প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

দুবাই বিলাসবহুল আয়েশি জীবনযাপনের শহর

সানমুন নিশাত : বিলাসবহুল ও অদ্ভূত জীবনযাপনের জন্য বিখ্যাত এক শহর দুবাই। কিন্তু ১৯৭০ সালেও ছিলো ধুধু মরুভূমি আর সাধারণ এক জেলে পল্লী।- বিডিসি নিউজ

দুবাই কোনো দেশ না সংযুক্ত আরব আমিরাতের সবচেয়ে বড় এবং জনবহুল শহর। উঁচু উঁচু বিল্ডিং, কৃত্তিম দ্বীপ, নামী দামী গাড়ি, বাড়ি। পর্যটনকে কেন্দ্র করে অল্প সময়ে গড়ে ওঠা এই শহরের বাসিন্দাদের প্রতি ৫ জনের মধ্যে ১ জন কোটিপতি। আরাম আয়েশে বসবাস করতে এবং টাকা উড়াতে দুবাইয়ের আমিরাতিদের জুড়ি মেলা ভার। এ শহরের রাস্তায় সব সময় চোখে পড়ে রোলস্ রয়েস, অ্যাস্টন মার্টিন, ল্যাম্বারগিনির মতন দামী ও বিলাসবহুল গাড়ি, এমনকি দুবাই পুলিশেরও আছে এসব গাড়ীর বহর।  ১০ থেকে ১০০ কোটি টাকা দামের এই গাড়িগুলোর অন্যতম বড় বাজার দুবাই।

কোটি টাকার এই গাড়ীগুলোতে সওয়ারী হিসেবে কখনো কখনো দেখা পাওয়া যায় বাঘ সিংহেরও। আমরা যেমন শখের বসে কুকুর বিড়াল পুষে থাকি, তেমনি দুবাইয়ের ধনীরা পুষে থাকেন বাঘ, সিংহ, শিম্পাঞ্জি, মত ভয়ঙ্কর প্রাণী।

দুবাই একটি মুসলিম দেশের অংশ হলেও পর্যটকদের আকৃষ্ট করতে তাদের জন্য এখানে মদ্যপান বৈধ। এমনকি খোলামেলা পোষাক পরা নারীদেরও চোখে পড়বে দুবাইয়ের সমুদ্র সৈকতে।

উবারের মাধ্যমে বিশ্ববাসী শুধুমাত্র ট্যাক্সি অথবা মোটরবাইক সেবা পেলেও দুবাইবাসী উবারের মাধ্যমে নিয়ে থাকে হেলিকপ্টার সেবা। দুবাইয়ে এক স্থান থেকে আরেক স্থানে যেতে হেলিকপ্টার ব্যবহার খুবই সাধারন ঘটনা। এমকি বর্তমানে দুবাইয়ে চালু হয়েছে বানিজ্যিক ভাবে পরিচালিত বিশ্বের সর্ব প্রথম চালকবিহীন হেলিকপ্টার ড্রোন ট্যাক্সি সার্ভিস।

দুবাই বিমান বন্দর পৃথিবীর তৃতীয় বৃহত্তম এবং ব্যস্ততম বিমানবন্দর। দুবাইয়ের মোট আয়ের ১৫ শতাংই আসে এই বিমানবন্দর থেকে। বিশ্বের বেশিরভাগ এয়ারলাইন্স দুবাই বিমান বন্দরকে ট্রানজিট হাব হিসাবে ব্যবহার করে। প্রতিদিন এখানে প্রায় ১০ হাজার বিমান ওঠা-নামা করে। আর প্রতি বছর প্রায় ৯ কোটি যাত্রী এই বিমানবন্দর ব্যবহার করে যা বাংলাদেশের জনসংখ্যার প্রায় অর্ধেক।

চকচকে আকাশচুম্বী অট্টালিকার এই শহর নির্মাণের সাথে মিশে আছে অনেক বাংলাদেশী শ্রমিকের রক্তঘাম। এখান থেকেই আয় হয় বাংলাদেশের সর্বোচ্চ পরিমাণ বৈদেশিক মুদ্রা। বাংলাদেশ ব্যাংকের তথ্যমতে সংযুক্ত আরব আমিরাত থেকে ২০১৭-১৮ অর্থ বছরে প্রায় ২ লাখ ১৯ হাজার কোটি টাকা বৈদেশিক মুদ্রা আয় করেছে। পৃথিবীর অনেক বড় শহরের মত জলপথকে কেন্দ্র করেই গড়ে উঠেছে দুবাই। পারস্য উপসাগরের তীরে অবস্থিত এ শহরকে পৃথক করেছে দুবাই খাল। এই খালের এক পাশে দেরা দুবাই আরেক পাশে বার দুবাই অবস্থিত। দেরা দুবাই অত্যাধুনিক আকাশচুম্বি অট্টালিকার শহর আর বার দুবাই ধারণ করে আছে দুবাইয়ের প্রাচীন ঐতিহ্য।

দুবাইয়ের প্রকৃত আধিবাসীদের বাস এই বার দুবাইয়ে। দেরা দুবাইয়ে অত্যাধুনিক শপিং মল, নামি দামি হোটেল, প্রশস্থ ঝকঝকে রাস্থা থাকলেও বার দুবাইয়ের চিত্র একদমই আলাদা। বিলাসিতার ছিঁটেফোঁটা না থাকলেও আদি ও অকৃত্রিম দুবাইয়ের দেখা মিলবে এখানেই। তাই প্রকৃত দুবাইকে দেখতে হলে যেতে হবে বার দুবাইয়ে।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত