প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

ভারত ও চীনের চেয়ে বাংলাদেশে সড়ক নির্মাণে খরচ বেশি

কেএম নাহিদ : সড়ক নির্মাণে মাত্রাতিরিক্ত খরচ নিয়ে বহুজাতিক সংস্থা বিশ্বব্যাংকসহ বিভিন্ন মহল থেকে দীর্ঘদিন ধরে সমালোচনা হয়ে আসছে। বিশ্বব্যাংকের হিসাবে প্রতিবেশী ভারত ও চীনে গড়ে যেখানে কিলোমিটারপ্রতি সড়ক নির্মাণে খরচ হয় ১১ কোটি থেকে ১৫ কোটি টাকার মধ্যে, বাংলাদেশে সেখানে কিলোমিটারপ্রতি খরচ হয় ৫৫ কোটি থেকে ১০০ কোটি টাকার মধ্যে। মাতারবাড়ীতে প্রস্তাবিত দুই লেনের সড়ক নির্মাণে বিশ্বব্যাংকের হিসাবও ছাড়িয়ে যাচ্ছে। টুইট বাংলা

এক কিলোমিটার সড়ক নির্মাণে ব্যয় ১৬১ কোটি টাকা। কক্সবাজারের মাতারবাড়ীতে নির্মিত হচ্ছে ২১ কিলোমিটার দীর্ঘ দুই লেনের একটি সড়ক। আর এ প্রকল্পের জন্য ৩ হাজার ৩৮৪ কোটি টাকা ব্যয় ধরেছে সড়ক ও জনপদ (সওজ) অধিদপ্তর)।

এক পরিসংখ্যানে দেখা যায়, সড়ক নির্মাণ ব্যয়ে বিশ্ব রেকর্ডে বাংলাদেশ। আবার মানের দিক থেকে চীন ভারত থেকে অনেক অনুন্নতমানের।
সড়ক ও জনপদ (সওজ) অধিদপ্তরের অধীনে নির্মিত কক্সবাজার মাতারবাড়ীতে নির্মিত ২১ কিলোমিটার সড়কের কি মি নির্মাণে খরচের ব্যয় ধরা হয়েছে ১৬১ কোটি টাকা। যা বিশ্ব রেকর্ডেরও অনেক উপরে। দুই লেনের একটি সড়ক নির্মাণে এমন ব্যয়ের পরিকল্পনার সমালোচনা করেছে জাতিসংঘ।

এর আগে কিলোমিটারপ্রতি সর্বোচ্চ খরচ ধরা হয়েছিল ঢাকা-মাওয়া সড়ক নির্মাণে ১০১ কোটি টাকা, তবে সেই সড়কটি চার লেনের।

এক বছর আগে নির্মিত পটুয়াখালীর পায়রা বন্দরে জলাভূমিতে পাঁচ কিলোমিটার দৈর্ঘের একটি চার লেনের সড়ক নির্মাণ করা হয়। সেই চার লেনের সড়কটিতে কিলোমিটারপ্রতি সরকারের খরচ হয়েছিলো ৬০ কোটি টাকা। অথচ মাতারবাড়ীতে সমজাতীয় দুই লেনের সড়কটি নির্মাণে খরচ হবে পায়রা বন্দরের সড়কের চেয়ে তিন গুণেরও বেশি। দুই লেনের সড়ক নির্মাণে যেখানে খরচ কম হওয়ার কথা, উল্টো সেখানে তিন গুণ বেশি খরচ ধরা হয়েছে। অথচ দুটি জায়গাই সমতল থেকে অনেক নিচুতে।

সওজ অধিদপ্তরের আওতায় আরো কয়েকটি প্রকল্পের মধ্যে রংপুর থেকে হাটিকুমরুল চার লেনের সড়কটি কিলোমিটারপ্রতি খরচ পড়েছে ৫৫ কোটি টাকা। ঢাকা-সিলেট প্রস্তাবিত চার লেনের মহাসড়ক কিলোমিটারে ৬০ কোটি টাকা, ঢাকা-মাওয়া চার লেন সড়ক ১০১ কোটি, ঢাকা-চট্টগ্রাম চার লেন মহাসড়ক নির্মাণে কিলোমিটারপ্রতি খরচ হয়েছিলো ২১ কোটি টাকা। সম্পাদনা: রেজাউল আহসান

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত