প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

নওয়াজকে হাসপাতাল থেকে লাহোরে নিজ বাড়িতে স্থানান্তর, মুক্তি পেলেন কন্যা মরিয়ম

শাহনাজ বেগম : পাকিস্তানের অসুস্থ’ সাবেক প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরীফকে সার্ভিস হাসপাতালে চিকিৎসার পর বুধবার লাহোরে উমরা রাইন্দকে তার নিজের বাড়িতে নেয়া হয়েছে। আল-আজিজিয়া কয়লা দূর্নীতি মামলায় বিচারাধীন ৬৯ বছর বয়সী নওয়াজকে কারাগার থেকে ৮ সপ্তাহের জন্য জামিনে মুক্তি পেয়েছিলেন। নওয়াজের পিএমএল-এন নেতা ও নওয়াজ কন্যা মারিয়মকেও বুধবার মুক্তি দিয়েছে। চৌধুরি সুগার মিলস মামলায় তার জামিন মঞ্জুর করে লাহোর হাইকোর্ট। লাখপাত কারাগার থেকে অসুস্থ’ মরিয়মও সার্ভিস হাসপাতালে ভর্তি ছিলেন। ডন, দ্য টাইমস অব ইন্ডিয়া

মরিয়মকে সোমবার তার জামিন মঞ্জুর করে লাহোর হাইকোর্ট স্পষ্ট জানিয়ে দিয়েছে যে এই মামলাটি তার যোগ্যতার ভিত্তিতে সিদ্ধান্ত নিয়েছে। তার আইনজীবিরা লাহোর হাইকোর্টের প্রয়োজনীয় চাহিদার সব কিছু পুরণ করেছে। রাষ্ট্রপক্ষের চাহিদা অনুযায়ী দেশ থেকে অন্য কোন দেশে চলে যেতে না পারে সেজন্য তার পাসপোর্ট জমা চেয়েছিলো। চিকিৎসা জন্য গত সপ্তাহে নওয়াজ শরিফকে আট সপ্তাহের জামিন মঞ্জুর করে ইসলামাবাদ হাইকোর্ট। তিনি সাত বছরের কারাদন্ডে আছেন। তবে নওয়াজ শরীফের তিনবার চিকিৎসা করা মেডিক্যাল বোর্ড তাকে চিকিৎসারজন্য বিদেশে নিয়ে যাওয়ার পরমার্শ দিয়েছে।

মরিয়মের জামিনের কয়েকদিন আগে ৮ সপ্তাহের জন্য তার বাবা এবং পাকিস্তানের সাবেক প্রধানমন্ত্রীকে জামিন দেয় ইসলামাবাদ কোর্ট। এতে দেখা যায় ন্যায়বিচারের মানদন্ড পর্যন্ত শরীফ পরিবারের পক্ষে ঝুঁকছে। শরীফ পরিবারের পক্ষ থেকে অসুস্থ নওয়জিকে হাসপাতালে ভর্তির পর মরিয়মকে বাবার পাশে থাকার দরকার বলে আবেদন করেছিলেন। মানবিক কারণে মরিয়ম নওয়াজের জামিনে মুক্তি পাওয়ার ওই আবেদনটি অনেকেই দেখেছেন। একইভাবে স্বাস্থ্যগত কারণে নওয়াজ শরীফকে আটকের আট মাসের স্থগিতাদেশ দেয়া হয়েছিলো। জাতীয় জবাবদিহি ব্যুরো (এনএবি) প্রসিকিউটর পিএমএল-এন নেতা মরিয়মের আবেদনের বিরোধিতা করেছিলেন। বাবা নওয়াজ শরীফকে গুরুতর অসুস্থ অবস্থায় হাসপাতালে ভর্তি করার পর ওই আবেদন করা হয়েছিলো। সম্পাদনা : রাশিদুল

সর্বাধিক পঠিত