প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

নিজ পেশার প্রতি আন্তরিক থাকা ঈমানের দাবি

আমিন মুনশি : পেশা হলো আল্লাহ তায়ালার পক্ষ হতে রিজিক লাভের একটি ওসিলা। এই ওসিলা লাভের আদেশ আল্লাহ তায়ালাই করেছেন। সুতরাং বলার অপেক্ষা রাখে না, মহান আল্লাহর পক্ষ থেকে কিছু পাওয়ার মাধ্যম বা ওসিলাই হলো পেশা। তাই নিজের কাজের প্রতি শ্রদ্ধাশীল ও আন্তরিক থাকা ঈমানের দাবি। নিজের দায়িত্ব ও পেশার প্রতি শ্রদ্ধা থাকলে সেই কাজ সুন্দর হতে বাধ্য। আল্লাহ তায়ালা বলেন, নামাজ শেষ হলে তোমরা জমিনে ছড়িয়ে পড় এবং আল্লাহর অনুগ্রহ খোঁজ করো ও আল্লাহকে অধিক স্বরণ কর, যাতে তোমরা সফলকাম হও। (সুরা জুমআ’ : ৯)

উল্লেখিত আয়াতে বলা হয়েছে, নামাজ শেষে তোমরা জমিতে ছড়িয়ে পড়, অর্থাৎ যার যে যোগ্যতা আছে, সে অনুযায়ী হালাল রুজি উপার্জনের চেষ্টা করবে। আর আল্লাহ তায়ালা তার চেষ্টা অনুযায়ী তাকে উত্তম রিজিক দেবেন। এটা আল্লাহ তায়ালার ওয়াদা। রিজিক আল্লাহ তায়ালার বড় নেয়ামত। আর পেশা যখন অমূল্য নেয়ামতের মাধ্যম হয় তখন নিয়ামতের মর্যাদায় পেশাও মর্যাদার বিষয় হয়ে যায়। নবী করিম সা. বলেছেন, কর্মের মাধ্যমে উপার্জিত খাদ্যের চেয়ে অন্য কোন পবিত্র খাদ্য নেই। (বুখারী শরীফ)

অন্য হাদিসে হজরত আব্দুল্লাহ ইবনে আব্বাস থেকে বর্ণিত তিনি বলেন, নবী কারিম সাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন, হজরত দাউদ (আ.) ছিলেন লৌহবর্ম প্রস্তুতকারক। হজরত আদম (আ.) ছিলেন চাষি। হজরত নুহ (আ.) ছিলেন কাঠমিস্ত্রি। হজরত ইদরিস (আ.) ছিলেন দরজি। আর হজরত মুসা ( আ.) ছিলেন রাখাল (মুস্তাদরাকে হাকিম)।

উপরের হাদিসগুলোতে এ কথাই স্পষ্ট বুঝা যাচেছ, মানুষকে তার রিজিক অন্বেষণের জন্য বৈধ উপায় অবলম্বন করতে বলা হয়েছে। এ জন্য দেখা যায়, যে সকল লোক ইসলাম সঠিকভাবে মেনে চলে, তারা কর্মক্ষেত্রে কখনো কোন কর্মকে তুচ্ছ বা অহংকারের দৃষ্টিতে দেখে না। তারা তাদের যোগ্যতা অনুসারে নিজ নিজ কর্মকে শ্রদ্ধার সাথে দেখে এবং তাতে তারা খুবই আন্তরিক থাকে।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত