প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

৬৫ হাজার দপ্তরি কাম প্রহরী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের জন্য

মাজহারুল ইসলাম : এমন একটি প্রস্তাব ইতোমধ্যে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের প্রশাসন-২ অধিশাখা থেকে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের সংগঠন ও ব্যবস্থাপনা (সওব্য-৬) অধিশাখায় পাঠানো হয়েছে। এ জন্য ৬৪ হাজার ৮৪৩টি পদ সৃষ্টি করতে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ে প্রস্তাব করা হয়। প্রস্তাবনাটি যাচাই-বাছাই শেষে গুরুত্ব বিবেচনায় নতুন পদ সৃষ্টির অনুমোদন দেবে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়। সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, বিপুলসংখ্যক ওই পদ সৃষ্টিতে সময় লাগবে বলে । আমাদেরসময়

জানা গেছে, সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ভবন, স্থাপনা, মেশিনারিজ, ল্যাপটপ, মাল্টিমিডিয়া প্রজেক্টর ও ইক্যুইপমেন্টের রক্ষণাবেক্ষণ করতে বর্তমানে দপ্তরি কাম প্রহরি পদে আউটসোর্সিংয়ের মাধ্যমে ৩৬ হাজার ৯৮৮ জন কাজ করছেন। এ ছাড়া এ পদে রাজস্ব খাতে রয়েছেন ৬৮৪ জন। নতুন এই প্রস্তাব পাঠানোর আগে ২৭ হাজার ৮৪৫টি পদে আউটসোর্সিংয়ের মাধ্যমে জনবল নিয়োগ চেয়েছিলো প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়। তবে আউটসোর্সিং নীতিমালায় প্রহরী কাম দপ্তরি পদে নিয়োগের বিধান না থাকায় মোট ৬৪ হাজার ৮৪৪টি পদেই রাজস্ব খাতে নিয়োগের নতুন প্রস্তাব পাঠিয়েছে মন্ত্রণালয়।
নতুন বিদ্যালয় স্থাপন ও জাতীয়করণের ফলে বর্তমানে সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সংখ্যা ৬৫ হাজার ৫২৭টি। নতুন বিদ্যালয়গুলোতে দপ্তরি কাম প্রহরী পদে লোকবল নেই। এজন্য জরুরি ভিত্তিতে ওই পদে নিয়োগ দিয়ে সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের মানোন্নয়ন করতে চায় প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়।

জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ে পাঠানো প্রস্তাবনায় বলা হয়েছে, ইতিপূর্বে সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে রাজস্ব খাতের ৬৮৪টি পদ ছাড়া অবশিষ্ট ৩৬ হাজার ৯৮৮ বিদ্যালয়ে একটি করে দপ্তরি কাম প্রহরী পদ আউটসোর্সিংয়ের মাধ্যমে করা হয়। পদ সৃজন না হওয়া অবশিষ্ট বিদ্যালয়গুলোতে আউটসোর্সিংয়ের মাধ্যমে দপ্তরি কাম প্রহরী পদে প্রথমে ২২ হাজার ৯২৫টি এবং পরে আরও ৪ হাজার ৯২০টি পদ সৃষ্টি করতে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ে প্রস্তাব পাঠানো হয়েছে। ইতোমধ্যে অর্থ মন্ত্রণালয়ের অর্থ বিভাগ কর্তৃক আউটসোর্সিং প্রক্রিয়ায় সেবাগ্রহণ নীতিমালা-২০১৮ জারি করা হয়েছে। ওই নীতিমালায় ১২টি সেবা নির্ধারণ করা হয়। এতে দপ্তরি কাম প্রহরী পদের সেবা আউটসোর্সিংয়ের মাধ্যমে নির্ধারণ করা হয়নি। ফলে পদটি রাজস্ব খাতে সৃজন করা প্রয়োজন।

সর্বাধিক পঠিত