প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

রাজকোষ থেকে মন্ত্রীদের আয়কর মেটানো হয় ভারতের আরো পাঁচ রাজ্যেও!

রাশিদ রিয়াজ : দোষীর কাঠগড়ায় শুধুই উত্তরপ্রদেশ নয়। আছে ভারতের আরও পাঁচটি রাজ্য। কয়েক বছর ধরে মধ্যপ্রদেশ, ছত্তিসগড়, হরিয়ানা, উত্তরাখণ্ড এবং হিমাচল প্রদেশেও মানা হয় একই নিয়ম। রাজকোষ থেকে মন্ত্রীদের আয়কর মেটানো হয় ভারতের এই পাঁচ রাজ্যেও! কিছুদিন আগেই সামনে এসেছিল চাঞ্চল্যকর তথ্য। হইহই পড়ে গিয়েছিল গোটা ভারতে। ৪০ বছরের পুরনো আইনকে হাতিয়ার করে বিগত চার দশক ধরে উত্তর প্রদেশ সরকার মুখ্যমন্ত্রী ও মন্ত্রিসভার আরও বেশ কিছু মন্ত্রীর আয়কর মেটায় রাজকোষ থেকে। কারণ হিসেবে দেখানো হয়েছে, অর্থাভাব থাকায় এই সব মন্ত্রীরা তাদের আয়করের টাকা মেটাতে পারছেন না। সেই তালিকা থেকে বাদ যাননি বর্তমান প্রধানমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথ ও তার মন্ত্রীরা। সংবাদমাধ্যমে হইচই পড়ে যাওয়ায় ড্যামেজ কনট্রোলে নামে যোগী সরকার। মুখ রক্ষা তাগিদেই ৪০ বছরের পুরনো আইন বাতিল করে উত্তর প্রদেশ সরকার। জানানো হয়, এবার থেকে উত্তর প্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী-সহ সব মন্ত্রীকেই নিজেদের আয়কর নিজেদেরকেই মেটাতে হবে।

এই ঘটনার রেশ মিটতে না মিটতেই সামনে এল আরও কিছু চাঞ্চল্যকর তথ্য। দোষীর কাঠগড়ায় শুধুই উত্তরপ্রদেশ নয়। আছে ভারতের আরও পাঁচটি রাজ্য। গত বেশ কয়েক বছর ধরে মধ্যপ্রদেশ, ছত্তিসগড়, হরিয়ানা, উত্তরাখণ্ড এবং হিমাচল প্রদেশেও মানা হয় একই নিয়ম। রাজ্যের কোষাগার থেকে মেটানো হয় মুখ্যমন্ত্রী এবং মন্ত্রিসভার অন্যান্য মন্ত্রীদের বার্ষিক আয়কর। ১৯৬৬ সাল থেকে এই নিয়ম চালু রয়েছে হিমাচল প্রদেশ এবং হরিয়ানায়। একই অপরাধে দোষী ছিল পাঞ্জাবও। ২০১৮ সালের ১৮ মার্চ পর্যন্ত সে রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী ও মন্ত্রীদের আয়কর মেটানো হত রাজকোষ থেকে। মুখ্যমন্ত্রীর দায়িত্বে আসার পর The East Punjab Ministers’ Salaries Act, 1947 খারিজ করে দেন ক্যাপটেন অমরিন্দর সিং। মধ্যপ্রদেশে এই নিয়ম চালু রয়েছে ১৯৯৪ সালের ১ এপ্রিল থেকে। ২০০০ সালের ৯ নভেম্বর থেকে উত্তরাখণ্ডের ক্ষেত্রে শুধুমাত্র মুখ্যমন্ত্রী অথবা মন্ত্রিসভার অন্যান্য মন্ত্রীরাই নন, রাজকোষ থেকে আয়কর মেটানো হয় বিধানসভার স্পিকার, ডেপুটি স্পিকার এবং বিরোধী দল নেতার।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ