প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

প্রতিমা তৈরিতে ব্যস্ত সময় পার করছেন নারায়ণগঞ্জের শিল্পীরা

নিউজ ডেস্ক : শারদীয় দুর্গাপূজাকে সামনে রেখে নারায়ণগঞ্জের পূজা মণ্ডপগুলোতে পুরোদমে চলছে প্রতিমা তৈরির কাজ। দিনরাত কাজ করছেন প্রতিমা শিল্পীরা। এবারের উৎসবকে সফলভাবে সম্পন্ন করতে নানা পরিকল্পনা হাতে নিয়েছেন মণ্ডপের আয়োজক ও পূজা উদযাপন কমিটির নেতারা। আর সর্বোচ্চ নিরাপত্তা দিতে প্রস্তুত পুলিশ প্রশাসনও। সময় টিভি

বাতাসে শরতের শুভ্র কাশফুলের দোল খাওয়া সবাইকে স্মরণ করিয়ে দেয় দেবী দুর্গার আগমনের বার্তা। সামনেই হিন্দু সম্প্রদায়ের সবচে বড় ধর্মীয় উৎসব শারদীয় দুর্গাপূজা। উৎসবকে সামনে রেখে প্রতিমা তৈরির কাজ চলছে নারায়ণগঞ্জের প্রতিটি পূজামণ্ডপে। সকাল থেকে গভীর রাত পর্যন্ত প্রতিমা তৈরিতে ব্যস্ত প্রতিমা শিল্পীরা। কোন কোন মণ্ডপে এখনো কাঁচামাটির প্রতিমা বানানো হচ্ছে। কোন মণ্ডপে মাটির প্রতিমার উপর সাদা প্রলেপ আবার কোন মণ্ডপে শুরু হয়েছে রঙের কাজও। শিল্পীর রং তুলির আঁচড়ে নানা বর্ণে সাজানো হচ্ছে দেবী দুর্গাকে। তবে টানা আঠারো থেকে বিশ ঘণ্টা কাজ করেও ন্যায্য পারিশ্রমিক না পাওয়ায় প্রতিমা শিল্পীরা হতাশ।
পূজা উপলক্ষে মণ্ডপগুলো সাজানোর কাজসহ শহরের বিভিন্ন সড়কে চলছে বড় বড় তোরণ নির্মাণের কাজ। উৎসবের আমেজ ছড়িয়ে পড়েছে হিন্দু সম্প্রদায়ের প্রতিটি পরিবারে। পূজার কেনাকাটাসহ নানা প্রস্তুতি নিচ্ছেন নারী-পুরুষ সবাই।

দুর্গাপূজা উৎসবকে শান্তিপূর্ণভাবে উৎযাপন করতে মণ্ডপগুলোকে সিসি ক্যামেরায় সার্বক্ষণিক পর্যবেক্ষণসহ কয়েক হাজার স্বেচ্ছাসেবক কাজ করবেন বলে জানান আয়োজক ও পূজা উদযাপন কমিটির নেতারা।

নারায়ণগঞ্জ জেলা পূজা উদযাপন কমিটির সাধারণ সম্পাদক শিখন সরকার শিপন বলেন, প্রশাসনের কাছে আমাদের দাবি মানুষ যাতে আসার সময় ছিনতাইকারীর কবলে না পড়ে এবং দর্শনার্থীরা আসার সময় যাতে কোনো দুর্ঘটনায় না পড়েন।

শারদীয় উৎসব শান্তিপূর্ণভাবে সম্পন্ন করতে পুলিশ প্রশাসনের পক্ষ থেকে সব ধরনের প্রস্তুতি নেয়া হচ্ছে।

নারায়ণগঞ্জের পুলিশ সুপার মোহাম্মদ হারুন অর রশিদ বলেন, মানুষের নিরাপত্তার জন্য পর্যাপ্ত সংখ্যক পুলিশ ও আনসার সদস্য নিয়োজিত থাকবে।

জেলার পাঁচটি উপজেলায় স্থায়ী-অস্থায়ী মিলে ২০৫টি পূজামণ্ডপ ও মন্দিরে এবার শারদীয় দুর্গাপূজা অনুষ্ঠিত হবে।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত