প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

ইতিহাস বলে দানবই তার স্রষ্টাকে খেয়ে ফেলে

 

সাইদ তারেক :ছাত্রলীগকে তৈরিই করা হয়েছে একটি ঠ্যাঙারে বাহিনী হিসেবে। এদের কাজ ছিলো ক্যাম্পাসগুলোয় বিরোধী ছাত্র সংগঠন যেন ঘাঁটি গাড়তে না পারে, সরকারের বিরুদ্ধে কোনো আন্দোলন গড়ে তুলতে না পারে তা নিশ্চিত করা। বিনিময়ে চাঁদাবাজি, দখলবাজি, কমিশনবাজি, বখরবাজির ওপেন জেনারেল লাইসেন্স (ওজিএল)। কল্পনা করতে পারেন, এদের কোনো কোনো নেতা কি পরিমাণ টাকা এবং সম্পদের মালিক। শুধু একটা কাজ থেকে ৮৬ কোটি টাকা বখরা দাবি থেকেই কিছুটা আন্দাজ করা যায়। বিরোধী রাজনীতি ঠা-া করে দেয়ার কাজে তারা শতভাগ সফল। লেখাপড়া করে সবাই সোনার ছেলে হোক, জ্ঞানী, গুণী, বুদ্ধিমান হোক, এমন কি কেউ কখনো চেয়েছে। ওরাও জানে লেখাপড়া দরকার নেই বিসিএস থেকে শুরু করে সরকারি চাকরির জন্য এইচটি ইমাম আছে বড় ভাইয়েরা আছে। নির্দ্বিধায় গু-াগিরি করেছে, অস্ত্রবাজি করেছে।

দখল, চাঁদাবাজি, বখরা কমিশন, খুনখারাপিতে যখন হাত পাকিয়েছে তখনো কেউ কিছু বলেনি। এসব ফ্যাঙ্কেস্টাইন দানব তো একদিনে তৈরি হয়নি। দশ বছরে সযতেœ লালন-পালন করে এই পর্যায়ে আনা হয়েছে। একসময় যখন শিবির নাম দিয়ে অপছন্দের ছাত্রদের হত্যা করে পৈশাচিক উল্লাসে নৃত্য করেছে তাদের শাবাশই দেয়া হয়েছে, মিডিয়া তাদের গুণকীর্তন করেছে।

প্রতিপক্ষকে মেরে ক্যাম্পাস থেকে বের করে দিয়েছে পিঠ চাপড়ে উৎসাহিত করা হয়েছে। তাহলে এরা কাদের সৃষ্টি?
ক্ষমতার লোভে গড়ে ওঠা অপরাজনীতি একটা জাতিকে কতোটা অধঃপতনে নিতে পারে সাম্প্রতিক ঘটনাবলী তার সামান্য প্রকাশ মাত্র। যে ছেলেগুলো আবরারকে মেরেছে তাদের ভাব দেখে মনে হয়েছে নির্বিকার, ভাবলেশহীন। যেন এ তো হাতের ময়লা। বিশ্বজিৎ হত্যাকারীদের মতো হয়তো এদেরও কিছু হবে না, কিন্তু একটা জাতিকে ধ্বংসের জন্য অপরাজনীতির জনকদের একদিন ইতিহাসের কাঠগড়ায় দাঁড়াতে হবে। এদের বিচার হয়তো জনগণ করতে পারবে না, কিন্তু ভবিষ্যৎ প্রজন্মের ঘৃণার থুথু এরা কেয়ামত পর্যন্ত পেয়ে যাবে। আমি মনে করি না ফ্রাঙ্কেনস্টাইন দানবদের রুখে দেয়ার ক্ষমতা তাদের সৃষ্টিকর্তাদের আছে। ইতিহাস বলে দানবই তার স্রষ্টাকে খেয়ে ফেলে। ফেসবুক থেকে

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ