প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

দিনাজপুরে ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে ভুক্তভোগীদের প্রতিরোধ

মো. রজব আলী, দিনাজপুর : ইটভাটা মালিকদের হাই কোর্টের ভূয়া রিট আদেশ সরবরাহ করার অভিযোগে, ফুলবাড়ীতে ইসলাম ব্রীক্স ও ইসলাম পেট্রোল পাম্পে প্রতিরোধ করে, দুটি ব্যবস্থা প্রতিষ্ঠান বন্ধ করে দিয়েছে ভুক্তভোগী ইটভাটার মালিকেরা।

শুক্রবার বিকেলে দিনাজপুরের ফুলবাড়ী উপজেলা উত্তর লক্ষ্মীপুর বাজারে ইসলাম পেট্রোল পাম্প ও জয়নগর মোড়ে ইসলাম ব্রীক্স ইটভাটায় এই প্রতিরোধ তৈরি করে।

এসময় ইটভাটায় কর্মরত শ্রমিকদের কাজ বন্ধ করে দিয়েছে প্রতিরোধকারীরা, তারা বলেন ইসলাম ব্রীক্স ইটভাটার মালিক ও ইসলাম পেট্রোল পাম্পের মালিক তোজাম্মেল হক বকুল, যতক্ষণ পর্যন্ত তার দেয়া হাইকোর্টের ভূয়া রিট আদেশের প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিবে না, ততদিন পর্যন্ত তার এই ব্যবস্থা প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকবে বলে জানায়।

এদিকে ইসলাম পেট্রোল পাম্প বন্ধ করতে গিয়ে, ওই পেট্রোল পাম্প থেকে প্রায় ৭০ হাজার টাকার মটর সাইকেলে জ্বালানি তেল নেয়ার অভিযোগ তুলেছেন পেট্রোল পাম্পের কর্মরত কর্মকর্তা-কর্মচারীরা।

উল্লেখ্য হাই কোর্টের ভূয়া রিট আদেশ তৈরি করে ইটভাটা পরিচালনার দায়ে চলতি সনের জুলাই মাসে দিনাজপুর জেলার ২৯জন, রংপুর জেলার বদরগঞ্জ উপজেলার ১জন ও ও নিলফামারী জেলার সৈয়দপুর উপজেলার ১জনসহ মোট ৩১জন ইটভাটার মালিকের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের হয়।

এই মামলায় এই ৩১জন ইটভাটা মালিক দীর্ঘসময় কারাবাস করে বর্তমানে জামিনে মুক্ত রয়েছে এবং মামলাটি বিচারাধীন রয়েছে।

ফুলবাড়ী রহমান ব্রীক্সের মালিক ও ফুলবাড়ী উপজেলা চেয়ারম্যান আতাউর রহমান মিলটন বলেন, দিনাজপুর ইট প্রস্তুত কারক সমিতির দায়িত্বে থাকা ইসলাম ব্রীক্স ও ইসলাম পেট্রোল পাম্পের মালিক বকুল তাদের নিকট থেকে হাইকোটে রিট দাখিলের কথা বলে বিপুল পরিমাণ টাকা নিয়ে, তাদেরকে একটি ভূয়া রিট আদেশ এনে দিয়েছে।

যার ফলে তাদের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে, এতে করে তারা সামাজিক মর্যাদা ও ব্যবসায়ীভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন।

একই কথা বলেন দিনাজপুর জেলা বিএনপির আহবায়ক সাবেক সংসদ সদস্য এজেডএম রেজওয়ানুল হকসহ অনান্য ইটভাটার মালিকেরা।
এই বিষয়ে কথা বলার জন্য চেষ্টা করেও ইসলাম ইট ভাটার মালিক বকুলকে পাওয়া যায়নি, তবে ইসলাম পেট্রোল পাম্পে দায়িত্বে থাকা, স্থানীয় যুবক মতিয়ার রহমান বলেন, ইট ভাটার মালিকদের বিরুদ্ধে মামলা হওয়ার পর ইসলাম পেট্রোল পাম্পটি মালিক বকুল তার নিকট পেট্রোল পাম্পটি ভাড়া দিয়েছে, সে ভাড়ায় এই পাম্পটি পরিচালনা করছেন।

মতিয়ার রহমান বলেন ভাটা মালিকদের সাথে আসা ৭০জন যুবক তাদের মটর সাইকেলে প্রায় ৭০ হাজার টাকার পেট্রোল ও অকটেন তৈল নিয়েছে, কিন্তু তাকে কোন টাকা দেয়নি, এটি তার নিজের ক্ষতি হয়েছে।

তবে এই বিষয়ে জানতে চাইলে ইটভাটার মালিকরা বলেন, তেল নেয়ার ঘটনাটি তাদের জানা নেই। সম্পাদনা: জেরিন মাশফিক

সর্বাধিক পঠিত