প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

আইন এবং আইনের কঠোর প্রয়োগই কানাডার মতো দেশের সড়ক পথকে নিরাপদ করে রেখেছে

 

সওগাত আলী সাগর : টরন্টোর রাস্তায় পুলিশের একটি গাড়ি দেখা গেলেই পুরো রাস্তার চালকরা অতিরিক্ত সতর্ক হয়ে পড়েন। কেউই চান না পুলিশ তাকে থামাক এবং টিকেট দিক। ট্রাফিক আইন লঙ্ঘন করলে পুলিশ রাস্তার পাশে থামিয়ে একটা টিকেট ধরিয়ে দিয়ে চলে যায়। বড় ধরনের অপরাধ না হলে এসব টিকেটে অর্থদ-ের পরিমাণটা যে খুব বেশি তা নয়। তবু গাড়িচালকরা পারতপক্ষে টিকেট পেতে চায় না। কেন চায় না? নির্ধারিত গতি সীমার বেশি গতিতে গাড়ি চালালে পুলিশ টিকেট দিতে পারে, গাড়ি চালাতে চালাতে সেলফোনে কথা বললে পুলিশ টিকেট দিতে পারে, অতিরিক্ত ধীরগতিতে গাড়ি চালালেও পুলিশ টিকেট দিতে পারে।

পুলিশ টিকেট দিয়ে চলে যাবে, গাড়িচালক চাইলে বিনা বাক্য ব্যয়ে টিকেটের অর্থ পরিশোধ করতে পারেন, না হলে আদালতে চ্যালেঞ্জ করতে পারেন। তবু সবাই টিকেটকে ভয় পায়। টিকেটের সঙ্গে সম্পর্ক হচ্ছে ইন্স্যুরেন্সের। রাস্তায় গাড়ি চালাতে হলে গাড়ির ইন্স্যুরেন্স থাকা বাধ্যতামূলক। ইন্স্যুরেন্স প্রিমিয়াম নির্ধারিত হয় গাড়িচালকের ড্রাইভিং রেকর্ডের উপর। একজন ড্রাইভারকে যদি পুলিশ টিকেট দেয় সেটি তার ড্রাইভিং হিস্ট্রিতে চলে যায়। টিকেটের রকমভেদে পরের বছরই তার ইন্স্যুরেন্স বেড়ে যায়। টিকেট যতো বাড়তে থাকে ইন্স্যুরেন্সও ততো বাড়তে থাকে। তিন বছরের মধ্যে তিনটার বা তার বেশি টিকেট হলে স্টান্ডার্ড ইন্স্যুরেন্স কোম্পানি তাকে ইন্স্যুরেন্স দেয় না। তখন তাকে অত্যন্ত উঁচু প্রিমিয়ামে হাই রিস্ক কোম্পানি থেকে ইন্স্যুরেন্স নিতে হয়। নিজের দোষে (অ্যাট ফল্ট) অ্যাক্সিডেন্ট হলেও ইন্স্যুরেন্সের প্রিমিয়ামে তার প্রভাব পড়ে। প্রতিটি মানুষই আসলে অর্থদ- দেয়াটাকে অপছন্দ করে। টিকেটের কারণে, অ্যাক্সিডেন্টের কারণে ইন্স্যুরেন্স প্রিমিয়াম বেড়ে যে অর্থদ- হয় সেটা কেউ দিতে চান না। দিতে চান না বলেই তারা গাড়ি চালনায় সতর্ক থাকেন। টরন্টোয়, কানাডায় ইন্স্যুরেন্সের ব্যাপারটা যদি না থাকতো, পুলিশের টিকেটের কারণে ইন্স্যুরেন্স প্রিমিয়াম বেড়ে যাওয়ার আশঙ্কা যদি না থাকতো, তাহলে কানাডার মতো দেশের রাস্তায়ও নিরাপদে চলা যেতো না। আইন এবং আইনের কঠোর প্রয়োগই এসব দেশের সড়ক পথকে নিরাপদ করে রেখেছে। ফেসবুক থেকে

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত