প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

এক বছর ধরে ধর্ষণ করেছেন বিজেপির চিন্ময়ানন্দ, অভিযোগ উত্তরপ্রদেশের তরুণীর

রাশিদ রিয়াজ : ওই তরুণী অভিযোগ জানান, উত্তরপ্রদেশের পুলিশকে তিনি বিশ্বাস করেন না। কেননা তার পরিবার শাহজাহানপুর জেলা প্রশাসন থেকে কোনও রকম সাহায্য পায়নি। তরুণীর অভিযোগ, ৭২ বছরের চিন্ময়ানন্দ তাকে এক বছর ধরে ধর্ষণ ও শারীরিক ভাবে নিগ্রহ করেছেন। উত্তরপ্রদেশের  আইনের ছাত্রী যিনি এক সপ্তাহ নিখোঁজ থাকার পরে বিজেপি নেতা ও প্রাক্তন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী চিন্ময়ানন্দের  বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগ এনেছেন, তিনি জানালেন এই ক’দিন তিনি আত্মগোপন করেছিলেন কারণ ভয় ছিল তার এবং তার পরিবারের প্রাণের ঝুঁকি রয়েছে।

২৩ বছরের ওই তরুণী তিনবারের সাংসদ চিন্ময়ানন্দ পরিচালিত একটি আইন কলেজের ছাত্রী ছিলেন। তার অভিযোগ, ৭২ বছরের চিন্ময়ানন্দ তাকে এক বছর ধরে ধর্ষণ ও শারীরিক ভাবে নিগ্রহ করেছেন। বৃহস্পতিবার দিল্লির লোধি রোডের থানায় জমা দেওয়া ১২ পাতার অভিযোগপত্রতে ওই তরুণী অভিযোগ জানান, উত্তরপ্রদেশের পুলিশকে তিনি বিশ্বাস করেন না। কেননা তার পরিবার শাহজাহানপুর জেলা প্রশাসন থেকে কোনও রকম সাহায্য পায়নি।

সোমবার সংবাদমাধ্যমের সামনে উপস্থিত হয়ে কালো স্কার্ফে মুখ ঢেকে ওই তরুণী জানান, চিন্ময়ানন্দ তাকে এক বছর ধরে ধর্ষণ ও শারীরিক নিপীড়ন করেছেন।

গত ২৪ আগস্ট থেকে নিখোঁজ থাকার পর ৩০ আগস্ট রাজস্থানে তাকে পাওয়া যায়। এর আগে এক সপ্তাহ তার কোনও খোঁজ মেলেনি। নিখোঁজ হওয়ার আগে তিনি অনলাইনে একটি ভিডিও পোস্ট করে জানান, ওই বিজেপি নেতা কীভাবে তাকে নিগ্রহ করেছেন ও ভয় দেখিয়েছেন। তাকে খুনের হুমকিও দেওয়া হয়েছে বলে জানান তিনি। ভিডিওতে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি ও উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথের কাছে তিনি সাহায্য প্রার্থনা করেন ওই তরুণী।

মেয়ে নিখোঁজ হওয়ার পর তাঁর বাবা পুলিশের কাছে অভিযোগ জানানোর সময় চিন্ময়ানন্দের নামটি জানিয়ে দেন।

প্রাক্তন বিজেপি নেতা জানান, এসবই তাকে ব্ল্যাকমেল করার ‘চক্রান্ত’।

গত ৩০ আগস্ট ওই তরুণীকে রাজস্থানে পাওয়া যায়। তাঁকে সুপ্রিম কোর্টে হাজির করা হলে তিনি আদালতকে জানান, প্রাণ বাঁচাতেই তিনি আত্মগোপন করেছিলেন। এরপর শীর্ষ আদালত একটি বিশেষ অনুসন্ধানকারী দল বা সিট গঠন করার নির্দেশ দেয় এই অভিযোগের ভিত্তিতে তদন্ত শুরু করার জ‌ন্য।

তরুণী জানাচ্ছেন, ‘‘সিট আমাকে ১১ ঘণ্টা ধরে প্রশ্ন করেছে। আমি তাদের ধর্ষণের ব্যাপারে বলেছি। তবে তাদের সব বলা সত্ত্বেও তারা চিন্ময়ানন্দকে গ্রেফতার করেনি এখনও পর্যন্ত।”

মঙ্গলবার সিট ওই তরুণীকে নিয়ে তাঁর কলেজ হোস্টেলে যায়। সঙ্গে ছিলেন ম্যাজিস্ট্রেটও। সেখান থেকে প্রমাণ সংগ্রহ করা হয়।

সংবাদ সংস্থা এএনআই সূত্রে জানা যাচ্ছে, চিন্ময়ানন্দের আইনজীবী জানিয়েছেন, ‘‘স্বামীজি মামলাটি থেকে দূরে সরে যাচ্ছেন না। তিনি এই মুহূর্তে আধ্যাত্মিক ক্রিয়াকলাপে ব্যস্ত। কিন্তু তিনি অবশ্যই প্রয়োজন পড়লে দিল্লি পুলিশের সামনে হাজিরা দেবেন।”

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত