প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

সম্মেলন সফল করতে আওয়ামী লীগের ১২টি উপ-কমিটি গঠনের প্রস্তাব জানালেন কাদের

সমীরণ রায় : আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, আসন্ন আওয়ামী লীগের ২০-২১ ডিসেম্বর জাতীয় সম্মেলনকে সামনে রেখে ১২টি উপ-কমিটি গঠনের প্রস্তাব করা হয়েছে। এই কমিটিগুলো বৈঠকে প্রস্তাব আকারে তৈরি হয়েছে। এগুলো দলীয় সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে দেখানো হবে। তিনি অনুমোদন দিলেই কমিটি তাদের কাজ শুরু করবে।

বুধবার ধানমন্ডিতে আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার রাজনৈতিক কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত সম্পাদকমণ্ডলীর বৈঠক শেষে এক সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানান তিনি।

এসময় আরও উপস্থিত ছিলেন আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব-উল আলম হানিফ, জাহাঙ্গীর কবির নানক, আব্দুর রহমান, সাংগঠনিক সম্পাদক আহমদ হোসেন, বিএম মোজাম্মেল হক, আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিম, খালিদ মাহমুদ চৌধুরী, একেএম এনামুল হক শামীম, মিসবাহ উদ্দিন সিরাজ, মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল, দপ্তর সম্পাদক আবদুস সোবহান গোলাপ, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক প্রকৌশলী আবদুস সবুর, বন ও পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদক দেলোয়ার হোসেন, তথ্য ও গবেষণা বিষয়ক সম্পাদক অ্যাডভোকেট আফজাল হোসেন,উপ দপ্তর সম্পাদক ব্যারিস্টার বিপ্লব বড়ুয়া প্রমুখ।

ওবায়দুল কাদের বলেন, ১০ ডিসেম্বরের আগে আওয়ামী লীগের বিভিন্ন জেলা মহানগর ও উপজেলা থানা ও পৌর কমিটি কে সম্মেলন করার নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। আমাদের বিভাগীয় দায়িত্বপ্রাপ্ত যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও সাংগঠনিক সম্পাদক ১৫ অক্টোবর থেকে প্রতিটি ইউনিটে বর্ধিত সভার মাধ্যমে সম্মেলনের তারিখ ঘোষণা করবেন। ঢাকা মহানগর উত্তর-দক্ষিণ সহ সকল ইউনিট এ সম্মেলনের জন্য প্রস্তুতির যাবতীয় নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। সেই সঙ্গে আমাদের যত সহযোগী সংগঠন রয়েছে তাদের কেউ সম্মেলন করার জন্য প্রস্তুতির কথা বলা হয়েছে।

সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক বলেন, আওয়ামী লীগের কেউ অপকর্ম করলে আমাদের দলে তার শাস্তির ব্যবস্থা আছে। অন্য কোনো রাজনৈতিক দলের তা নেই। অপকর্মকারীদের বিরুদ্ধে দলীয়ভাবে আমরা যেমন সিদ্ধান্ত নিচ্ছি তেমনি দুর্নীতি দমন কমিশনকে স্বাধীন রাখা হয়েছে।

ওবায়দুল কাদের বলেন, ২০ তারিখ সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে সম্মেলনের উদ্বোধন হবে বিকেল সাড়ে তিনটায়, পরের দিন ২১ তারিখও কাউন্সিল অধিবেশন চলবে।

বিভিন্ন ইউনিটের মেয়াদোত্তীর্ণ কমিটির বিষয়ে তিনি বলেন, মেয়াদোত্তীর্ন কমিটিগুলো নিয়ে আমাদের যারা বিভাগীয় পর্যায়ে সমন্বয় করছে তারা প্রায়োরিটি বেসিসে সেসব ইউনিটে সম্মেলনের দিন তারিখ ঠিক করবেন। ১০ ডিসেম্বরের মধ্যে মেয়াদোত্তীর্ন কমিটিগুলোর সম্মেলন শেষের সার্কুলার ইতোমধ্যে আমরা জেলায় পাঠিয়ে দিয়েছি।

এত স্বল্প সময়ে মেয়াদোত্তীর্ণ কমিটির সম্মেলনের আয়োজন সম্ভব কি না জানতে চাইলে তিনি বলেন, তিন বছরে অনেক কমিটি হয়েছে এ সময়ে যেগুলোর কাউন্সিল অনেক আগে হয়েছিল। আমরা কুমিল্লা সিটি কর্পোরেশনের কমিটি ২২ বছর পরে দিয়েছি, নারায়নগঞ্জের কমিটি ১৭ বছর পর দিছি, ময়মনসিংহের কমিটিও হয়েছে অনেক দিন পরে। আওয়ামী লীগ ইচ্ছে করলে পারে। আমাদের টিম ওয়ার্ক আছে।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ