প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

২৬/১১, ৯/১১ হামলাকারীদের কোথায় পাওয়া গিয়েছিল, পাকিস্তানকে প্রশ্ন মোদীর

রাশিদ রিয়াজ : যুক্তরাষ্ট্রের হিউস্টনে বিশাল সমাবেশে রোববার মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের সঙ্গে একমঞ্চে উঠলেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। প্রথম ১০০ দিনের সাফল্য হিসেবে জম্মু ও কাশ্মীরের পদক্ষেপ তুলে ধরে পাকিস্তানকে ইঙ্গিত করে ভারতের প্রধানমন্ত্রী মোদি বলেন, “ভারত যা করছে, তা কিছু লোকের সমস্যা হয়েছে যারা নিজের দেশই সামলাতে পারে না”। ৩৭০ অনুচ্ছেদ প্রত্যাহারের মাধ্যমে বৈষম্য ও সন্ত্রাসবাদকে দূর করার পদক্ষেপ নেয়ার কথা তুলে ধরে মার্কিন নেতাদের উপস্থিতিতে বললেন প্রধানমন্ত্রী বলেন, “সন্ত্রাসবাদ এবং যারা তাদের সমর্থন করে, তাদের বিরুদ্ধে চূড়ান্ত লড়াইয়ের সময় এসেছে”, পাকিস্তানকে প্রচ্ছন্ন সতর্কবার্তা দিয়ে তিনি মনে করিয়ে দিলেন, সন্ত্রাসবাদের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে, ভারতের দিকেই রয়েছে আমেরিকা।

একই অনুষ্ঠানে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প বললেন, “আমার থেকে ভারতের ভাল বন্ধু কখনও ছিল না”। নয়াদিল্লি পরিষ্কার জানিয়ে দিয়েছে, কাশ্মীর, ভারত ও পাকিস্তানের দ্বিপাক্ষিক ইস্যু এবং সম্প্রতি সেখানে যে পদক্ষেপ করা হয়েছে, তা রাজ্যের উন্নয়ন করার লক্ষ্যে, সেখানে বাড়ছিল সন্ত্রাসবাদ। পাকিস্তানের নিন্দা করে—মোদি বলেন, তারা “ভারতের প্রতি ঘৃনা পুষে রেখেছে, সেটাই তাদের মূল নীতি। তারা সন্ত্রাসবাদকে সমর্থন করে, তারা সন্ত্রাসবাদকে প্রশয় দেয়”। তবে তিনি কারও নাম নেননি। প্রধানমন্ত্রী বলেন, “আমেরিকার ৯ /১১ হোক, বা মুম্বইয়ের ২৬/১১, এই হামলার চক্রান্তকারীদের কোথায় পাওয়া গিয়েছিল? শুধুমাত্র আপনারা নন, সারা বিশ্ব জানে, তারা কারা”। ৯ /১১ হামলার মূলচক্রী ওসামা বিন লাদেন, ২০১১-এ প্রায় একদশক ধরে সন্ধান চালানোর পর, পাকিস্তানের এ্যাবেটাবাদে তাকে হত্যা করে আমেরিকা। মুম্বাইয়ে ২৬/১১ হামলা করেছিল পাকিস্তানের জঙ্গি সংগঠন লস্কর-ই-তৈয়বা”।

প্রধানমন্ত্রী মোদি বলেন, “আমি জোর দিতে চাই যে, প্রেসিডেন্ড ট্রাম্প এই বিষয়ে কঠোরভাবে এর বিরুদ্ধে দাঁড়িয়েছেন। আমি তাঁর এই প্রচেষ্টার জন্য তাঁকে উঠে দাঁড়িয়ে সম্মান জানাতে চাই”। একই সঙ্গে গতমাসে ভারতের যে সমস্ত সাংসদরা ৩৭০ অনুচ্ছেদ বাতিলে বিলটিকে অনুমোদন করেছিলেন, তাদের সম্মানে উঠে দাঁড়িয়ে সম্মান প্রদর্শনে অনুরোধ করলেন তিনি। সমবেত উল্লাসের মধ্যেই তিনি বলেন, “আমরা আরও একটি বিষয়কে বিদায় দিয়েছি, যা ৭০ বছরের বড় চ্যালেঞ্জ ছিল…সংবিধানের ৩৭০ ধারা অনুচ্ছেদ হচ্ছে এটি। মোদী বলেন, “উন্নয়ন ও অধিকার থেকে জম্মু ও কাশ্মীর এবং লাদাখের বাসিন্দাদের বঞ্ছিত করে রেখেছিল ৩৭০ ধারা। নিজেদের সুবিধার জন্য একে কাজে লাগিয়েছে সন্ত্রাসবাদী ও বিচ্ছিন্নতাবাদীরা। এখন জম্মু ও কাশ্মীর এবং লাদাখের বাসিন্দারা প্রত্যেক ভারতীয়ের মতো সমান অধিকার পাবে”।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, “ঘন্টার পর ঘন্টা এই পদক্ষেপটি নিয়ে আলোচনা হয়েছে আমাদের সংসদের দুই কক্ষেই, সারা বিশ্বজুড়ে তা লাইভ সম্প্রচার হয়েছে। যদিও উ”চকক্ষে আমাদের সংখ্যাগরিষ্ঠতা নেই, তাতেও দুই কক্ষেই, বিলটি দুই তৃতীয়াংশ সংখ্যাগরিষ্ঠতা নিয়ে পাশ হয়েছে”। পাশাপাশি তিনি আরও বলেন, “আপি আপনাদের অনুরোধ করব, ভারতের সাংসদদের জন্য উঠে দাঁড়িয়ে সম্মান প্রদর্শন করতে”।

চিরপরিচিত কুর্তা ও জ্যাকেটেই হাউডি মোদি অনুষ্ঠানে এসেছিলেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী মোদি। অনুষ্ঠানে প্রবাসী ভারতীয়দের পাশাপাশি ছিলেন মার্কিন সাংসদরাও।

 

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ