প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

ধর্ষণের অভিযোগে গ্রেপ্তার বিজেপি নেতা চিন্ময়ানন্দ ১৪ দিনের জেল হেফাজতে

সাইফুর রহমান : ভারতের উত্তর প্রদেশে আইন কলেজের এক ছাত্রীর আনা ধর্ষণের অভিযোগের ভিত্তিতে ভারতের সাবেক কেন্দ্রীয় মন্ত্রী এবং বিজেপির প্রবীন এই নেতার বিরুদ্ধে এমন নির্দেশ দিয়েছেন আদালত। তার বিরুদ্ধে অভিযোগ, কলেজে ভর্তি হবার পর থেকে এক বছর পর্যন্ত ব্ল্যাকমেইল করে তরুণীটির উপর যৌন নির্যাতন চালিয়েছেন তিনি। পাঁচ দিন আগে আদালত বাদীর বক্তব্য নেয়ার পর শুক্রবার সকাল ৮টার দিকে চিন্ময়কে গ্রেপ্তার করা হয়। এদিকে বাদীর আইনজীবি দাবি করেছেন, পুলিশের দেয়া চার্জশীটে চিন্ময়ানন্দের বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগ আনা হয়নি বরং সুযোগের অপব্যবহার করে যৌন সম্পর্ক স্থাপন করেছে বলা হয়েছে যা ধর্ষণের পর্যায়ে পড়ে না। ধর্ষণের সরাসরি অভিযোগ আনা হলে তার ৫ বছরের কারাদন্ডসহ অর্থদণ্ড হবার সম্ভাবনা ছিল।

এর আগে ওই তরুণী অভিযোগ দায়ের করার পরপরই শারীরিকভাবে অস্থির ও দূর্বল বোধ করছেন একথা জানানোর পর তাকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছিল। উত্তরপ্রদেশে একাধিক আশ্রম ও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান পরিচালনা করেন এই ক্ষমতাবাবান রাজনীতিক। ভূক্তভোগী তরুণী অভিযোগ দায়েরের পর প্রায় একমাস পুলিশ অভিযোগ আমলে নেয়নি বলেও অভিযোগ রয়েছে। ইয়ন

সোমবার বাদীর স্বাক্ষ্য গ্রহণের জন্য জন্য ২৩ জন নারী পুলিশ সদস্যের কড়া পাহারায় তাকে আদালতে হাজির করা হয়। চিন্ময়ানন্দ পরিচালিত রাজ্যের শাহজাহানপুরের একটি আইন কলেজের দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্রী তিনি। এই বিজেপি নেতার নাম উল্লেখ না করে গত ২৪ আগস্ট ফেইসবুকে একটি পোষ্ট দিয়ে ওই তরুণী নিখোঁজ হন। তার পরেই ঘটনাটি প্রকাশ্যে আসে। তার পরিবার চিন্ময়ের বিরুদ্ধে অপহরণের অভিযোগ তোলে। নিরুদ্দেশ হবার ৬ দিন পর পুলিশ তাকে উদ্ধার করে।

চিন্ময়ের বিরুদ্ধে অভিযোগ, তিনি ওই তরুণীকে তার স্নানের একটি ভিডিও ক্লিপ দেখিয়ে ব্ল্যাকমেইল করে একাধিকবার ধর্ষণ করেন। এছাড়া, চিন্ময়ানন্দের সহকারীরা প্রায়ই তাকে বন্দুক ঠেকিয়ে তার ঘরে নিয়ে যেতো বলেও অভিযোগ করেন এই তরুণী । এরপর তিনি চশমায় স্পাই ক্যামেরা লাগিয়ে নির্যাতনের ভিডিও ধারণ করে আদালতে অভিযোগ দাখিল করেন। এই অভিযোগে অভিযুক্ত চিন্ময়কে গত এক সপ্তাহে সাত ঘণ্টা জিজ্ঞাসাবাদ করে পুলিশ। সম্পাদনা : ইকবাল খান

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ