প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

কেন আমি শিশু তুহিনের ছবিটা দেখলাম!

 

সেজুল হোসেন : সুনামগঞ্জের দিরাইয়ে তুহিন নামের যে শিশুটিকে বিভৎস ভাবে খুন করা হলো, আটক ৭ জনের মধ্যে ৩ জন নাকি স্বীকারোক্তি দিয়েছে। তারা শিশুটির রক্তের সম্পর্কের পরিজন। স্থানীয় সাংবাদিক যারা ঘটনাস্থল ঘুরে এসেছেন তাদের কয়েকজনের সাথে কথা বললাম, তারা বলছেন, – খুন হওয়া শিশুটির বাবা অন্য একটি খুনের মামলার আসামি। – শিশুটির বাবা চাচার সঙ্গে এলাকায় কিছু মানুষের দীর্ঘ দিনের বিরোধ আছে। – শিশুটিকে যে দুটি ছুরি দিয়ে খুন করা হয়েছে সে দুটি ছুরি নতুন আর শত্রু পক্ষের লোকজনের নাম লেখা ছুরির গায়ে। – এখন পর্যন্ত ধারণা, শিশুটির ঘরের লোকজনই তাদের পারিবারিক শত্রুদের ফাঁসানোর জন্য নিজের সন্তানকে বলি দিয়েছে। -পুলিশ আনুষ্ঠানিক ভাবে এখনো কিছু জানায়নি। তবে আশা করবো, তাঁরা যেনো দয়া করে, বিলম্বিত কোনো আইনী প্রক্রিয়ায় না যায়। বলছি না শিশুটিকে যেভাবে খুন করা হয়েছে, সেভাবেই তাদেরকে শাস্তি দিক। শুধু এটুকু দাবি, যেহেতু ৩ জন স্বীকারোক্তি দিয়েছে, তাদেরকে জেলে না পাঠিয়ে আপাতত শিশুটির কাছে পাঠিয়ে দিন প্লিজ। দোহাই লাগে।

আমি জীবনে প্রচুর হরর ফিল্ম দেখেছি। প্রচুর খুনের দৃশ্য দেখেছি। এতোটা বিভৎস, এতোটা নির্মম, এতোটা অমানবিক খুন দেখাতো দূরের কথা, কল্পনায়ও আসেনি তাও আবার রক্তের বন্ধনের কাছ থেকে। মানুষের এই বর্বর যাত্রার গন্তব্য কোথায়? পৃথিবী কি ধ্বংসের দ্বারপ্রান্তে? কে দেবে উত্তর!!

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত