প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

ঋণ খেলাপি সমাধানে নতুন আইন হচ্ছে
ঋণ খেলাপির সাথে জড়িত সবাইকে আইনের আওতায় আনা হবে, জানালেন অর্থমন্ত্রী

সাইদ রিপন: খেলাপি ঋণ সমাধানে নতুন আইন করা হবে। অতীতের ঋণ খেলাপির সঙ্গে যারা জড়িত আছে তাদের সবাইকে নতুন এই আইনের আওতায় আনা হবে। যদি কোনো ব্যাংক কর্মকর্তাও জড়িত থাকে তাদেরও নতুন আইনের আওতায় আনা হবে। মঙ্গলবার শেরেবাংলা নগরের এনইসি সম্মেলন কক্ষে রাষ্ট্রায়াত্ত ব্যাংকের প্রতিনিধিদের সঙ্গে বৈঠক শেষে এ কথা জানান তিনি।

অর্থমন্ত্রী বলেন, বর্তমানে ঋণ খেলাপির পরিমাণ কমিয়ে আনতে বিদ্যমান যে আইন আছে সেটারও বাস্তবায়ন করা হবে। তবে নতুন আইন হওয়ার পরে কেউ ঋণ নিতে চাইলে ব্যাংক পরিচালকদের পারসোনাল গ্যারান্টি নিতে হবে। যদি কোনো কারণে ঋণ গ্রহীতা ঋণ পরিশোধ করতে ব্যর্থ হয় তাহলে ব্যাংক পরিচালকদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। নিজেরদের মূল্যায়ন করার জন্য রাষ্ট্রায়াত্ত চারটি ব্যাংক তিন মাস পর পর আলোচনায় বসবে। সেখানে কে কী পরিমাণ মুনাফা করলেন? কী পরিমাণ ঋণ দেওয়া হলো এবং কোনো ঋণ খেলাপি নতুন করে যুক্ত হলে তা তুলে ধরা হবে। এগুলো করতে পারলে খেলাপি ঋণ বাড়বে না। মূলত আইনি প্রক্রিয়ার দুর্বলতার কারণেই খেলাপি ঋণ বেড়ে ছিলো। এখন খেলাপি ঋণ বাড়ার কোনো সুযোগ থাকবেনা।

মন্ত্রী বলেন, চারটি রাষ্ট্রায়াত্ত¡ ব্যাংক থেকে আমরা কর্মপরিকল্পনা নিয়েছি। যাতে করে ব্যাংকের রেভিনিউ বৃদ্ধি পায়। দিন শেষে আমাদের রেভিনিউ প্রফিট যেন বৃদ্ধি পায় এটা প্রধান উদ্দেশ্য। কারণ এই চারটি ব্যাংক অর্থনীতির বিশাল এলাকা কাভার করে থাকে। যেখানে ব্যাংকের একাধিক শাখা আছে সেগুলো স্থানান্তর করা হবে, যাতেকরে এক জনের কাস্টমার আরেক জন নিতে যাতে না পারে। আমরা ব্যাংকে হেলদি কমপিটিশন দেখতে চাই। তিন মাস পর পর চারটি ব্যাংক নিয়ে সভা করা হবে। আমাদের মূল্যায়ন আমরাই করবো। আমাদের বিরুদ্ধে আগে যা দেখেছেন সেগুলা দেখতে পাবেন না। আমরা চারটি ব্যাংকের প্রিন্টিং স্টেটমেন্ট কোয়ার্টালি দেবো। আমরা বিশ্বাস করি এদেশের মানুষের নিকট আমাদের দায়বদ্ধতা আছে সেখান থেকে আমরা কাজ করবো।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ