প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

মোদির জনপ্রিয়তায় কংগ্রেসের পেটব্যথা হয়, বললেন বিজেপি সভাপতি

সালেহ্ বিপ্লব : প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির বিদেশ সফর নিয়ে ফোড়ন কেটেছিলেন প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী মনমোহন সিং। এর জবাবে অমিত শাহ বলেছেন, মোদির চেয়ে অনেক বেশী বিদেশ সফর করেছেন মনমোহন সিং। এই প্রসঙ্গ তুলে বিজেপি সভাপতি ও ভারতের কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী কংগ্রেসের বিরুদ্ধে তীব্র আক্রমণও শানিয়েছেন। এনডিটিভি

২০১৪ সালের মে মাসে প্রধানমন্ত্রীর আসনে বসার পর থেকে, ৪৮টি বিদেশ যাত্রায় ৫৫টি দেশে গিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী মোদি। তারমধ্যে একই দেশে বেশ কয়েকবার যাওয়াও হয়েছে। এই বিষয়টি নিয়েই মোদীকে কটাক্ষ করছে কংগ্রেস। গত ২৭ সেপ্টেম্বর ছিল বিশ্ব পর্যটন দিবস, নরেন্দ্র মোদির বিমানে ওঠা এবং নামার ছবি টুইট করে কংগ্রেস। তাতে ক্যাপশন ছিল, “শুভ বিশ্ব পর্যটন দিবস”।

অমিত শাহের অভিযোগ, হিংসার কারণেই এই সমস্ত কথা বলে কংগ্রেস। তিনি বলেন, “মোদি যেখানেই যান, হাজারো মানুষ বিমানবন্দরে উপস্থিত থেকে মোদি-মোদি রব তোলেন। এতে কংগ্রেসের পেটব্যথা হয়, এবং তারা বলে, কেন মোদি এত ঘোরেন।”

গতমাসে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির যুক্তরাষ্ট্র সফরের প্রসঙ্গ তুলে ধরে ভারতের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, এতেই প্রমাণ হয় “বিশ্বের সবচেয়ে জনপ্রিয় প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি”।

প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী মনমোহন সিং-এর সঙ্গে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির তুলনা টেনে অমিত শাহ বলেন, “মনমোহনজী একটি কাগজে লেখা থেকে বক্তৃতা দিতেন, যেটি তাঁকে দিতেন ম্যাডাম। একবার তিনি মালয়েশিয়াতে গিয়ে রাশিয়ার বক্তৃতাটি করেন এবং উল্টোটা।”

প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির ঘনঘন বিদেশযাত্রা নিয়ে বিজেপির বিরুদ্ধে আক্রমণ শানিয়েছে  অন্যান্য  বিরোধী দলও। যদিও বিজেপির থেকে দাবি করা হয়, প্রধানমন্ত্রীর সুদক্ষ কূটনীতি ভারতের আন্তর্জাতিক খ্যাতি বাড়িয়েছে এবং বিনিয়োগের বন্যা এনেছে।

ডিসেম্বরে, সংসদে কেন্দ্রীয়মন্ত্রী ভিকে সিং বলেন, মোদির সফরের কারণে ভারতে প্রত্যক্ষ বিদেশী বিনিয়োগ বেড়েছে।  তিনি জানান, ২০১১ থেকে ২০১৪ পর্যন্ত ভারতে প্রত্যক্ষ বিদেশী বিনিয়োগের পরিমাণ ছিল ৮১,৮৪৩.৭১ মিলিয়ন ডলার এবং ২০১৪ থেকে ২০১৮ পর্যন্ত তা বেড়ে দাঁড়িয়েছে, ১৩৬,০৭৭.৭৫ মিলিয়ন ডলার।

 

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ