প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

যাদের দুঃখ কেউ দেখে না, সেটাই দেখলেন তামিম

রাকিব উদ্দীন : আজ দুপুর গড়িয়ে বিকেল নামার মুহূর্তেই নিজেদের ১১ দফা দাবি নিয়ে সংবাদ সম্মেলনে আসেন জাতীয় দলের ক্রিকেটাররা। সাকিবের নেতৃত্বে এ সম্মেলনে নিজেদের থেকে শুরু করে গ্রাউন্ডসম্যান, আম্পায়ার, কোচ সবার সমস্যাগুলো তুলে ধরেন ক্রিকেটাররা।

বিশেষ করে গ্রাউন্ডসম্যানদের কষ্ট সবার সামনে তুলে ধরলেন দেশসেরা ওপেনার তামিম। সকাল থেকে রাত পর্যন্ত যারা সারাক্ষণ কঠোর পরিশ্রম করেও ন্যায্য মূল্য পায়না। সারাদিন মাঠে খাটা এ শ্রমিকদের দুঃখ কেউ না বুঝলেও ঠিকই তা বুঝলেন তামিম। আর তাই নিজেদের দাবির মধ্যে তাদের কষ্টের কথা তুলে ধরে পারিশ্রমিক বাড়ানোর দাবি জানাতে ভোলেননি বাঁহাতি এ ব্যাটসম্যান।

মিরপুর শের-ই-বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে সোমবার (২১ অক্টোবর) সংবাদমাধ্যমকে তামিম বলেন, ‘এখানে আমরা শুধু ক্রিকেটারদের নিয়ে কথা বলতে আসিনি। একজন গ্রাউন্ডসম্যান বিসিবিতে কাজ করে কী ধরনের বেতন পায়? আপনার সবাই দেখেন, সকাল থেকে রাত পর্যন্ত তারা কাজ করে। কিন্তু মাস শেষে তারা পাঁচ থেকে ছয় হাজার টাকা পায়।’

দেশীয় কোচদের জাতীয় দলে কাজ করার সুযোগ দেয়া হয় না। ঘরোয়া লিগে তারা যে দলগুলোর কোচিং করার সেখানেও তাদের পর্যাপ্ত বেতন দেয়া হয় না। কিন্তু দেখা যায়, বিদেশ থেকে একজন কোচ এনে তার পেছনে প্রচুর টাকা খরচ করা হয়। এই প্রচলিত ধারার প্রতিবাদ করেন তামিম।

দেশসেরা এই ওপেনার বলেন, ‘কোচের ব্যাপারটা যদি দেখেন, আমরা নিজেরাই আমাদের দেশের কোচকে এগিয়ে যেতে দিই না। বিদেশি একজন কোচ যে বেতন পায় তা আমাদের ২০ জন দেশি কোচের সমান হয়ে যায়। এমনও দেখা যায়, বাংলাদেশি কোনো কোচের অধীনে একজন ক্রিকেটার খুব ভালো পারফর্ম করেছে। কিন্তু পরবর্তী সিরিজে আর সে দলে নেই। আমি কারো নাম উল্লেখ করব না, কিন্তু বিবেচনা করে দেখেন এটাই ঘটছে।’

বাঁহাতি এই ব্যাটসম্যান স্বল্প কথায় তার মূল বক্তব্যে তুলে ধরেন, ‘আমার মূল কথা হলো, এখনই সঠিক সময় যেখানে বাংলাদেশিদেরকে সর্বোচ্চ অধিকার দেয়া। অন্যান্যদের থেকে আমাদের দেশি মানুষদের আগে সুযোগ দেয়া হোক।’

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত