প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

আবারো বিক্ষোভে উত্তাল হংকং, দূতাবাস কর্মীদের চীন সফর নিষিদ্ধ করলো কানাডা

লিহান লিমা: গণতন্ত্র-পন্থী ও সরকার-বিরোধী বিক্ষোভের অংশ হিসেবে শুক্রবার হংকং আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে বিক্ষোভ করেছে আন্দোলনকারীরা। এদিন হংকংয়ে কানাডার দূতাবাস কর্মীদের চীন সফরে নিষেধাজ্ঞা দেয়। কয়েকদিন আগে চীন থেকে ব্রিটেনের দূতাবাসের এক কর্মীকে আটকের পর কানাডার কাছ থেকে এই ঘোষণা আসলো। বেইজিং অভিযোগ করেছে, ব্রিটেনসহ অন্যান্য পশ্চিমা দেশগুলো হংকংয়ের বিষয়ে নাক গলাচ্ছে।

শুক্রবার হংকংয়ের নানা সরকারী সদরদপ্তর ও বিখ্যাত ‘বাল্টিক চেইন’ এর সামনে বিক্ষোভ করা হয়। র‌্যালির এক আয়োজক বলেন, ‘বাল্টিক ওয়ে আমাদের ভবিষ্যত প্রজন্মের উৎসাহ। এটি বিশ্বের নজর কাড়বে। আমাদের অনুরোধ হলো এই কঠিন সময়ে সবাই যেন হংকংয়ের সঙ্গে থাকে।’ রাজধানী শহর ছাড়াও হংকংয়ের বিভিন্ন প্রান্তে চীনের কর্তৃত্ববিরোধী বিক্ষোভ প্রদর্শন করেন তারা। বিমানবন্দরে বিক্ষোভ চালিয়ে যাওয়ার ডাক দিয়ে অনলাইনে বিক্ষোভের আয়োজকরা লেখেন, ‘বিমানবন্দরের ওপর চাপ সৃষ্টি করতে এয়ারপোর্ট চলো।’ গত সপ্তাহে আন্দোলনের মুখে বিশ্বের পঞ্চম ব্যস্ততম হংকং বিমানবন্দর সাময়িকভাবে বন্ধ করা হয়, বাতিল করায় শতশত ফ্লাইট। শুক্রবার বিমানবন্দর কর্তৃপক্ষ এয়ারপোর্টের কার্যক্রম ব্যাহত করা থেকে বিরত থাকতে দৈনিক পত্রিকায় একটি বিজ্ঞাপন প্রকাশ করে। হংকংয়ের আদালতও আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে বিক্ষোভকারীদের থামাতে বিধি-নিষেধ জারি করে।

চীনে অপরাধী প্রত্যপর্ণ আইনের প্রতিবাদে এই বিক্ষোভ শুরু হলেও পরে এটি সরকারবিরোধী ও গণতন্ত্র-পন্থী আন্দোলনে রুপ নেয়। তারা বৃহত্তর স্বাধীনতার ডাক দেন ও ‘এক দেশ, দুই নীতি’ বিলোপ নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেন। ১৯৯৭ সালে ব্রিটেন হংকংকে বেইজিংয়ের কাছে হস্তান্তরের পর গৃহীত ওই নীতিতে স্বাধীন বিচার কার্যক্রম ও আন্দোলনের অধিকারের কথা বলা ছিলো।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত