প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

দুবলার চরে প্রথম আঘাত ‘বুলবুলের’: উপকূলীয় অঞ্চলেগুলোতে সেনা মোতায়েন(লাইভ)

সুন্দরবন প্রতিনিধি : সুন্দরবনের বাংলাদেশ অংশে আঘাত হেনেছে ঘূর্ণিঝড় বুলবুল। শনিবার সন্ধ্যা ৭টার দিকে ঘূর্ণিঝড় বুলবুলের অগ্রবর্তী অংশ সুন্দরবনের সাতক্ষীরা, খুলনা ও বাগেরহাট অংশে আঘাত হানতে শুরু করেছে। এখন ঘূর্ণিঝড় বুলবুলের অগ্রবর্তী অংশ সুন্দরবনের বঙ্গবন্ধু আইল্যান্ড, হিরণ পয়েন্ট, দুবলারচর, মেহের আলীর চর, অফিসকিল্লা, মাঝেরচর, আলোরকোল, মরণেরচরে আছড়ে পড়েছে। ১২০ কিলোমিটার বেগে ঝড়ো হাওয়া বইছে। করা হয়েছে।

এদিকে দক্ষিণ কলকাতার বালিগঞ্জে গাছ উপড়ে পড়ে এক ব্যক্তির মৃত্যু হয়েছে বলে জানা গেছে। নিহত ব্যক্তির নাম সোহেল শেখ (২৫)। জানা গেছে, বালিগঞ্জের একটি ক্লাবে রান্নার কাজ করতেন বিহারের বাসিন্দা সোহেল। ট্যাংরার বাসা থেকে কাজে যোগ দেওয়ার জন্য দুপুরে ওই ক্লাবে যাচ্ছিলেন। ক্লাবে প্রবেশের মুখেই বিপত্তি ঘটে। একটি গাছ ভেঙে পড়ে তার মাথায়। ঘটনাস্থলেই মৃত্যু হয় তার।

ঘূর্ণিঝড় ‘বুলবুল’ মোকাবেলায় সরকারের সবধরনের প্রস্তুতি রয়েছে বলে জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সেই সঙ্গে এই প্রাকৃতিক দুর্যোগে যাতে মানুষের জানমালের বেশি ক্ষয়ক্ষতি না হয় সেজন্য দেশবাসীর কাছে দোয়া চেয়েছেন তিনি।

দুবলা ফিশারমেন গ্রুপের হিসাব রক্ষক ফরিদ আহমেদ জানান, ২০০৭ সালের ১৫ নভেম্বর দুপুরে সিডর এভাবেই প্রথমে আঘাত হেনেছিলো। প্রায় ২০০ কিলোমিটার গতিবেগে জলোচ্ছাস দুবলার চরের জেলে পল্লী গুলো তছনছ করে দেয়। সিডরের মতই বুলবুলের গতি প্রকৃতি লক্ষ্য করা যাচ্ছে।

দুবলা ফিশারমেন গ্রুপের চেয়ারম্যান কামাল উদ্দিন আহমেদ আলোরকোল থেকে মোবাইল ফোনে জানান, আজ ভোর থেকে অফিসকিল্লা, মাঝেরচর, আলোরকোল, মরণেরচর প্রভৃতি এলাকার অস্থায়ী জেলে ঘরে অবস্থানরত জেলেদের নিরাপদে সরিয়ে নেয়া হয়েছে। এ কাজে র‌্যাব, কোস্টগার্ড, বনবিভাগ ও সিপিপির স্বেচ্ছাসেবকরা এবং জেলেদের তরুণ সদস্যরা কাজ করে যাচ্ছেন। এ এলাকার পাঁচটি সাইক্লোন শেল্টার এবং শত শত ট্রলার ও জেলে নৌকায় ছয় হাজারেরও বেশি মানুষকে আশ্রয় দেয়া হয়েছে। আলোরকোল, মেহেরআলীর খাল, ভেদাখালীর খাল ইত্যাদি খালে এ জেলেরা আশ্রয় নিয়েছে। জেলে পল্লীগুলোর বাসিন্দাদের অনেকটা জোর করে নিরাপদে পাঠিয়ে দেয়া হয়েছে। সঙ্গে দেয়া হয়েছে শুকনা খাবার, চাল ভাজা, চিড়া ও খাবার পানি।

ঘূর্ণিঝড় প্রস্তুতি কর্মসূচির (সিপিপি) দুবলার চর ভিএইচএফ স্টেশনের অপারেটর মো. কাশেম জানান, তাদের স্বেচ্ছাসেবকরা জেলেদের সাইক্লোন শেল্টারে আনতে কাজ করে যাচ্ছেন। দুবলার চর এলাকার আলোরকোল, মেহেরআলীর চর, মাঝেরকেল্লা, অফিসকিল্লা ও শেলারচরে যে পাঁচটি সাইক্লোন শেল্টার রয়েছে তা ২২ বছর আগে নির্মিত হওয়ায় অনেকটা জরাজীর্ণ। সিডরের আঘাতে অনেকটা ব্যবহার অনুপযোগী। তারপরও ঝুঁকির মধ্যে পাঁচ সহস্রাধিক জেলেদের গতকাল দুপুরের মধ্যে সাইক্লোন শেল্টারে সরিয়ে নেয়া হয়েছে। সম্পাদনা : খালিদ আহমেদ

সর্বাধিক পঠিত