প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

সতীর্থকে পিটানোর দায়ে পাঁচ বছরের জন্য নিষিদ্ধ শাহাদাত, জরিমানা তিন লাখ টাকা

শিউলী আক্তার : গত কয়েক বছর আগে গৃহকর্মীকে অমানসিকভাবে নির্যাতন করার দায়ে জেল খাটেন বাংলাদেশ জাতীয় দলের নিয়মিত ক্রিকেটার শাহাদাত হোসেন রাজিব। তারপর আর জাতীয় দলের ফেরা হয়নি তার। ঘরোয়া লিগেই ছিলেন নিয়মিত। কিন্তু চলমান জাতীয় ক্রিকেট লিগে (এনসিএল) সতীর্থকে পিটিয়ে আবারো সমালোচনায় এই টেস্ট ক্রিকেটার। এই ঘটনার জন্য পাঁচ বছরের নিষেধাজ্ঞা পেয়েছেন তিনি। সেই সঙ্গে গুণতে হবে তিন লাখ টাকা জরিমানা।

সাধারণত সতীর্থ ক্রিকেটারের গায়ে হাত তোলা যেকোনো ধরনের ক্রিকেটে চরম মাত্রার অপরাধ। বাংলাদেশের ক্রিকেটের আইন অনুযায়ী এটিকে ধরা হয় লেভেল-৪ মাত্রা অপরাধ। যার ন্যূনতম শাস্তি ১ থেকে ৫ বছরের নিষেধাজ্ঞা। ঠিক এমন শাস্তিই পেলেন শাহাদাত এনসিএল চলাকালে আরাফাত সানির (জুনিয়র) গায়ে হাত তোলার অপরাধে পাঁচ বছরের নিষেধাজ্ঞা পেয়েছেন তিনি।

আজ ওই ম্যাচের আম্পায়ার ও রেফারির রিপোর্ট নিয়ে আলোচনার পর বিসিবির টেকনিক্যাল কমিটির চেয়ারম্যান মিনহাজুল আবেদিন নান্নু জানান, ‘আমরা শাহাদাতকে ৫ বছরের জন্য নিষিদ্ধ করেছি। এর মধ্যে প্রথম তিন বছর সে বিসিবির অধীনে কোনরকম ক্রিকেটীয় কর্মকান্ডে অংশ নিতে পারবেনা। পরের দুই বছর সে কড়া নজরদারিতে থাকবে। তখন কোনরকম শৃঙ্খলা ভঙ্গ করলে পুরো ৫ বছর নিষেধাজ্ঞার কবলে পড়তে হবে।আর তিন লাখ টাকা জরিমানা। ও যদি আবেদন করতে চায় করবে ২৬ তারিখের মধ্যে করতে হবে। ২৭ তারিখ থেকে নিষেধাজ্ঞা বলবৎ হবে।’

উল্লেখ্য, আরাফাত সানিকে মারধরের ঘটনার সূত্রপাত বল ঘষা নিয়ে। গত রোববার ঢাকা বিভাগ ও খুলনা বিভাগের মধ্যকার ম্যাচে ঘটে এই ঘটনা। বোলারের হাতে বল দেয়ার আগে রাজিব সতীর্থ ক্রিকেটার আরাফাত সানিকে বলেন, ভালো মতো বলটা ঘষে দিতে যাতে ঔজ্জ্বল্য ঠিক থাকে।

কিন্তু আরাফাত সানি তা করতে অস্বীকৃতি জানালে কথাকাটির এক পর্যায়ে সানিকে চড় বসিয়ে দেন রাজিব। রাগ নিয়ন্ত্রণ করতে না পেরে লাথিও মারেন।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত