প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

রাজধানীর ৭০ ভাগ সড়ক দুর্ঘটনার কারণ পথচারীর পারাপার

আসিফ কাজল : নগর পরিকল্পনাবিদদের মতে আধুনিক নগরের জন্য ২৫ ভাগ সড়ক প্রয়োজন। অথচ ঢাকায় আয়তনের তুলনায় মোট সড়ক রয়েছে মাত্র আট ভাগ।র্ গত চার বছরে রাজধানীতে ১২শ সড়ক দুর্ঘটনা ঘটেছে। যার মধ্যে ৯শ দুর্ঘটনা ঘটেছে পথচারী পারাপারের কারণে। নিহত হয়েছেন আট শতাধিক মানুষ। গত ২০১৫ সাল থেকে ২০১৮ সাল পর্যন্ত পুলিশ রিপোর্টে এই তথ্য উঠে এসেছে।

সর্বশেষ ২০১৮ সালে ২৭০টি সড়ক দুর্ঘটনার মধ্যে ১৭৩টি দুর্ঘটনা পথচারীদের কারণে ঘটেছে। এছাড়াও গাড়ির মুখোমুখি সংঘর্ষে ১১টি, পাশাপাশি দুর্ঘটনায় ২০টি, ওভারটেকিং এর করতে গিয়ে একটি, পার্কিং থাকা অবস্থায় ৪টি ও রাস্তার মধ্যে খুটি বা ভাঙ্গাচোরা থাকার কারণে ৬টি এবং পেছন দিক থেকে ঢাক্কা মারার কারণে ২০টি সড়ক দুর্ঘটনা ঘটেছে।

পথচারীদের সড়ক পারাপার ও দুর্ঘটনার কারণ জানতে বাংলাদেশ এক্সিডেন্ট রিসার্চ ইন্সটিটিউটের (এআরআই) দেওয়া তথ্য অনুযায়ী, ঢকায় ৮৬টি ফুটওভার ব্রিজ রয়েছে। যার মধ্যে শুধুমাত্র দুটিতে চলন্ত সিড়ির ব্যবস্থা রয়েছে। এছাড়াও ওভারব্রীজগুলো ২৭ ফুট উচ্চতার কারণে বয়স্ক মানুষ থেকে সাধারণ পথচারীরা সড়ক পারাপারে ফুটওভার ব্রীজ ব্যবহারে আগ্রহ হারিয়েছেন। চলতি বছরের আগস্ট মাসে সারাদেশে ৩৯৫টি ও ঢাকায় ৩৮টি সড়ক দুর্ঘটনার জন্য ১৮টি দুর্ঘটনার কারণ পথচারী পারাপার।
বুয়েট এক্সিডেন্ট রিসার্চ ইন্সটিটিউটের (এআরআই) গবেষক শাহনেওয়াজ রাব্বী বলেন, আমাদের দেশের রাজধানীতে এখন পর্যন্ত ফুটপাতের কোন ম্যানুয়াল তৈরী হয়নি। কোন ফুটপাতের উচ্চতা ৩ ফিট আবার কোন ফুটপাতের উচ্চতা দুই ফিট যেকারণে মানুষ মূলসড়কে অনিয়ন্ত্রিতভাবে চলাচল করছে।

পথচারীরা জানান, যতটুকুই ফুটপাত রয়েছে তা অধিকাংশই বেদখলে। এছাড়াও ফুটপাতে মোটরসাইকেল চলাচল নিয়ন্ত্রন না করা ও যত্রতত্র অস্থায়ী দোকান থাকার কারণে সড়কের উপরে চলাচল করতে হচ্ছে।

ঢাকা পরিবহন সমন্বয় কর্তৃপক্ষের যানবহন প্রকৌশলী মো. আনিসুর রহমান বলেন, সমস্যা সমাধানে গত সপ্তাহে আমরা দুটি ওয়ার্কশপ করেছি। রাজধানীর ফুটপাত ব্যবস্থা উন্নয়নে বুয়েটের এআরআই এর সঙ্গে সমন্বিত উদ্যোগে ম্যানুয়েল তৈরীর পরিকল্পনার কাজ চলছে। আগামীতে যতগুলো ফুটওভারব্রীজ নির্মাণ করা হবে তার প্রত্যেকটিতেই চলন্ত সিড়ির ব্যবস্থা থাকবে।

নগর গবেষণা কেন্দ্রের চেয়ারম্যান নজরুল ইসলাম বলেন, শৃংখলা ভঙ্গ ও যান চলাচল পরিচালনা ব্যাবস্থার উন্নয়ন না ঘটানো পর্যন্ত এই চিত্রের কোনো পরিবর্তন হবে না। শুধুমাত্র ফুটওভার ব্রীজ ব্যাবহার নয়, ব্যস্ত সড়কে জেব্রা ক্রসিং এর সংখ্যাবৃদ্ধি ও আইনের প্রয়োগ ও জনসচেতনতা বৃদ্ধি হলে সড়ক দুর্ঘটনা কমে আসবে।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ