প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

২০১৯ সালের তৃতীয় ভাগে এসে রেকর্ড ছাড়িয়েছে আফগান যুদ্ধে হতাহতের সংখ্যা, যুদ্ধবিরতির প্রস্তাব জাতিসংঘের

সাইফুর রহমান : বৃহস্পতিবার আফগানিস্তানে জাতিসংঘ মিশনের প্রকাশিত এক প্রতিবেদনে এই তথ্য জানিয়ে বলা হয়, দীর্ঘ সময়ের চলমান সংঘর্ষে সব পক্ষই বেসামরিক লোকদের ক্ষতি করেছে। প্রতিবেদনে আরো বলা হয়, চলতি বছরের তৃতীয় কোয়ার্টারে মোট ১ হাজার ১শ ৭৪ জন নিহত এবং ১ হাজার ১শ ৩৯ জন আহত হয়েছেন। হতাহতের এই সংখ্যা গত বছরের একই সময়ের তুলনায় ৪২ ভাগ বেশি। কেবল জুলাই মাসেই এই ৪শ ২৫ জন বেসামরিক আফগান নাগরিক নিহত এবং ১ হাজার ১শ ৬৪ জন আহত হয়েছেন। ফলে ২০০৯ সালের হতাহতের সংখ্যা গণনা শুরুর পর ২০১৯ সালের জুলাই মাসকেই সবচেয়ে প্রাণঘাতি মাস হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছে প্রতিবেদনে। নিউইয়র্ক টাইমস

আফগানিস্তানে জাতিসংঘ মিশনের প্রধান তাদামিচি ইয়ামামোতো বলেন, আফগান যুদ্ধে বেসামরিক ক্ষয়ক্ষতি যুদ্ধবিরতি ও স্থায়ী রাজনৈতিক সমাধানের সঙ্কেতই দিচ্ছে আমাদের। এছাড়া সামনে যাওয়ার আর কোনো পথ নেই। আফগানিস্তানে জাতিসংঘ মিশনের সামনে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে তিনি আরো বলেন, বেসামরিক লোক হতাহতের ঘটনা পুরোপুরি অগ্রহণযোগ্য। এর কোনো সামরিক সমাধান নেই।

গত মাসে তালেবানের সঙ্গে শান্তি আলোচনা ভেস্তে যাওয়ার পর আফগান ও মার্কিন বাহিনীর সামরিক হামলার প্রেক্ষাপটে বেসামরিক মৃত্যু বাড়ছে। এপ্রসঙ্গে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প এক টুইটে বলেন, গত ১০ বছরের মধ্যে এখই আমরা শত্রুর উপর সবচেয়ে কঠিন আঘাত হানছি। অবশ্য তালেবান-যুক্তরাষ্ট্র শান্তি আলোচনার মধ্যেও দুপক্ষ হামলা-পাল্টা হামলা চালিয়েছে।তালেবান তখনো আত্মঘাতি হামলা চালিয়েছে আবার মার্কিন বিমান বাহিনীর সমর্থন নিয়ে আফগান কমান্ডোরাও বিমান হামলা চালিয়েছে। একই সময়ে আবার আইএসও বহুমুখী হামলা চালিয়েছে। সম্প্রতি একটি বিয়ের অনুষ্ঠানস্থলে তাদের এক আত্মঘাতি হামলায় ৮০ জন নিহত হয়েছেন।

এদিকে মার্কিন বিমান বাহিনীর হিসাব অনুযায়ী কেবল সেপ্টেম্বরেই তাদের বিমানগুলো ৯শ ৮৯ বার হামলা চালিয়েছে। গত ৫ বছরের মধ্যে এমাসেই সবচেয়ে বেশি হামলা চালিয়েছে তারা। আফগানিস্তানে প্রায় ১৪ হাজার স্থল সৈন্য রয়েছে যুক্তরাষ্ট্রের। এছাড়া ন্যাটোভুক্ত কয়েকটি দেশের সৈন্যও মোতায়েন রয়েছে দেশটিতে। সম্পাদনা : খালিদ আহমেদ

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত