প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

পাকিস্তান অধিকৃত কাশ্মীরের দুটি জেলা যুক্ত করে ভারতের নতুন মানচিত্র, তীব্র প্রতিক্রিয়া পাকিস্তানের

হাসনাত কুশল : চলতি বছর ৫ আগস্ট দেশটির সংবিধান থেকে জম্মু-কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা ৩৭০ ধারা বিলোপ করা হয়।এরপর সাংবাধিনকভাবে জম্মু-কাশ্মীরকে বৃহস্পতিবার দ্বিখণ্ডিত করা হয়। যার ফলে এ নতুন মানচিত্র প্রকাশ করে সার্ভে জেনারেল অব ইন্ডিয়া। এর মধ্যে পাকিস্তান অধিকৃত আজাদ কাশ্মীরের দুটি জেলা মুজাফফরাবাদ ও মিরপুরসহ মোট ২২ টি জেলা অন্তর্ভূক্ত করা হয়েছে। এনডিটিভি, ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস, দ্য হিন্দু, ডন, টাইমস অব ইন্ডিয়া

এ অনুযায়ী দেশটিতে একটি প্রদেশের সংখ্যা কমে দাঁড়িয়েছে ২৮ টি এবং দুটি কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৯।পাকিস্তানি দৈনিক ডন জানায়, পাকিস্তানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এক বিবৃতিতে এই নতুন মানচিত্র প্রত্যাখান করেছে। শনিবার ভারতের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এ ‘উদ্দেশ্যপ্রণোদিত মানচিত্র প্রকাশকে’ ভুল সিদ্ধান্ত বলে অভিহিত করে পাকিস্তান। এ মানচিত্র জাতিসংঘের মধ্যস্থতায় করা সিমলা চুক্তির সুস্পষ্ট লঙ্ঘন বলে মন্তব্য করেছে দেশটি।

পাকিস্তান ছাড়াও ভারতের এই সিদ্ধান্তে উদ্বেগ প্রকাশ করেছে জাতিসংঘ, চীন ও তুরস্ক।সম্প্রতি জার্মান চ্যান্সেলর অ্যানগেলা মর্কেল ভারত সফরে এসে বলেন ভারত নিয়ন্ত্রিত কাশ্মীরের বর্তমান পরিস্থিতিকে কোনওভাবেই টেকসই বলার সুযোগ নেই। তিনি বর্তমান অবস্থা পরিবর্তনের বিষয়ে তাগিদ দেন।

১৯৭২ সালে ভারতের প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধী পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী জুলফিকার আলি ভুট্টোর মধ্যে স্বাক্ষরিত হয় সিমলা চুক্তি।এই চুক্তিতে আরও একটি পক্ষ ছিলো জাতিসংঘ।এই চুক্তি অনুযায়ী কাশ্মীরের স্ট্যাটাস কো বা স্থিতাবস্তার পরিবর্তনের সুযোগ ছিলো না। জাতিসংঘের মধ্যস্থতায় তখন কাশ্মীরের মানচিত্র ও নিয়ন্ত্রণরেখা মেনে নিয়েছিলো দুই দেশই। এতোবছর পর এসে ভারতই প্রথম এই চুক্তির বাইরে গিয়ে মানচিত্র তৈরী করলো।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত