প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

স্বেচ্ছাসেবক লীগের সম্মেলন শনিবার, ছাত্রলীগের সাবেক নেতাদের সমন্বয়ে নতুন নেতৃত্ব

সমীরণ রায়: দীর্ঘ ৭ বছর পর স্বেচ্ছাসেবক লীগের ত্রিবার্ষিক সম্মেলন হচ্ছে আজ ১৬ নভেম্বর।ঐতিহাসিক সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে সকাল ১১টায় এ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হবে। এতে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সভাপতিত্ব করবেন সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটির আহ্বায়ক নির্মল রঞ্জন গুহ। ইতোমধ্যে নৌকা আকৃতির মঞ্চ তৈরির কাজ প্রায় শেষ। যেসব কাজ বাকি রয়েছে, তা যথা সময়ের মধ্যেই শেষ হবে।

বৃহস্পতিবার সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের সম্মেলনের স্থান পরিদর্শন শেষে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেন, স্বেচ্ছাসেবক লীগের নতুন নেতৃত্ব আসবে ছাত্রলীগের সাবেক নেতাদের মধ্য থেকে। যাদের ক্লিন ইমেজ আছে, সৎ, কর্মঠ ও ত্যাগি তাদেরকেই আনা হবে। এবার সেচ্ছাসেবক লীগ, যুবলীগ, মহানগর উত্তর-দক্ষিণ আওয়ামী লীগের সন্মেলনের মঞ্চ হবে নৌকা আকৃতি এবং একই মঞ্চে হবে।

জানা গেছে, স্বেচ্ছাসেবক লীগের কমিটির মেয়াদ শেষ হওয়ায় সংগঠনের নেতৃত্বে কোনো পরিবর্তন হয়নি। ফলে নেতাদের মধ্যেও ছিলো হতাশা। স¤প্রতি সম্মেলনের তারিখ ঘোষণার পর থেকে ফের চাঙ্গা হয়ে উঠে সংগঠনটি। গত ১১ ও ১২ নভেম্বর ঢাকা মহানগর উত্তর-দক্ষিণের সম্মেলন শেষ হলেও কমিটি ঘোষণা হয়নি। এ কমিটি আজ ১৬ নভেম্বর স্বেচ্ছাসেবক লীগের কেন্দ্রীয় সম্মেলনের পর একই সঙ্গে নেতৃত্ব ঘোষণা করা হবে নগর উত্তর-দক্ষিণের।

সর্বশেষ ২০১২ সালে মোল্লা মো. আবু কাওছারকে সভাপতি এবং পঙ্কজ দেবনাথকে সাধারণ সম্পাদক করে স্বেচ্ছাসেবক লীগের কমিটি হয়। ১৯৯৭ সালের তৎকালীন সংসদ সদস্য মকবুল হোসেনকে আহ্বায়ক করে গঠিত স্বেচ্ছাসেবক লীগের দ্বিতীয় নেতৃত্ব ছিলেন আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিম, সাধারণ সম্পাদক হন পঙ্কজ দেবনাথ। সেবা, শান্তি আর প্রগতির স্লোগানে মূল দল আওয়ামী লীগকে রাজপথে শক্তি যোগায় সংগঠনটি।

সংগঠনটির শীর্ষ নেতারা বলছেন, একজন নেতার কৌশলগত সম্পৃক্ততায় স্বেচ্ছাসেবক লীগকে কাঠগড়ায় দাঁড় করানো ঠিক হবে না। আগামী দিনে নতুন নেতৃত্বের মধ্য দিয়ে সব জঞ্জাল কাটিয়ে ওঠবে। সংগঠনটির কর্মীদের প্রত্যাশা নবীন-প্রবীনের সমন্বয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নতুন নেতৃত্ব নির্বাচিত করবেন। প্রবীনদের অভিজ্ঞতা আর নবীনের উদ্দম দিয়েই একটি পরিচ্ছন্ন সংগঠন হবে।

এছাড়া ক্ষমতাসীন দলের এই সহযোগী সংগঠনের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক পদের জন্য যারা মাঠে নেমেছেন তাদের মধ্যে রয়েছেন- বর্তমান সিনিয়র সহ-সভাপতি মতিউর রহমান মতি, নির্মল রঞ্জন গুহ, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক গাজী মেজবাউল হোসেন সাচ্চু, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক সভাপতি শেখ সোহেল রানা টিপু। ঢাকা মহানগর উত্তরের কামিটিতে ইসহাক মিয়া, মনোয়ারুল ইসলাম বিপুল ও উত্তর স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুল ওয়াহিদ মিন্টু, আব্দুল আলীম বেপারী।

সূত্রে জানা গেছে, ঢাকা দক্ষিণ স্বেচ্ছাসেবক লীগের কমিটিতে যাদের স্থান হতে পরে তাদের মধ্যে রয়েছেন, দেবাশীষ বিশ্বাস, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি কামরুল হাসান রিপন, মহানগর দক্ষিণ স্বেচ্ছাসেবক লীগের যুগ্ম সম্পাদক আবুল কালাম আজাদ হাওলাদার, মহানগর দক্ষিণ স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মোস্তাফিজুর রহমান ইরানসহ ডজনখানেক নেতা।

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত