প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

‘উনি নিজের পেনিসটা বার করে…’! তরুণী নাট্যকর্মীর #মি টু বাণ-বিদ্ধ আর এক নামজাদা…

রাশিদ রিয়াজ : তবে শর্মিষ্ঠা চক্রবর্তী নির্দিষ্টভাবে কারও নাম উল্লেখ করেননি। কিন্তু তাঁর লেখার বিবরণ পড়ে অনেকেই নিশানা করেছেন ‘সুখচর পঞ্চম’ নাট্যদলের কর্ণধার মলয় মিত্রকে। বিপুলভাবে শেয়ার হওয়া সেই ফেসবুকের অভিযোগে ইতিমধ্যেই তোলপাড় পড়েছে পশ্চিমবাংলার নাট্যজগতে। ওয়ার্কশপের নাম করে বাড়িতে ডেকে অভিযোগকারিনীকে রীতিমতো ধর্ষণের চেষ্টা করেছেন মলয়, অভিযোগ এমনই। ফের কালো দাগ পড়ল বাংলা থিয়েটার জগতে। দিনকয়েক আগে নাট্যকার সুদীপ্ত চট্টোপাধ্যায়ের বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগ আনেন ‘হেরিটেজ অ্যাকাডেমি’র এক ছাত্রী। যার জেরে গ্রেফতার হতে হয় সুদীপ্তকে। এবার সেই ঘটনার রেশ মিটতে না মিটতেই সামনে এল আরও এক ন্যক্কারজনক ঘটনা। এই সময়

এবারের নিশানায় সোদপুরের এক নাট্যদলের কর্তা। ফেসবুকে শর্মিষ্ঠা চক্রবর্তী নামে এক নাট্যকর্মী যে অভিযোগ তুলেছেন, তাতে থিয়েটার জগতের অন্ধকার দিক ফের একবার সামনে এল বলেই মনে করছেন বাংলার শিল্পীমহলের সকলেই।

তবে শর্মিষ্ঠা চক্রবর্তী নির্দিষ্টভাবে কারও নাম উল্লেখ করেননি। কিন্তু তাঁর লেখার বিবরণ পড়ে অনেকেই নিশানা করেছেন ‘সুখচর পঞ্চম’ নাট্যদলের কর্ণধার মলয় মিত্রকে। বিপুলভাবে শেয়ার হওয়া সেই ফেসবুকের অভিযোগে ইতিমধ্যেই তোলপাড় পড়েছে নাট্যজগতে। ওয়ার্কশপের নাম করে বাড়িতে ডেকে অভিযোগকারিনীকে রীতিমতো ধর্ষণের চেষ্টা করেছেন মলয়, অভিযোগ এমনই।

যিনি এই অভিযোগ করেছেন, সেই শর্মিষ্ঠা চক্রবর্তীর বিবরণ অনুযায়ী, ঘটনাটি প্রায় ৮ বছর আগে। সামাজিক দৃষ্টিভঙ্গি, সাহস আর নিজের সম্মানের কথা ভেবে এতদিন তিনি মুখ খুলতে পারেননি বলে লিখেছেন। অবশেষে বাংলার নাট্যজগতের এই কালো দিক নিয়ে অভিযোগ উঠতে শুরু করলে প্রিয় কিছু মানুষের সাহায্যে সাহস জুগিয়ে তিনি লিখেছেন সেই কঠিন বাস্তব।

নিজের বাড়িতে ডেকে ওয়ার্কশপের নামে ওই নাট্যকার একজন উঠতি নাট্যকর্মীর সঙ্গে শারীরিকভাবে যে আক্রমণ করেছেন, তা পড়ে স্তব্ধ হয়ে গিয়েছেন অনেকেই। বহু মানুষ ইতিমধ্যেই ধর্ষণের অভিযোগ দায়ের করার কথা বলেছেন। যদিও এখনও পর্যন্ত মলয় মিত্রর তরফে কোনও প্রতিক্রিয়া পাওয়া যায়নি।

সুদীপ্ত চট্টোপাধ্যায়ের ক্ষেত্রে যেমন অভিযোগকারিণীর পর আরও অনেকেই তাঁর বিরুদ্ধে মুখ খুলেছিলেন, মলয় মিত্রর ক্ষেত্রেও ঠিক সেরকমই আরও অভিযোগ উঠে আসছে। নাট্যজগতের প্রভাবশালীদের সঙ্গে ওঠাবসা করার সুযোগকে মলয় এভাবে দুষ্কর্মের জন্যে কাজে লাগিয়েছেন বলে অভিযোগ করেছেন অনেকে।

সুদীপ্তর ক্ষেত্রে অভিযোগকারিণী জানিয়েছিলেন ‘ডায়াফ্রাম ব্রিদিং অ্যান্ড সাইকো-ফিজিক্যাল অ্যাক্টিং’ শেখানোর নাম করে সুদীপ্ত তাঁর বাড়িতে তাঁকে যৌন হেনস্থা করেছেন। সেই সময় বাড়িতে তিনি একাই ছিলেন। ফেসবুক পোস্টে অভিযোগকারিণী বিস্তৃতভাবে জানিয়েছেন সেই হেনস্থার বৃত্তান্ত। এবং এই পরিপ্রেক্ষিতে তিনি যে গত ১৪ অক্টোবর তাঁর শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে অফিসিয়াল অভিযোগ করেছেন সেই তথ্যও তিনি জানিয়েছেন। তাঁর মতে সুদীপ্ত চট্টোপাধ্যায় একজন ‘সিরিয়াল সেক্সুয়াল মলেস্টার’। এবং তিনি জানাচ্ছেন তাঁর মতো আরও অনেক মেয়েই সুদীপ্ত চট্টোপাধ্যায়ের যৌন হেনস্থার শিকার।

মলয়ের ক্ষেত্রেও তাই। বাইরে থেকে ‘বডিগার্ড’ দিয়ে দরজা বন্ধ রেখে অভিযোগকারিনী শর্মিষ্ঠাকে শারীরিকভাবে হেনস্থা করেছেন বলে অভিযোগ উঠেছে। এখনও পর্যন্ত কোনও মামলা অবশ্য দায়ের হয়নি বলেই খবর পাওয়া গিয়েছে। তবে সুখচর পঞ্চম নাট্যদলের পক্ষ থেকে ফেসবুকে একটি পোস্ট করে বিষয়টি একপ্রকার অস্বীকার করা হয়েছে।

সর্বাধিক পঠিত