প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

চাটখীল উপজেলা চেয়ারম্যানের অ‌বৈধ সম্পদ অনুসন্ধানে দুদক

ইসমাঈল হুসাইন ইমু : অ্যাক্টিভ গ্রুপের চেয়ারম্যান ও নোয়াখালীর চাটখিল উপজেলা চেয়ারম্যান জাহাঙ্গীর কবীরের অবৈধ সম্পদ অনুসন্ধানের সিদ্ধান্ত নিয়েছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)।

দুদকে জমা হওয়া অভিযোগ অনুযায়ী চাটখিল উপাজেলা চেয়ারম্যান জাহাঙ্গীর কবীরের ঢাকা, চট্টগ্রাম, নারায়নগঞ্জ, গাজীপুর, সাতক্ষীরা ও নোয়াখালীর চাটখিলে চারটি ১০ তলা বাড়ি, চারটি প্লট ও ফ্ল্যাট, ২৮টি দোকান, তার ও স্ত্রীর নামে ৩টি বড় ফ্যাক্টরি ও বিভিন্ন জায়গা প্রায় ৮০০ একর সম্পত্তি রয়েছে। অথচ জাহাঙ্গীর একসময় জনৈক মন্ত্রীর কারখানায় সেলসম্যান হিসেবে কাজ করতেন। ওই মন্ত্রীর ফ্যাক্টরির টাকা আত্মসাৎ করে নিজেই শিল্পপতি বনে যান। ঢাকার মিরপুর ও পল্লবীতে নিজেই ফ্যাক্টরি করেন। চাটখিলের আওয়ামী লীগ এক নেতাকে ম্যানেজ করে আওয়ামী লীগে ভিড়েন। বিপুল অর্থ ব্যায়ে মনোনয়ন পান উপজেলা চেয়ারম্যান পদে। নিজস্ব লোক দিয়ে নানা ধরনের প্রকল্প নিয়ে কোটি কোটি টাকা লুটপাট করেন। স্থানীয় সরকার বিভাগের যেকোন কাজে তাকে ১০ শতাংশ হারে কমিশন দিতে হয়।

অভিযোগে আরও বলা হয়, মতে মিরপুরের সন্ত্রাসী সাহাদাত ও ক্যাসিনো খালিদ মাহমুদ ভূঁইয়ার সঙ্গে তার ঘনিষ্ঠতা রয়েছে। খালিদ তার মোটা অংকের অর্থ জাহাঙ্গীর কবিরের মাধ্যমে ব্যবসায় বিনিয়োগ করেছেন। অভিযোহেগ জাহাঙ্গীর ও তার স্ত্রীর নামে যেসব সম্পদ পাওয়া গেছে তার মধ্যে রয়েছে, মিরপুর ৭ নম্বর সেকসনের ৩ নম্বর সড়কের ৪ ও ৬ নং প্লটে দুটি বিলাস বহুল বাড়ি। মিরপুর সেকশন ৬ এর ৯ নম্বর ও ১৬ নম্বর সড়কে ২টি ১০ তলা বাড়িতে ফ্যাক্টরি। মিরপুরের পল্লবীর ৩১/৩২ নম্বরে বাড়ি, মিরপুর দিয়া বাড়ীতে বিপুল পরিমান জমি ও আমিবাজার সাভারে জায়গা। গাজীপুরে স্ত্রীর নামে ফাইজা বটম এন্ড ফ্যাক্টরি রয়েছে। যাতে তিনি ব্যায় করেছেন প্রায় ১১০০ কোটি টাকা। এছাড়াও বসুন্ধরা আবাসিক এলাকায় একটি প্লট, মিরপুর ইস্টার্ন হাউজিংয়ে প্লট, গুলশানে পুলিশ প্লাজায় দোকান ও গুলশান বিভিন্ন মার্কেটে স্ত্রীর নামে দোকান রয়েছে।

জাহাঙ্গীর কবিরের মানি লন্ডারিংয়ের অভিযোগও রয়েছে দুদকের কাছে। তার সৌদি প্রবাসী মামা শ্বশুর নূর মোহাম্মদদের মাধ্যমে সৌদি আরবে হোটেল ব্যবসায় শত কোটি টাকা বিনিয়োগ করেছেন। এছাড়া ছেলে মেয়েদের কানাডা এবং আমেরিকা পাঠিয়ে তাদের মধ্যমে মোটা অর্থ পাচারের অভিযোগ আনা হয়।
এবিষয়ে জানতে চাইলে জাহাঙ্গীর কবির বলেন, ‘দুদক অনুসন্ধান করছে করুক। জবাব দুদকে দিব। এর বেশি কিছু বলবো না।’

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত