প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

কারা জামায়াত-শিবির, বিএনপি, ফ্রিডম পার্টির লোকদের আওয়ামী লীগে যোগ কিংবা পদ পাওয়ার সুযোগ দিলো?

প্রভাষ আমিন : জামায়াত হোক, শিবির হোক, বিএনপি হোক, ফ্রিডম পার্টি হোক, তারা দেশের প্রচলিত আইনে নিজ নিজ অপরাধে সাজা পাবে। কিন্তু তাদের আওয়ামী লীগে যোগ দেয়াতে আমি দোষের কিছু দেখি না। তারা তো নিজেদের অতীত ঢাকতে, সুবিধা পেতে আওয়ামী লীগের আড়াল চাইবেই। আমার প্রশ্ন হলো, কারা তাদের আওয়ামী লীগে যোগ দেয়ার, বড় পদ বাগিয়ে নেয়ার সুযোগ করে দিচ্ছে। শুনছি, চলমান শুদ্ধি অভিযানের অংশ হিসেবে দলের অনুপ্রবেশকারীদের বিরুদ্ধেও ব্যবস্থা নেয়া হবে। শেখ হাসিনার টেবিলে নাকি এক হাজার পাঁচশজন অনুপ্রবেশকারীর তালিকাও আছে।

আমি জানি সংখ্যাটা আরও অনেক বেশি। তবে এই এক হাজার পাঁচশজনকে বহিষ্কার করার চেয়েও আমার কাছে গুরুত্বপূণ প্রশ্ন হলো, আওয়ামী লীগের কারা জামায়াত-শিবির, বিএনপি এবং ফ্রিডম পার্টির লোকদের আওয়ামী লীগে যোগ দেয়ার এবং পদ পাওয়ার সুযোগ করে দিলো? শেখ হাসিনার নিরাপত্তার স্বার্থেই এই প্রশ্নটির জবাব দরকার। অনুপ্রবেশকারীদের চেয়েও যারা তাদের আনলো, তারা বেশি বিপজ্জনক। দলের অভ্যন্তরীণ তদন্ত করে হলেও এদের খুঁজে বের করতে হবে এবং অনুপ্রবেশকারীদের আগে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে হবে। জামায়াত-শিবির, বিএনপি যাই হোক, ফ্রিডম পার্টির যে কোনো পর্যায়ের কোনো নেতা বা কর্মী কিভাবে আওয়ামী লীগে যোগ দেয়ার সুযোগ পায়? অবিশ্বাস্য হলেও এটাই সত্যি এবং ভয়ংকর। শেখ হাসিনার উপর হামলা চালিয়ে যারা তাকে হত্যা করতে চায়, তেমন দু’জন ঢাকায় গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব পালন করছিলেন। খালেদ মাহমুদ ভূঁইয়া ঢাকা দক্ষিণ যুবলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আর পাগলা মিজান শেখ হাসিনা যেখানে থাকেন, সেই গণভবন এলাকার ওয়ার্ড কাউন্সিলর, ভাবতেই ভয়ে আমি শিউরে উঠি। না জানি, এমন আরও কতো ফ্রিডম পার্টি খোলস বদলে আওয়ামী লীগে ঘাপটি মেরে আছে? ফেসবুক থেকে

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত