। তারা হলেন- মো. তাহসিন ফারহান ফাতিন, লোকমান হোসেন, শাফকাত বিন জাফর ও তানজিন রশিদ আবির।

আবরার হত্যার পর আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীদের মূলত তিনটি দাবি ছিল। তা হলো :

১. মামলার অভিযোগ পত্রের ভিত্তিতে অভিযুক্তদের স্থায়ী বহিষ্কার।

২. বুয়েটের আহসানউল্লাহ, তিতুমীর ও সোহরাওয়ার্দী হলে ঘটে যাওয়া নির্যাতনের বিষয়ে অভিযুক্তদের অপরাধ অনুযায়ী শাস্তি প্রদান।

৩. সাংগঠনিক ছাত্র রাজনীতি ও নির্যাতনের বিষয়ে শাস্তির আইন প্রণয়ন করা এবং তা বাস্তবায়ন করা।

তখন শিক্ষার্থীদের তিন নম্বর দাবির বিষয়ে অধ্যাপক মিজানুর রহমান বলেন, ‘আগামী সপ্তাহের মধ্যে তাদের তিন নম্বর দাবির বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে। একই সাথে শিক্ষার্থীদের নিয়মিত একাডেমিক কার্যক্রমে ফিরে যেতেও আহ্বান করেন তিনি।’

সর্বাধিক পঠিত