প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

ভারতের চন্দ্রাভিযান ব্যর্থ করে দিয়েছিল উত্তর কোরিয়ার হ্যাকার গ্রুপ, প্রতিবেদন

সাইফুর রহমান : ভারতের মহাকাশযান চন্দ্রযান-২ চন্দ্রপৃষ্ঠে অবতরণের ঠিক আগ মুহুর্তে দেশটির মহাকাশ গবেষণা সংস্থার উপর উত্তর কোরিয়ার হ্যাকাররা আক্রমণ করেছিল বলে মনে করা হচ্ছে।কর্মীরা সম্ভবত উত্তর কোরিয়ার স্প্যামারদের কাছ থেকে আসা ফিশিং ইমেইল খুলে তাদের সিস্টেমে ম্যালওয়্যার ইনস্টল করে ফেলেছিলেন। তবে কর্মকর্তারা বরাবরই সাইবার হামলার কথা অস্বীকার করেছেন। সাইবার বিশেষজ্ঞরা বলছেন, এসময় যে ৫টি সরকারি সংস্থা আক্রান্ত হয়েছিল, তার একটি হলো ভারতের স্পেস রিসার্চ অর্গানাইজেশন (ইসরো)। এনডিটিভি, ডেইলি মেইল, ফিনান্সিয়াল টাইমস

চাঁদে অবতরণ করার আগে ভারতীয় বিজ্ঞানীরা মহাকাশযানটির সঙ্গে যোগাযোগ হারিয়ে ফেলে। এসময় ভারতের বৃহত্তম পরমাণু বিদ্যুৎ কেন্দ্রেও হামলা হয় বলে ধারণা করা হচ্ছে। ইসরোকে সেপ্টেম্বরে চন্দ্রযান-২ মিশন চলাকালীন সাইবার হামলার ব্যাপারে হুঁশিয়ার করে দেয়া হয়েছিল। মহাকাশ সংস্থাটি জোর দিয়ে বলেছে, হ্যাকিং চেষ্টার ফলে তাদের সিস্টেমে কোনো ক্ষতি করা সম্ভব হয়নি। তবে তারা উত্তর কোরিয়ার স্প্যামারদের সম্ভাব্য হুমকির বিষয়টি খতিয়ে দেখবে বলে জানিয়েছে।

বিশেষজ্ঞরা মনে করেন, ডিট্র্যাক ব্যবহার করে হামলাটি হয়। গ্রুপ ল্যাজারাস সাধারণত এধরনের ম্যালওয়্যার ব্যবহার করে। আর মার্কিন কর্তৃপক্ষ মনে করে, ল্যাজারাস গ্রুপটি নিয়ন্ত্রণ করে উত্তর কোরিয়া সরকার। চলতি বছরের শুরুর দিকে মার্কিন সরকারের অবরোধের মুখে পড়ে গ্রুপটি। তাদের বিরুদ্ধে সামরিক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলোকে টার্গেট করার অভিযোগও আনা হয়েছে।

গত সপ্তাহে ভারতের জ্বালানি কর্মকর্তারা কুন্দনকুলাম পরমাণু বিদ্যুৎকেন্দ্রে সাইবার হামলার সত্যতা স্বীকার করেন। এর আগে তারা এই ব্যাপারটি অস্বীকার করেছিলেন। পরমাণু কর্মকর্তারা জানান, প্রকল্পের কন্ট্রোল সিস্টেমে আঘাত হানতে না পারলেও প্রশাসিক কম্পিউটারে আঘাত হানে ম্যালওয়্যার। প্রশাসনিক কার্যক্রম পরিচালনাকারী নেটওয়ার্কের সঙ্গে যুক্ত একজন কর্মকর্তার আক্রান্ত কম্পিউটার পরীক্ষা করে বিষয়টি জানা গেছে বলে প্রতিবেদনে জানানো হয়েছে।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত