প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

রোববার থেকে সনাতন প্রদ্ধতিতে বিজিএমইএ ভবন ভাঙ্গা শুরু

সুজিৎ নন্দী : আগামী রোববার থেকে বিজিএমইএ ভবন ভাঙ্গার কাজ শুরু হবে। সনাতন প্রদ্ধতিতে ভাঙ্গা হবে। ২ লাখ ৬৬ হাজার বর্গফুটের বিজিএমইএ ভবন ভাঙ্গতে সময় দেয়া হয়েছে সর্বোচ্চ ৬মাস। ভবন ভাঙ্গার কাজে কিছু আধুনিক যন্ত্রপাতি ব্যবহার করা হবে। রাজধানী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের (রাজউক) প্রকৌশলী বিভাগ সূত্রে এতথ্য জানা যায়।

রাজউকের চেয়ারম্যান ড. সুলতান আহমেদ বলেন, সম্পূর্ণ সনাতন পদ্ধতিতে ভবনটি ভাঙ্গা হবে। আধুনিক যন্ত্রাংশ ব্যবহার করা হবে। শুরুতে কন্ট্রোলড ডিমোলিশন পদ্ধতিতে ভাঙ্গার পরিকল্পনা ছিলো। তিনি আরো বলেন, শ্রমিকদের নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার রাখা হবে। বিজিএমইএ ভবন ভাঙ্গার কাজে কোন ঝুঁকি থাকবে না। আশাপাশের ভবনের ঝুঁকির কোন কারণ নেই। সর্বোচ্চ সতর্কতার সাথে তারা কাজ করা হবে।

প্রকৌশলী বিভাগ সূত্র জানায়, ভবনটি সনাতন প্রদ্ধতিতে ভাঙ্গলে প্রায় সাড়ে ৩ কোটি টাকার রড, আউট লাইট গ্লাস, ইন্টেরিয়ার ডেকোরেশনের উপকরণ এবং রাবিশ পাওয়া যাবে। সব মিলিয়ে মূল্য হবে প্রায় ৫ কোটি টাকা। শুরুতে বাইরের গ্লাস খোলা হবে। এরপরে ভেতরের ইন্টেরিয়ার ডেকোরেশন খোলা হবে। ভবনের ভেতরে প্রাচীর ভাঙ্গা হবে। এরপরে ওপর থেকে ভাঙ্গা শুরু হবে।

বিজিএমইএ ভবন ভাঙার কার্যাদেশ পাওয়া ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান সালাম অ্যান্ড ব্রাদার্স গত ১৫ অক্টোবর ভবন ভাঙার কার্যক্রম থেকে সরে গেছে। এরপর নতুন করে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ দরদাতা প্রতিষ্ঠান চট্টগ্রামের ফোর স্টার গ্রুপকে।

আগামী সপ্তাহে নতুন করে কার্যাদেশ দেওয়া হবে বলে জানা গেছে। চুক্তি অনুযায়ী কার্যাদেশ দেওয়ার পর ছয় মাসের মধ্যে বিজিএমইএ ভবন ভাঙতে হবে। ভবনটি ভাঙতে সালাম অ্যান্ড ব্রাদার্সের দরপত্র ছিল ১ কোটি ৭০ লাখ টাকার। আর ফোর স্টার গ্রুপের দরপত্র ১ কোটি ৫৫ লাখ টাকা ৭০ হাজার টাকার। তবে শেষ মুহুর্তে সরে যাওয়ায় সালাম অ্যান্ড ব্রাদার্সের কাছ থেকে ১০ শতাংশ হারে ১৭ লাখ টাকা কেটে নিয়েছে রাজউক। তাতে ২ লাখ টাকা বাড়তি টাকা পাচ্ছে রাজউক।

বিজিএমইএ ভবন ভাঙার সবশেষ অবস্থা সম্পর্কে রাজউকের প্রধান প্রকৌশলী ও হাতিরঝিল প্রকল্পের পরিচালক এ এস এম রায়হানুল ফেরদৌস এরই মধ্যে বলেন, বিজিএমইএ ভবন ভাঙা নিয়ে ঝামেলা হচ্ছিল। আমরা প্রথম দরদাতা প্রতিষ্ঠানকে অনুমোদন দিয়েছিলাম। কিন্তু যখন তাদের কাছে চুক্তিপত্র চাইলাম, তখন তারা সেটা দিতে অপারগতা প্রকাশ করেছে। এতে কিছুটা সমস্যা হয়ে গেল। দ্বিতীয় দরদাতা প্রতিষ্ঠান ফোর স্টার গ্রুপকে কাজ দেওয়ার সিদ্ধান্ত হয়। তারাই এখন কাজ করবে।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত