প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

অমিতাভের ১৯টি জানাঅজানা তথ্য

সানমুন নিশাত: সর্বকালের সবচেয়ে জনপ্রিয় অভিনেতাদের মধ্যে তিনি অমিতাভ বচ্চন অন্যতম। শাহেনশাহ তকমা পেতে তাকে অনেক কাঠখড় পোড়াতে হয়েছে। – বাংলাট্রিবিউন

জেনে নিন তার জীবনের ১৯টি অজানা তথ্য –
১. কলকাতায় চাকরি জীবনে আট জনের সঙ্গে একই মেসে থাকতেন অমিতাভ বচ্চন।
২. অমিতাভের একটি লেক্সাস, দুটি বিএমডব্লিউ ও তিনটি মার্সিডিস এবং আরও পাঁচটি গাড়ি আছে। এর মধ্যে তার প্রিয় হলো বুলেটপ্রুফ লেক্সাস। এতে ফর্মুলা ওয়ান রেসের গাড়িতে ব্যবহৃত টায়ার আছে। প্রতিটি টায়ারের দাম আড়াই লাখ রুপি।
৩. নব্বই দশকে প্রত্যাবর্তনের ছবি মৃত্যুদাতা (১৯৯৭) মুক্তির পর বিগ বি উপাধি পান অমিতাভ।
৪. দরাজ কণ্ঠের কারণে অল ইন্ডিয়া রেডিওর অডিশনে টেকেননি অমিতাভ। হিন্দি ও ইংরেজি উভয় ভাষাতেই তার আওয়াজ পছন্দ করেননি বিচারকেরা।
৫. তারকা পরিচয়ের চেয়ে অভিনেতা শুনতে পছন্দ করেন বিগ বি।
৬. ঘড়ি ও কলম সংগ্রহ করতে ভালো লাগে অমিতাভের। জার্মান প্রতিষ্ঠান মন্ট ব্লাঙ্ক প্রতি বছর তার জন্মদিনে বিশেষ কলম উপহার দেয়।
৭. স্নাতক সম্পন্ন করে কলকাতায় চলে যাওয়ার পর প্রচুর মদ্যপান করতেন অমিতাভ। কিন্তু এখন ধূমপান ও মদ এড়িয়ে চলেন, এমনকি চা কফিতেও চুমুক দেন না তিনি।
৮. হিন্দি চলচ্চিত্র শিল্পকে বলিউড বলা অপছন্দ অমিতাভের।
৯. ১৯৪৯ থেকে ১৯৫৫ সাল পর্যন্ত স্কুলে পড়াশোনার পাশাপাশি বক্সার হিসেবে সুনাম ছিল অমিতাভের।
১০. ভক্ত-ফলোয়ারদের সঙ্গে সবসময় যুক্ত থাকতে ভালো লাগে। এজন্য সবসময় ল্যাপটপ ও মোবাইল ফোন সঙ্গে রাখেন।
১১. ঐশ্বরিয়া রাই বচ্চন ও অভিষেক বচ্চনের মেয়েকে আরাধ্য বিটিয়া বলে ডাকেন অমিতাভ। আর জয়া বলেন স্ট্রবেরি।
১২. ২০১২ সালের ২৭ জুলাই লন্ডনের সাউথওয়ার্কে রিলে দৌড়ের শেষ পর্বে অলিম্পিক মশাল বহন করেন অমিতাভ বচ্চন।
১৩. টিভি মিনি সিরিজ যুদ্ধর পুরো কলাকুশলীদের গেমিং অ্যাপে যুক্ত করেন অমিতাভ। এজন্য সবসময় ক্রিয়েটিভ ডিরেক্টর অনুরাগ কাশ্যাপের আইপ্যাড ধার নিতেন তিনি।
১৪. টুইটারে ৩ কোটি ৮০ লাখ ফলোয়ার আছে অমিতাভের। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে সবচেয়ে বেশি ফলোয়ার আছে এমন ভারতীয় তারকাদের মধ্যে তিনি অন্যতম।
১৫. কৌন বনেগা ক্রোড়পতির ১১টি মৌসুমের ১০টি সঞ্চালনা করেছেন অমিতাভ। তৃতীয় মৌসুমে কেবল উপস্থাপক ছিলেন শাহরুখ খান।
১৬. প্রথম হিট ছবি জঞ্জির-এর (১৯৭৩) আগে অমিতাভের টানা ১২টি ছবি ফ্লপ হয়েছে।
১৭. ফিল্মফেয়ার অ্যাওয়ার্ড ১৫ বার জিতেছেন অমিতাভ। এছাড়া এই পুরস্কারের জন্য ৪১ বার মনোনয়ন পেয়েছেন।
১৮. ভারত সরকারের কাছ থেকে ১৯৮৪ সালে পদ্মশ্রী, ২০০১ সালে পদ্মভূষণ ও ২০১৫ সালে পদ্মবিভূষণ খেতাব পান অমিতাভ বচ্চন।
১৯. যক্ষ্মারোগে আক্রান্ত হয়েছিলেন অমিতাভ। কিন্তু আট বছর তা টের পাননি তিনি। অমিতাভ এক সাক্ষাৎকারে বলেন, যক্ষ্মা ও হেপাটাইটিস বি থেকে সেরে উঠেছি। আমার যকৃতের ৭৫ শতাংশই অকেজো। তবুও বেঁচে আছি।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত