প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

রাশিয়ার রোগ উপশমের জন্য গ্রাম আবিষ্কৃত

দেবদুলাল মুন্না: রাশিয়ার সাইবেরিয়ার পশ্চিমাঞ্চলের গ্রাম অকুনেভু। এ গ্রামকে নিয়ে রয়েছে অনেক রহস্য। গত শনিবার বিবিসি অনুসন্ধানী এক রিপোর্টে জানা যায় যে এ গ্রামে গেলে নাকি রোগ ভাল হয়ে যায়! এমনই দাবি গ্রামবাসীর। তারা সবাই বিশ্বাস করেন একটি ক্রিস্টাল (স্বচ্ছ স্ফটিক পদার্থ), যা তাদের যেকোনো দুর্যোগ থেকে রক্ষা করে। স্থানীয় বাসিন্দা দিমিত্রি কিংয়ারস্কি ক্রিস্টাল সম্পর্কে বিবিসিকে বলেন, ‘যার কাছে এ জাতীয় একটি ক্রিস্টাল থাকে, গোটা বিশ্ব তার।’

প্রচলিত গল্পানুসারে, পাঁচটি লেকের মধ্যে তাইগা নামের লেকটির তলায় পাওয়া যায় ওই ক্রিস্টাল। অনেক মানুষ ওই লেকে যান শুধু একটি ক্রিস্টাল পাওয়ার আশায়। অকুনেভুতে প্রকিবছর দেড়লাখের বেশি পর্যটক ভ্রমণের উদ্দেশ্যে যান। এদের মধ্যে অধিকাংশ যান রোগ নিরাময়ের উদ্দেশ্যে।

রাশিয়ার আর্কিওলজি অ্যান্ড এথনোগ্রাফি বিভাগের জ্যেষ্ঠ গবেষক আলেকজান্ডার স্লেজনেভ বিবিসিকে বলেন, ‘আমাদের দেশে ১৯৮০ থেকে ১৯৯০ সালের মধ্যে এমন বেশ কয়েকটি জায়গা ছিল। বিশেষ করে সোভিয়েত ইউনিয়নের পতনের পর আমরা বৈশ্বিক সমস্যা নিয়ে অধিক চিন্তিত হয়ে পড়ি। আমাদের দেশও নিজেকে একই সমস্যার ভেতর দেখতে পায়।’

কিন্তু এসব ঘটনা ও আধ্যাত্মিক ক্ষমতার পেছনে কী আছে? আর কেনইবা মানুষ এই জায়গাগুলোর প্রতি দুর্বল? নৃতাত্ত্বিক বরিস মেলনিকভের মতে, ‘১৯৯০ সালের দিকে ‘দ্য ফাইভ লেকস’ শিরোনামে একটি নিবন্ধ প্রকাশিত হয়। সেখানে বলা হয়, ওই অঞ্চলের পাঁচটি এলাকায় পাঁচটি উল্কা পড়েছিল আকাশ থেকে। যে স্থানে ওই উল্কা পড়েছিল সেখানে খাদের সৃষ্টি হয়, যা পরে লেক হয়ে যায়। ওই লেকগুলোতে সাঁতার কাটলে যেকোনো অসুস্থতা নিরাময় হয়ে যায়। মানুষ এমনটা বিশ্বাস করতে শুরু করে।’

লেকগুলোতে আসা পর্যটকরা বলেন, লেকের তলার নীলাভ মাটিতে আছে রোগ নিরাময়ী শক্তি। মানুষ এখনো ওই লেকগুলোয় গিয়ে সাঁতার কাটার পাশাপাশি শরীরে কাদামাটির প্রলেপ দেয়। কয়েক হাজার বছর ধরে ওই লেকগুলোর ধারে মানুষ বাস করে আসছে। নৃতাতত্ত্বিকদের মতে, সাইবেরিয়ায় মানুষ সবসময়েই পানির উষ্ণ প্রসবনের পাশে থাকতে চায়।

সর্বাধিক পঠিত