প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

শাহাদাতের ঘটনায় নাটের গুরু শহীদও পেতে যাচ্ছেন বড় শাস্তি

স্পোর্টস ডেস্ক : মাঠের মধ্যে সতীর্থকে শারীরিকভাবে লাঞ্চিতের অপরাধে পাঁচ বছরের জন্য নিষিদ্ধ হয়েছেন পেসার শাহাদাত হোসেন। সেই সাথে করা হয়েছে জরিমানাও। তবে জানা গেছে এই ঘটনার নাটের গুরু শাহাদাত নয়, আরেক পেসার মোহাম্মদ শহীদ। জাতীয় ক্রিকেট লিগে নিজের সতীর্থ আরাফাত জুনিয়রকে শারীরিকভাবে লাঞ্চিত করেন পেসার শাহাদাত। বিষয়টি ম্যাচ রেফারি বিসিবিকে অবহিত করলে তার বিরুদ্ধে বড় শাস্তির ব্যবস্থা নিয়েছে বিসিবি। গত রবিবার খুলনার শেখ আবু নাসের স্টেডিয়ামে ম্যাচ চলাকালীন বল উজ্জ্বল করে দিতে সতীর্থ আরাফাত জুনিয়রকে বলেন শাহাদাত। আরাফাত সেটি করতে না চাইলে সঙ্গে সঙ্গে তার দিকে তেড়ে আসেন এ পেসার। খবর : ক্রিকটাইম।

তবে এ ঘটনার পেছনের মূল হোতা জাতীয় দলের আরেক পেসার মোহাম্মদ শহীদ। ঘটনাটি ঘটেছিল তারই ওভারের সময়। দুই পেসারই খেলেছিলেন একই দলের হয়ে। শহীদের ওভারের সময় আরাফাত জুনিয়রকে বল শাইন করার জন্য বললে তিনি সেটি করতে অস্বীকার করেন। ম্যাচ রেফারির রিপোর্টে এই ঘটনার মূল হোতা শাহাদাতের নাম উল্লেখ থাকলেও, ছিল না শহীদের নাম।

শাহাদাতের আগে আরাফাতকে মাঠে ধাক্কা দেন শহীদ। তারপর শাহাদাত এসে শারীরিকভাবে লাঞ্চিত করেন।  ম্যাচ রেফারির রিপোর্টে শহীদের নাম এড়িয়ে গেলে শাস্তি মুখোমুখি হতে হয়নি এ পেসারকে। তবে শাহাদাতের পর বিষয়টি নজরে এসে মিনহাজুল আবেদিন নান্নুর।

আম্পায়ার্সের রিপোর্টে উঠে এসেছে মোহাম্মদ শহীদের নাম। এতে মিনহাজুল আবেদিন নান্নু ইঙ্গিত দিয়েছেন বড় শাস্তির মুখোমুখি হতে যাচ্ছেন পেসার শহীদও। তার বিষয়টি নিয়ে আলোচনায় বসবে বলে জানিয়েছেন মিনহাজুল আবেদিন।

এদিকে ম্যাচ রেফারির অভিযোগ অনুযায়ী আগামী পাঁচ বছরের জন্য নিষিদ্ধ করা হয়েছে শাহদাতকে। যার মধ্যে আগামী তিন বছর থাকতে পারবেন না বিসিবির কোন ক্রিকেট কর্মকান্ডে। তবে নিজের শাস্তির বিরুদ্ধে আপিল করতে পারবেন শাহাদাত।

শুধু শাহাদাতই নয় বিসিবির কাছে অভিযোগ এসেছিল শহীদের নামেও। নিজেদের পারিবারিক বিষয় নিয়ে বিসিবির কাছে দারস্থ হন শহীদের স্ত্রী।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত