প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

মুসলমান বাংলাদেশিদের শনাক্তেই এনআরসি হবে পশ্চিম বাংলায়, বললেন পশ্চিমবঙ্গ বিজেপি সভাপতি

বেলাল হোসেন : আপাতত ১৯৭১-কেই ভিত্তিবর্ষ ধরে পশ্চিমবঙ্গে নাগরিকপজ্ঞি করতে চায় রাজ্য বিজেপি।অবশ্য যেহেতু এ ব্যাপার নির্দিষ্টভাবে কোনো সিদ্ধান্ত এখনও নেওয়া হয়নি, তাই এনআরসির ভিত্তিবর্ষেও সঠিক তারিখ কী হবে তা এখনো জানা নেই দিলিপ ঘোষের।
সূত্র : যুগশঙ্ঘ

তবে বিজেপির পশ্চিমবঙ্গ সভাপতির এ ব্যাপারে কোনো সংশয় নেই যে এনআরসি হবে শুধু মুসলিম বাংলাদেশিদের শনাক্ত করতেই। এর ফলে বাংলাদেশের হিন্দুদের ওপর নির্যাতন বেড়ে যাওয়ার আশঙ্কাকে উড়িয়ে দিয়ে দিলীপমেষ ৩৭০ ধারা বিলোপের মাধ্যমে পাকিস্তানকে কড়া শিক্ষা দেওয়ার উদাহরণ দাঁড় করিয়েছেন বিজেপির এই সংসদ। ১৯৭১ সালের ২৪ মার্চের পর যাঁরাই আসামে এসেছেন তাঁরা বহিরাগত, হিন্দু হোক বা মুসলিম, তাঁদের আসাম থেকে বহিষ্কার করতে হবে , মূলত এই তত্বের ভিত্তি করেই শুধু আসামে নাগরিকপঞ্জির নবায়ন হচ্ছে। কিন্তু পশ্চিমবঙ্গে এর ভিত্তিবর্ষ কী হবে , শুধু মুসলিমদেরই শনাক্ত করা হবে, নাকি হিন্দু অনুপ্রবেশকারীদেরও বিদেশি হিসেবে করা হবে, এ নিয়ে বিজেপির অবস্থান স্পষ্ট নয়।

যুগশঙ্ঘের সাথে কথা বলতে গিয়ে দিলীপ ঘোষ বলেন, সারা দেশেই ১৯৭১ সালের ভিত্তিতে এনআরসি করাবে কেন সরকার। এই এজেণ্ডার লক্ষ্য যে বাংলাদেশি মুসলমানরা, এটাও কোনো রাখঢাক না রেখেই ষ্পষ্ট করে দেন তিনি। দিলীপ মেষের ভাষায়, নির্যাতনের শিকার হয়ে সেবব হিন্দু এ দেশে এসেছেন, তাঁদের হাতে যদি কোনো বৈধও নথি না থাকে তাহলেও তাঁদের নাগরিকত্ব দেওয়া হবে। পশ্চিমবঙ্গে বাংলাদেশ থেকে লাগামছাড়া অনুপ্রবেশের ফলে পশ্চিমবঙ্গের শ্রেনিবিন্যাস, অর্থনীতি এমনকী রাজনীতিও পাল্টে যাচ্ছে । এটা রোখার একমাত্র অস্ত্র বাংলাদেশি মুসলিমদের শনাক্ত করা।

প্রশ্ন হলো, এরপর কী ? শনাক্ত করার পর কী হবে এই বাংলাদেশি মুসলিমদের ? এ ব্যাপারে এই মুহুর্তে দিলীপবাবু হাতে কোনো রেডিমেড সমাধান নেই। তিনি বলেন, এদের নিয়ে কী করা হবে সেটা পরে ঠিক করা হবে। এদের ভোটাধিকার কেড়ে নেওয়া হবে কি না, সেটাও চিন্তাভাবনা করে দেখা যাবে। দিলীপবাবুর ভাষায় আসামে সম্প্রদায়িক দাঙ্গাও হয়েছে। পশ্চিমবঙ্গের পরিস্থিতি তো আর এমন নয়। কিন্তু আমাদের পশ্চিমবঙ্গে অনুপ্রবেশ ঘটেছে সবচেয়ে বেশি। এটা তো আর দীর্ঘ দিন ধরে থাকতে পারে না। কোনো একটা ভিত্তিবর্ষ ঠিক করে বিদেশি বাছাই তো করতে হবে। আমরা এবার সেটিই শুরু করতে চাই।

প্রশ্ন হচ্ছে, ভারতের কেন্দ্রে পাঁচ বছর ধরে মোদির সরকার শক্তিশালী অবস্থানে থাকলেও আসামে বাঙ্গালি হিন্দুর নিরাপত্তা সুনিশ্চিত করা যায়নি । সম্পাদনা : কায়কোবাদ মিলন

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ