প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

উপাচার্যের পদত্যাগ দাবিতে একাট্টা বুয়েট

ডেস্ক রিপোর্ট : বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) শিক্ষার্থী আবরার ফাহাদকে পিটিয়ে হত্যার ঘটনায় উপাচার্য সাইফুল ইসলামের পদত্যাগের দাবিতে একাট্টা হয়েছেন বিশ্ববিদ্যালয়টির সাবেক-বর্তমান শিক্ষার্থী ও শিক্ষকরা। উপাচার্যের প্রশাসনিক ব্যর্থতার কারণে আবরার খুন হয়েছেন দাবি করে পরবর্তী ৭২ ঘণ্টার মধ্যে তার পদত্যাগ চেয়েছেন তারা।দেশ রূপান্তর

বুধবার ১০ দফা দাবিতে আন্দোলনরত শিক্ষার্থী, এলামনাই অ্যাসোসিয়েশন ও শিক্ষক সমিতি পৃথকভাবে উপাচার্যের কর্মকাণ্ডের সমালোচনা করে তার পদত্যাগ দাবি করেন। তাদের ভাষ্য, উপাচার্যের অদক্ষতার কারণেই ছাত্রহত্যার মতো ঘটনা ঘটেছে, বুয়েটে যে অস্থির রাজনৈতিক পরিবেশ সৃষ্টি হয়েছে। এই দায় তাকে নিয়ে তাকে দ্রুত পদত্যাগ করতে হবে। এজন্য সরকারের হস্তক্ষেপও চেয়েছেন তারা।

বিকেলে বুয়েটের প্রধান ফটকের সামনে ১০ দফা দাবিতে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের সঙ্গে সংহতি জানাতে আসেন বুয়েট শিক্ষক সমিতির নেতারা। এসময় আবরার হত্যার ঘটনায় নিজেদেরও দায় আছে বলে শিকার করেছেন তারা। শিক্ষক সমিতির সভাপতি অধ্যাপক এ কে এম মাসুদ বলেন, সকাল সাড়ে ১০টা থেকে আড়াইটা পর্যন্ত শিক্ষক সমিতির সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। আমাদের সর্বমোট চারশোর বেশি শিক্ষক রয়েছেন। আজ ছুটির দিন হওয়ার পরও ৩০০ শিক্ষক উপস্থিত ছিলেন। সবাই তাদের মতামত দিয়েছেন। অনেকে খুব ইমোশনাল বক্তব্য দিয়েছেন। তারা বলেছেন, আবরার হত্যার দায় আমরাও এড়াতে পারি না। ক্যাম্পাসে আজ যে পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে তার জন্য আমরা শিক্ষকরাই দায়ী। বুয়েট শিক্ষক পরিবার আবরারের পরিবারের কাছে ক্ষমাপ্রার্থী। আমরা শিক্ষক সমাজ এবং প্রশাসনের যারা রয়েছেন তারা ছাত্রদের নিরাপত্তা দিতে ব্যর্থ হয়েছি। আগে থেকে পদক্ষেপ নিলে আজ এই পরিস্থিতির সৃষ্টি হতো না, এর দায় আমরাও নিচ্ছি।

এরপর শিক্ষক সমিতির সভায় নেওয়া বিভিন্ন সিদ্ধান্তের কথা তুলে ধরেন অধ্যাপক মাসুদ। অধ্যাপক মাসুদ বলেন, উপাচার্যের অদক্ষতা-অসহযোগিতার কারণে ক্যাম্পাসে এমন ভয়াবহ পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে। আবরার হত্যায় প্রশাসনিক ব্যর্থতার দায় নিয়ে তাকে পদত্যাগ করতে হবে। একজন অদক্ষ ভিসির জন্য আমাদের প্রাণের প্রতিষ্ঠানের সম্মান নষ্ট হতে দেব না।

এ আগে দুপুরে আবরার ফাহাদকে হত্যায় জড়িতদের সর্বোচ্চ শাস্তি নিশ্চিত করাসহ ১০ দফা দাবিতে সড়ক অবরোধ করেন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা। দুপুর ১২টার দিকে বকশিবাজার থেকে পলাশী মোড় পর্যন্ত সড়কের দুই পাশে ব্যারিকেড দিয়ে সড়ক অবরোধ করেন তারা।

এর আগে সকালে বুয়েট কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার প্রাঙ্গণে এ ঘোষণা দেন আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীরা। সেখানে শিক্ষার্থীদের পক্ষ থেকে ১০ দফা দাবি তুলে ধরে বলা হয়, সেগুলো পূরণ না হওয়া পর্যন্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের অ্যাকাডেমিক কার্যক্রম বন্ধ থাকবে।

বুয়েট ক্যাফেটেরিয়ায় বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাক্তন শিক্ষার্থীদের সংগঠন বুয়েট এলামনাই আবরার হত্যায় ভিসিকে দায়ী করে তার পদত্যাগসহ সাত দফা দাবি জানিয়েছে।

এলামনাই সভাপতি অধ্যাপক জামিলুর রেজা চৌধুরী বলেন, অতীতে ঘটে যাওয়া বিভিন্ন অপরাধ কার্যক্রম এর তদন্ত, বিচার ও শাস্তি প্রদানের ড়্গেত্রে উপাচার্যসহ বুয়েট প্রশাসনের ধারাবাহিক অবহেলা ও ব্যর্থতা এই নির্মম হত্যাকাণ্ডের মদদ জুগিয়েছে।

অবিলম্বে উপাচার্যের অপসারণসহ প্রশাসনের আমূল পরিবর্তন করে এই ঐতিহ্যবাহী প্রতিষ্ঠানের মান অতীতের মতো সমুন্নত রাখতে সুযোগ্য, নির্ভীক ও নিরপেক্ষ ব্যক্তিদের পদায়ন করতে হবে।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত