প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

সিবিআই জরিপ (কনফেডারেশন অব ব্রিটিশ ইন্ড্রাস্ট্রিজ)
ব্রেক্সিটের প্রভাবে ধারণার চাইতেও বড় দূরাবস্থা দেখা যাবে ব্রিটিশ অর্থনীতিতে

নূর মাজিদ : বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠানের দেউলিয়াত্ব, মুনাফা কমে আসার প্রেক্ষিতে সতর্কতা জারির মতো সাম্প্রতিক ঘটনাপ্রবাহ ব্রিটিশ অর্থনীতির ভবিষ্যতের আকাশকে ঢেকে ফেলেছে কালো মেঘের আড়ালে। গত এক বছর ধরেই এসব ঘটনাক্রমের ধারাবাহিকতায় ব্যতিক্রম হয়নি, বরং তীব্রতা আরো বেড়েছে। অথচ মাত্র এক সপ্তাহ পড়েই ৩১শে অক্টোবর ইউরোপিয় ইউনিয়ন থেকে বিচ্ছেদ তারিখ যুক্তরাজ্যের। এই অবস্থায় দেশটির শিল্প ও ব্যবসায়িক তদ্বির জোট কনফেডারেশন অব ব্রিটিশ ইন্ড্রাস্ট্রিজ ব্রেক্সিটের দশদিন পূর্বে এক জরিপের ফল প্রকাশ করেছে। সেখানে অশিকাংশ উদ্যোক্তাই আশংকা করেছেন, পূর্বের ধারণা ও বিভিন্ন তথ্য-উপাত্তের চাইতেও বেহাল দশায় পড়তে চলেছে দেশটির সামষ্টিক অর্থনীতি। খবর : দ্য গার্ডিয়ান

কোন চুক্তিছাড়া শুল্কমুক্ত ইউরোপিয় জোট ত্যাগের সম্ভাবনাকে মাথায় রেখেই দেশটির অধিকাংশ কারখানা মালিকেরা আগামী বছর আরো কম বিনিয়োগ করবেন, এটাই জরিপের সার বক্তব্য। উৎপাদন কাজের আধুনিকায়ন এবং সক্ষমতা বাড়ানোর লক্ষ্যে যন্ত্রপাতিও কম কিনবেন শিল্প কর্ণধারেরা। কমবে দেশটির সবচেয়ে সম্ভাবনাময় তথ্যপ্রযুক্তি খাতের পণ্য বিক্রিও। ২০০৮ সালের বিশ্বমন্দার পর দেশটিতে এতো কমহারে বিনিয়োগ কমে আসার শঙ্কা আর দেখা যায়নি। আরো উঠে এসেছে সেবাখাতের সমর্থিত তথ্য-উপাত্ত, আর্থিকখাতের ব্যবসায়ীদের সাক্ষাৎকার ইত্যাদি।
উদ্বেগ আরো বেড়ে চলার কারণ, ব্যবসা প্রতিষ্ঠানগুলোর চলমান দেউলিয়াত্বের প্রক্রিয়া। পূর্ববর্তী তিন মাসের প্রান্তিকে যা ২০১৩ সালের তুলনায় ৩৫ শতাংশ বাড়ে। হিসাবরক্ষণ সংস্থা কেপিএমজির সূত্রে জানানো হয়, সবচেয়ে বড় ভোগান্তিতে পড়েছে অবকাঠামো নির্মাণ শিল্প। দেউলিয়া হওয়া কোম্পানি তালিকায় খাতটি ইতিমধ্যেই ম্রিয়মাণ ব্রিটিশ খুচরা পণ্য বিক্রয়খাতকেও ছাড়িয়েছে।
সেবাখাতের অবস্থাও হতাশাজনক। পর্যটন ও পান্থশালা ব্যবসায়ী গ্রুপ হুইটব্রেড, নির্মাণ সামগ্রীর বৃহৎ সরবরাহকারক ট্রেভিস পারকিনস, কারডিলার পেন্ড্রাগন সকলেই বলছে, ব্রেক্সিট শঙ্কায় ভোক্তাব্যয় কমে আসার প্রেক্ষিতেই তাদের মুনাফায় তীব্র ভাটা পড়েছে। শিল্প ও নির্মাণখাতের এই ভাটার ফলে ব্রিটিশ অর্থনীতি সফলতার জন্যে আরো বেশি সেবাখাত নির্ভর হচ্ছে। গতবছর জুড়ে এইখাতের অবদানেই জিডিপি প্রবৃদ্ধি অব্যাহত ছিলো, তবে খুবই সীমিত আকারে।

সিবিআইয়ের চ্যান্সেলর জন ম্যাক ডোনেল গার্ডিয়ানকে বলেন, আমাদের জরিপে উঠে আসা সাম্প্রতিক উপাত্তচিত্র এটাই প্রমাণ করেছে যে ব্রেক্সিটের দীর্ঘমেয়াদি নেতিবাচক প্রবণতার ঘূর্ণাবর্তে পড়বে বেশির ভাগ কোম্পানি। নির্মাণখাতে ঝুঁকি সবচেয়ে বেশি, কারণ বিগত এক বছরে সেখানে খুব কম বা শুন্যহারে পুঁজি আসে। এটা চক্রাকারে ভোক্তাচাহিদা আরো কমানোর পেছনেও মূল প্রভাবক হয়ে উঠেছে।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত