প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

মেননের অবস্থান নিয়ে চিন্তিত ১৪ দল, লিখিত ব্যাখ্যা চাওয়ার সিদ্ধান্ত

খালিদ আহমেদ : ওয়ার্কার্স পার্টির সভাপতি ও  ১৪ দলীয় জোটের শরীক রাশেদ খান মেননের বক্তব্য নিয়ে চিন্তিত জোটের সদস্যরা৷ এজন্য তার কাছে ব্যখ্যা চাওয়া হবে বলে জানিয়েছেন ১৪ দলের সমন্বয়ক মোহাম্মদ নাসিম৷তবে মেনন বলেছেন, জনগণ ভোট দিতে পারেনি এই কথাই তিনি বলেছেন৷ডয়চে ভেলে

শনিবার বরিশালে দলীয় এক অনুষ্ঠানে রাশেদ খান মেনন বলেছেন, ‘‘গত জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আমিও নির্বাচিত হয়েছি৷ তারপরও আমি সাক্ষ্য দিচ্ছি, ওই নির্বাচনে জনগণ ভোট দিতে পারেনি৷ এমনকি পরবর্তীতে উপজেলা এবং ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনেও ভোট দিতে পারেনি দেশের মানুষ৷” বরিশালে দেয়া তার ওই বক্তব্যের প্রেক্ষিতে এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘‘জনগণ ভোট দিতে পারে নাই৷ এটা আমি বলেছি৷ তবে জনগণ যদি ভোট দিতে পারতো তাহলে শেখ হাসিনাকেই জয়ী করতো৷ জোটকেই জয়ী করতো৷”

তিনি বলেন, ‘‘আমি কোথাও বলিনি জনগণ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে ভোট দেয়নি বা আমাকে ভোট দেয়নি৷ আমি বলেছি জনগণ ভোট দিতে পারেনি৷ কথাটা সরাসরি হয়ে গেছে৷ কিন্তু একথা আমি নতুন বলিনি, আগেও বলেছি৷ পার্লামেন্টে বলেছি৷”

ভোট ছাড়াই নির্বাচিত হয়ে গেলেন? এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘‘না, তা কেন হবে? আমিতো সেটা বলিনি৷ আমি বলেছি  কিছু অতি উৎসাহী কর্মকর্তার কর্মকাণ্ড এই নির্বাচনকে অশুদ্ধ বা অবৈধ করে না৷ কিছু লোকতো ভোট দিয়েছে৷ তাতে আমরা জয়ী হয়েছি৷ জোট জয়ী হয়েছে৷”

৩০ ডিসেম্বর নির্বাচনের আগের রাতেই ভোট হয়ে গেছে বিএনপির এই অভিযোগ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘‘বিএনপি তাদের এই অভিযোগের কোনো প্রমাণ দিতে পারেনি৷ আর আমার মতামত হলো আগের রাতে ভোট হয়ে গেছে একথা আমি কোথাও বলিনি৷ আমরা মনে করি প্রশাসনের অতি উৎসাহ এবং বাড়াবাড়ি এর জন্য দায়ী৷”

আওয়ামী লীগসহ ১৪ দলের কয়েকজন নেতা এরইমধ্যে বলেছেন রাশেদ খান মেনন যা বলেছেন তা তিনি বিশ্বাস করলে তার পদত্যাগ করা উচিত৷ ১৪ দলের শরীক সাম্যবাদী দলের প্রধান দিলীপ বড়ুয়া  বলেন, ‘‘তিনি কেন বলেছেন, তার কথা সঠিক কিনা সেটার জবাব আমি দেবো না৷ তবে তিনি যা বলেছেন তা পদত্যাগ করেই বলা উচিত ছিলো৷ তিনি যা বলেছেন তার জন্য এখন তার পদত্যাগ করা উচিত৷ তার দু’টি অবস্থানতো একসঙ্গে হয় না৷বৈঠকে আলাপ আলোচনা করে আমরা তাকে চিঠি দেয়ার ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নেবো’

এর জবাবে মেনন বলেন, ‘‘আমি পদত্যাগ করবো না৷ পদত্যাগের প্রশ্ন আসে না৷ এটাতো শুধু নৈতিকতার প্রশ্ন নয়, এরসঙ্গে রাজনৈতিক প্রশ্ন জড়িত আছে৷ ১৯৮৬ সালেওতো বলা হয়েছিলো মিডিয়া ক্যু হয়েছিলো৷ তারপরওতো সবাই পার্লামেন্টে ছিলো৷ পদত্যাগ না করেও ভোটের জন্য সংগ্রাম চালিয়ে যাওয়া যায়৷”

১৪ দলের পক্ষ থেকে রাশেদ খান মেননের কাছে তার বক্তব্যের জন্য ব্যাখ্যা চাওয়া হবে৷ ১৪ দলের সমন্বয়ক আওয়ামী লীগ নেতা মোহাম্মদ নাসিম বলেন, ‘‘আমরা এই বিষয় নিয়ে বৈঠকে বসবো৷ বৈঠকে আলাপ আলোচনা করে আমরা তাকে চিঠি দেয়ার ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নেবো৷ তার জবাব দেখে আমরা পরবর্তী সিদ্ধান্ত নেব৷”

মেননের এ ধরনের বক্তব্য নিয়ে আওয়ামী লীগ ও ১৪ দলের অবস্থান জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘‘তার অবস্থান নিয়েতো আমরাও চিন্তিত হয়ে পড়েছি৷ তার মত একজন সিনিয়র নেতার কাছ থেকে এ ধরনের বক্তব্যতো আমরা চিন্তাও করতে পারি না৷”

কেএ/এসবি

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত