প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

রাডার রক্ষণাবেক্ষণে বাংলাদেশ চায় শুধুই বাংলাদেশি কর্মী, যৌথ কর্মী চায় ভারত

আসিফুজ্জামান পৃথিল : দুই দেশেরই নিরাপত্তা বিশ্লেষকরা বলছেন, সমুদ্রপথে আসা বিভিন্ন ধরণের হুমকি মোকাবেলায় এই রাডার ব্যবস্থা উভয় দেশের জন্যই কার্যকরী হবে। তবে ঢাকা এবং দিল্লির মধ্যে এই সহযোগিতা চীনের সঙ্গে বাংলাদেশের সম্পর্কে নেতিবাচক প্রভাব ফেলতে পারে বলে বিশ্লেষকরা মনে করেন। ভারত অতীতে মরিশাস, সেশেলস এবং মালদ্বীপে এ ধরণের রাডার ব্যবস্থা স্থাপন করেছে। মিয়ানমারে একই ধরণের ব্যবস্থা স্থাপনের জন্য আলোচনা চলছে। বিবিসি

দেশের উপকূলে ভারতের যে রাডার সিস্টেম বসাতে দুই দেশের মধ্যে সমঝোতা হয়েছে, তার ধরণ এবং ব্যবহার কী হবে, তা এখনো পরিষ্কার নয়। সমুদ্রপথে চীনের সামরিক গতিবিধি নজরে রাখার জন্য ভারত এই নেটওয়ার্ক গড়ে তুলছে বলে অনেকে মনে করেন। তবে অন্যরা এই ব্যাখ্যাকে ‘ভয় বিক্রির চেষ্টা’ বলে আখ্যায়িত করেছেন। সমঝোতা স্মারকে বলা হয়েছে, এর মাধ্যমে বঙ্গোপসাগর অঞ্চলে যৌথভাবে একটি ‘কোস্টাল সার্ভেইল্যান্স’ বা উপকূলীয় নজরদারি ব্যবস্থা চালু করা সম্ভব হবে।

তবে এই রাডার উপকূলের কোথায় স্থাপন করা হবে কিংবা এই ব্যবস্থা পরিচালনার দায়িত্বে কারা থাকবে সে বিষয় এখনো অস্পষ্ট। স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক উচ্চপদস্থ কর্মকর্তা বলেছেন, রাডার ব্যবস্থা স্থাপনের পর তার পরিচালনার দায়িত্বে কারা থাকবে সে বিষয়ে এখনো কোন সিদ্ধান্ত নেয়া হয়নি। বাংলাদেশের পক্ষ থেকে রাডার পরিচালনায় শুধুমাত্র বাংলাদেশের লোকবল ব্যবহারের প্রস্তাব রয়েছে। কিন্তু ,ভারতের পক্ষ থেকে যৌথ লোকবল ব্যবহারের প্রস্তাব দেয়া হয়েছে। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এই কর্মকর্তা বলেন, ‘এ বিষয়ে আলোচনা এখনো চলছে। কোন সিদ্ধান্ত হয়নি।’

তবে ভারতের নৌবাহিনীর সাবেক কর্মকর্তা এবং দিল্লির সোসাইটি ফর পলিসি স্টাডিজের পরিচালক কমোডোর উদয় ভাস্কর বলেন, এ ধরণের প্রকল্পে রাডার ব্যবহারের ক্ষেত্রে লোকবল সাধারণত যৌথভাবেই সরবরাহ করা হয়। এক্ষেত্রে মরিশাস ও মালদ্বীপে রাডার ব্যবস্থা স্থাপনের উদাহরণ তুলে ধরেন ভাস্কর। তিনি বলেন, ভারত মহাসাগর অঞ্চলের দেশগুলোকে উন্নত নজরদারি সক্ষমতা বাড়াতে এই অঞ্চলের দেশগুলোকে প্রযুক্তি সহায়তা দিয়ে যাচ্ছে। যার অংশ হিসেবে মরিশাস, সেশেলস, মালদ্বীপে রাডার ব্যবস্থা স্থাপন করা হয়েছে।

বাংলাদেশের উপকূলে অবৈধভাবে মাছ ধরার নৌযান অনুপ্রবেশ ছাড়া আর কোনো বড় ধরণের হুমকি সাধারণত এখনো পর্যন্ত পাওয়া যায়নি। এছাড়া সাগরে পাইরেসি বা জলদস্যুদের একটা হুমকির কথা বলা হলেও তা এ অঞ্চলে খুব কম বলে জানান নিরাপত্তা বিশেষজ্ঞরা। বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব ইন্টারন্যাশনাল এন্ড স্ট্র্যাটেজিক স্টাডিজের চেয়ারম্যান মুন্সী ফয়েজ আহমেদ বলেন, উপকূলীয় এলাকায় নিরাপত্তা হুমকির মধ্যে রয়েছে পাইরেসি বা দস্যুতা, বিশেষ করে বন্দর এলাকায় চুরি ও ডাকাতি বড় সমস্যা।

তিনি বিবিসিকে বলেন, ‘এছাড়া বেআইনিভাবে মাছ শিকার, প্রাকৃতিক সম্পদ চুরি, বিদেশি ট্রলারের অনুপ্রবেশ ও অবৈধ মাছ শিকার, বিভিন্ন ধরণের প্রাকৃতিক দুর্যোগ প্রায়ই দেখা যায়। এসব বিষয় নিরাপত্তার জন্য বড় হুমকি। তবে দূরবর্তী হুমকি, যেমন, বিদেশি আগ্রাসী শক্তি। তবে আজকাল এ ধরণের হুমকির চিন্তা কেউ করে না যে এ ধরণের আশঙ্কা রয়েছে। তবে দুদেশের সীমান্ত যে এলাকা রয়েছে সেখানে কিছুটা হুমকি থাকতে পারে।’

আরেক নিরাপত্তা বিশ্লেষক অবসরপ্রাপ্ত ব্রিগেডিয়ার জেনারেল এম. সাখাওয়াত হোসেন ভিন্ন মত দিয়েছেন। তিনি বলেন, কৌশলগত দিক বিশ্লেষণ করলে দেখা যায় যে, এধরণের রাডার শুধু বাংলাদেশ নয় বরং মরিশাস ও সেশেলস-সহ আরো কয়েকটি দেশে বসিয়েছে। তিনি বলেন, ‘‘আন্দামানে ভারত একটি নেভাল এয়ারবেজ করেছে। এই দ্বীপপুঞ্জটি চীনের জাহাজগুলো মিয়ানমারে আসার পথের খুব কাছাকাছিতে অবস্থিত। আর তাই আসলে চীনের গতিবিধি নজরদারিতে আনার জন্য ভারত সেই সেশেলস থেকে এটা করে আসছে।’

মালবাহী জাহাজের চলাচল ছাড়া অন্যান্য জাহাজের গতিবিধির উপরও নজরদারি করা হবে বলে তিনি মনে করেন। তার মতে, ‘ভারত-চীন-যুক্তরাষ্ট্র উঠতি শক্তি হিসেবে যে একটি কৌশলগত প্রতিযোগিতা চালিয়ে যাচ্ছে তার একটি উপাদান হতে পারে এটি।’ তিনি বলেন, ভারত, যুক্তরাষ্ট্র ও জাপান মিলে বঙ্গোপসাগরে একটি আন্ডার-ওয়াটার সারভেইল্যান্স সিস্টেম বা পানির নিচে নজরদারি ব্যবস্থা গড়ে তুলতে চাইছে। এই নজরদারি ব্যবস্থা যুক্ত হবে কোস্টাল সার্ভেইল্যান্স সিস্টেমের সঙ্গে।

এজেডপি/এসবি

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত