প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের সামনে গাছ সরাতে ৪ ঘণ্টা, সারাদেশে কী হয়?

আবুল বাশার নূরু: শনিবার সচিবালয়ে ঘূর্ণিঝড় ‘বুলবুল’ মোকাবিলায় আন্তঃমন্ত্রণালয়ে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা সমন্বয় কমিটির সভায় প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের সচিব সাজ্জাদুল হাসান এ কথা বলেন। দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী মো. এনামুর রহমানের সভাপতিত্বে সভায় দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়-সংক্রান্ত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি এ বি তাজুল ইসলাম, প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব নজিবুর রহমান, মন্ত্রিপরিষদ সচিব খন্দকার আনোয়ারুল ইসলামসহ সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ের সচিব ও বিভিন্ন দফতরের শীর্ষ কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

সাজ্জাদুল বলেন, আমি প্রাইম মিনিস্টার অফিসে আছি, কিছুদিন আগে একটা বড় ঝড় হলো, সেই ঝড়ে আমাদের প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের সামনে একটা গাছ পড়ে রইল। সেই গাছটা কাটার লোক নেই। গণপূর্তের লোক ডাকলাম, এই ডাকলাম, সেই ডাকলাম- চার ঘণ্টা লাগল ওই গাছটা সরাতে! এ সময় পাশ থেকে তথ্য সচিব মো. আব্দুল মালেক বলেন, ‘করাত নাই। সঙ্গে সঙ্গে সাজ্জাদুল হাসানও বলেন, ‘করাত নাই।’ এ সময় তিনি মূখ্য সচিব নজিবুর রহমানের দৃষ্টি আকর্ষণ করে বলেন, স্যার, খেয়াল আছে তো স্যার। হ্যাঁ সূচক মাথা নাড়েন মূখ্য সচিব।

সাজ্জাদুল হাসান বলেন, করাত পাওয়া গেল না। যেটা নাকি প্রাইম মিনিস্টারস অফিসের অবস্থা। তো সারাদেশে কী হয়! সবার ছুটি যতই বাতিল করা হলো, আমি অনুরোধ করব অন্যান্য মিনিস্ট্রির যে সচিব এবং তাদের প্রতিনিধিরা আসছেন তাদের একটা জিনিস বলে দেয়া, সবসময় যেন তারা টিম হিসেবে ডিসির অফিসেই সার্বক্ষণিক এ সময় থাকে। যাতে চট করে কো-অর্ডিনেট তারা করতে পারে।যার যার অফিসে না থেকে আর কি।

১০ নম্বর মহাবিপৎসংকেত হওয়ায় আইনশৃঙ্খলা রক্ষায় পার্শ্ববর্তী জেলা থেকে ওই জেলাগুলোতে আরও ফোর্স মোতায়েন করা দরকার বলে মনে করেন প্রধামন্ত্রীর কার্যালয়ের সচিব। ঘূর্ণিঝড় মোকাবিলায় প্রস্তুতি কার্যক্রমে স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের বেশি করে অন্তর্ভুক্ত করার অনুরোধ জানিয়ে তিনি আরও বলেন, তারা তো সাধারণ মানুষের পালসটা বোঝে, তারা বললে মানুষ (আশ্রয় কেন্দ্রে) যাবে। অফিসার গিয়ে বললে যাবে না।

ঝড় শুরু হলে মাঠপর্যায়ে কেউ মুভ করতে পারবে না জানিয়ে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের সচিব বলেন, এর আগেই মুভ করতে হবে। সেটা নিশ্চিত করতে হবে। একটা হচ্ছে লাইন মিনিস্ট্রির কাজ, রেগুলেটিং কাজ, প্রচার-প্রচারণা সব ঠিক আছে। যারা ফিল্ডে কাজ করবে তাদের কাজটি বেশি দরকার। কতক্ষণ পর দেখবেন সবার মোবাইল বন্ধ হয়ে গেছে, চার্জ দিতে পারছে না। কার সঙ্গে কী যোগাযোগ করবে।

সর্বাধিক পঠিত