প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

অভিযোগ, এক জাহাজ দুবার কিনে মেঘনা গ্রুপ শত কোটি টাকা পাচার করেছে

আহমেদ শাহেদ : পণ্যবাহী বড় জাহাজটির নাম ছিলো ওশান প্যারাডাইজ’, যেটি নামবদল হয়ে এখন মেঘনা প্যারাডাইজ’ নামে মেঘনা গ্রুপের পণ্য বিশ্বের বিভিন্ন দেশ থেকে পরিবহন করছে। এই জাহাজটি নিয়ে ঘাপলা, ১০০ কোটি টাকার হিসেব নেই। মেঘনা গ্রুপের নতুন কারখানা সুগার রিফাইনারির মেশিনারিজ আমদানির মাধ্যমে টাকা পাচার করা হয়েছে বলে জানা গেছে। বাংলাদেশ প্রতিদিন

জানা গেছে, ওশান প্যারাডাইজ’ জাহাজটি প্রশান্ত মহাসাগরে অবস্থিত মার্শাল আইল্যান্ড থেকে নিবন্ধিত হয়ে বিভিন্ন দেশে পণ্য পরিবহন করছিলো। ১২ বছর চলার পর পুরনো এই জাহাজ ২০১৮ সালের জানুয়ারি মাসে কিনে নেন মেঘনা গ্রুপের চেয়ারম্যান মোস্তফা কামালের ছেলে তানভীর আহমেদ মোস্তফা। বিদেশে ইমপেরিয়াল ট্রেডিং কোম্পানি লিমিটেডের নামে একটি প্রতিষ্ঠান খুলে সাড়ে ৬২ লাখ মার্কিন ডলারে জাহাজটি তিনি কিনে নেন। রিপাবলিক অব মার্শাল আইল্যান্ডের মেরিটাইম অ্যাডমিনিস্ট্রেটর গাই ই সি মাইথার্ড ২০১৮ সালের ২২ জানুয়ারি সেটির নিবন্ধন সনদে স্বাক্ষর করেন।

কিন্তু সেই টাকা কোত্থেকে এলো এবং বাংলাদেশ থেকে টাকা কীভাবে সেই প্রতিষ্ঠানে গেল, তার কোনো হদিস নেই। জানা গেছে, তানভীর আহমেদ মোস্তফার নামে কেনা ওশান প্যারাডাইজ জাহাজটি মেঘনা গ্রুপের সিমেন্ট ক্লিংকারসহ বিভিন্ন ভোগ্যপণ্য আমদানির কাজে ব্যবহৃত হতো। কিন্তু বাংলাদেশে সেটি দেখানো হতো ভাড়া হিসেবে।

২০১৮ সালের জানুয়ারিতে জাহাজ কেনার পর ৯ মাস ধরে পণ্য পরিবহনের পর এই জাহাজ ২০১৮ সালের নভেম্বর মাসে আবার কেনা হয় ইউনিক সিমেন্ট ইন্ডাস্ট্রিজের নামে। ইউনিক সিমেন্ট ইন্ডাস্ট্রিজ মেঘনা গ্রুপের অঙ্গপ্রতিষ্ঠান। এবার জাহাজটি কেনা দেখানো হয় সিঙ্গাপুরের জাহাজ ব্রোকার প্রতিষ্ঠান অলইউনাইটেড অ্যান্ড ট্রেডিং প্রাইভেট লিমিটেড থেকে। তাদের ঠিকানা ৩ শেনটন ওয়ে, ১৩ শেনটন হাউস, সিঙ্গাপুর। প্রতিষ্ঠানের পরিচালক মোহাম্মদ ইরশাদ আলী জাহাজ বিক্রয়পত্রে স্বাক্ষর করেন। তিনি ৬২ লাখ ৪২ হাজার মার্কিন ডলারে (বাংলাদেশি টাকায় ৫৩ কোটি টাকা) এই জাহাজ বিক্রি করেন ইউনিক সিমেন্ট ইন্ডাস্ট্রিজের কাছে।

আর এ ক্ষেত্রে টাকা দেয়া হয় স্ট্যান্ডার্ড চার্টার্ড ব্যাংক ঢাকা শাখার ইউনিক সিমেন্ট ইন্ডাস্ট্রিজ নামের অ্যাকাউন্ট থেকে। জাহাজটি কেনার জন্য ইউনিক সিমেন্ট ইন্ডাস্ট্রিজ ঢাকার স্ট্যান্ডার্ড চার্টার্ড ব্যাংক থেকে সাত বছর মেয়াদি ঋণ নেয়। ধাপে ধাপে সেটি পরিশোধ করবে মেঘনা গ্রুপ। খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, অলইউনাইটেড অ্যান্ড ট্রেডিং প্রাইভেট লিমিটেডের মালিক বাংলাদেশি নাগরিক। তারা মূলত কমিশনে জাহাজ বিক্রি করে থাকেন। এএস/এসবি

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ